About Mostak Ahamad

লাইটিং খুব সুন্দর।

বিকাশ একাউন্ট থেকে ভুলবশত কোন নাম্বারে টাকা গেলে প্রথমে নিকটস্থ থানায় যোগাযোগ করুন। ট্রানজেকশন নাম্বার নিয়ে জিডি করুন। যত দ্রুত সম্ভব জিডি কপি নিয়ে বিকাশ অফিসে যোগাযোগ করুন এবং আপনার সমস্যা জানান। খেয়াল রাখবেন টাকা ভুল নাম্বারে গেলে সাথে সাথে প্রাপক কে ফোন দিবেন না। আমাদের দেশে অন্যের টাকা ভুল করে চলে আসলে, তা ফিরয়ে দেয়ার মানসিকতা খুব কম লোক রাখে। তিনি টাকা উঠিয়ে ফেললে, আপনার করার কিছুই থাকবেনা। তবে তিনি টাকা উঠানোর আগেই, জিডি কপি এবং মেসেজ সহ যদি বিকাশ অফিসে যোগাযোগ করেন, তারা টেম্পোরারী ওই ব্যাক্তির একাউন্ট লক করে, উনার সাথে কথা বলবে। প্রাপক যদি তখন জানায় হ্যা টাকা এসেছে, বিকাশ অফিস থেকেই টাকা স্থানান্তর করে দিবে, যদি তিনি নিজের টাকা দাবী করেন, তাহলে ৭ কর্মদিবসের মাঝে তাকে অফিসে এসে একাউন্ট ঠিক করে নিতে হবে।
এডিট

(পরবর্তী ৬ মাসে যদি তিনি না আসেন, তাহলে প্রেরকের একাউন্টে টাকা পৌছে যাবে।)
সংশোধিত অংশ
পরবর্তী ৬ মাস একাউন্ট ঠিক না করলে একাউন্ট টি অটো ডিজেবল হয়ে যাবে চিরতরে, এবং প্রেরক আদালতের সাহায্য নিয়ে টাকা আনতে পারবেন।

মৃত্তিকা হতে জন্ম মোদের
মৃত্তিকায় যাব মিশে
স্রষ্টার, সেরা- সৃষ্টি হয়েও
মরছি জরা- জির্ণতার অনুতাপে।

১০ মিনিটের আবেগ মাগো
৫ মিনিটের সুখ "💏
কে তুমি মা..দেখতে দিলানা
এই পৃথিবীর মুখ "৷😭
জোর করে তো আসি নিকো
তোর শরীরে আমি "!🙄
এই পৃথিবীতে নাকি সন্তান হয়
মায়ের কাছে খুবে দামী "!🎖

তবে কেন সুখের ভুলে
আমায় পেটে নিলা"?🤰👈
সুখের শেষে কেটে ছিড়ে
আমায় ফেলে দিলা"?🙄
একদিন তুমি আমার কাছে
আসবে ঠিকই মাগো"?👰

কি বলবে তখন খোদার কাছে
ঠিক করে রাখো "!🕋👈
আমি তো মা বেঁচে গেছি
বেঁচে গেল মান " 🤲
নয়তো সবাই বলতো
মোরে অবৈধ সন্তান " 😢
.
একটু অবৈধ সুখ পেতে
আমায় পেটে নিলে "🤰
কলঙ্কের ভয়ে আবার আমায়
ছিড়ে ফেলে দিলে""!❌😭

তোমার মাও করতো যদি
তোমার সাথে এমন "🤱
বুঝতে মাগো সেদিন তুমি
মৃত্যু যন্ত্রনা কেমন "!!😭😭😥😥

বাংলাদেশ লোকশিল্প যাদুঘর সোনারগাঁও। আসলে কি অপরুপ তাদের কারুকাজ না দেখলেই নয়। বাংলার রুপ সম্পূর্নরুপে ফুটিয়ে তুলেছেন একটি দৃশ্যেে।

(৭) জন বীরশ্রেষ্ঠ সম্পর্কে
১) ➲ মুন্সি আব্দুর রউফ
জেলা: ফরিদপুর, উপজেলা: মধুখালী, গ্রাম: সালামতপুর।
জন্মঃ মে, ১৯৪৩
পদবিঃ ল্যান্স নায়েক
কর্মস্থলঃ ইপিআর
সেক্টরঃ ১ নং
শহীদ হনঃ ০৮/০৪/১৭৯১ তারিখে।


২) ➲ মোঃ মোস্তফা কামাল
জেলা: ভোলা,উপজেলা: দৌলতপুর, গ্রাম: মৌটুপী।
জন্মঃ ১৬/১২/১৯৪৭
পদবিঃ সিপাহী
কর্মস্থলঃ সেনাবাহিনী
সেক্টরঃ ২ নং
শহীদ হনঃ ১৪/০৪/১৯৭১ তারিখে।


৩) ➲ মতিউর রহমান
জেলা: নরসিংদী, উপজেলা: রায়পুরা, গ্রাম: রামনগর।
জন্মঃ ২৯/১১/১৯৪২
পদবিঃ ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট
কর্মস্থলঃ বিমানবাহিনী
শহীদ হনঃ ২০/০৮/১৯৭১ তারিখে।

সাত (৭) জন বীরশ্রেষ্ঠ সম্পর্কে A to Z গুরুত্বপূর্ন তথ্য একসাথে দেওয়া হলো
সাত (৭) জন বীরশ্রেষ্ঠ সম্পর্কে A to Z গুরুত্বপূর্ন তথ্য একসাথে দেওয়া হলো
৪) ➲ নূর মোহাম্মদ শেখ
জেলা: নড়াইল, গ্রাম: মহিষখোলা।
জন্মঃ ২৬/০২/১৯৩৬
পদবিঃ ল্যান্স নায়েক
কর্মস্থলঃ ইপিআর
সেক্টরঃ ৮ নং
শহীদ হনঃ ০৫/০৯/১৯৭১ তারিখে।


৫) ➲ হামিদুর রহমান
জেলা: ঝিনাইদহ,উপজেলা: মহেশপুর, গ্রাম: খোর্দ্দ খালিশপুর
জন্মঃ ০২/০২/১৯৩৪
পদবিঃ সিপাহী
কর্মস্থলঃ সেনাবাহিনী
সেক্টরঃ ৪ নং
শহীদ হনঃ ১০/১২/১৯৭১ তারিখে।

আমাদের গ্রুপে জয়েন হলে আপনি উপকৃত হবেন আশা করি


৬) ➲ রুহুল আমীন
জেলা: নোয়াখালী,উপজেলা: সোনাইমুড়ি, গ্রাম: বাঘপাঁচড়া।
জন্মঃ ১৯৩৪
পদবিঃ স্কোয়াড্রন ইঞ্জিনিয়ার
কর্মস্থলঃ নৌবাহিনী
সেক্টরঃ ১০ নং
শহীদ হনঃ ১০/১২/১৯৭১ তারিখে।


৭) ➲ মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর
জেলা: বরিশাল, উপজেলা: বাবুগঞ্জ, গ্রাম: রহিমগঞ্জ।
জন্মঃ ১৯৪৮
পদবিঃ ক্যাপ্টেন
কর্মস্থলঃ সেনাবাহিনী
সেক্টরঃ ৭ নং
শহীদ হনঃ ১৪/১২/১৯৭১ তা

মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাষানী শুধু নিষ্ঠাবান মানুষই ছিলেন না, অসাধারন বুদ্ধিমত্তার অধিকারীও ছিলেন তিনি। লেখাটা পড়ে দেখুন----

"সভা আরম্ভ হবার সাথে সাথেই ১৪৪ ধারা জারি করা হলো। পুলিশ এসে মওলানা সাহেবকে (আব্দুল হামিদ খান ভাসানী) একটা কাগজ দিলো। আমি বললাম, মানি না ১৪৪ ধারা, আমি বক্তৃতা করবো। মওলানা সাহেব দাঁড়িয়ে বললেন, '১৪৪ ধারা জারি হয়েছে। আমাদের সভা করতে দেবে না। আমি বক্তৃতা করতে চাই না, তবে আসুন, আপনারা মোনাজাত করুন। আল্লাহু আমিন।'

মওলানা সাহেব মোনাজাত শুরু করলেন। মাইক্রোফোন সামনেই আছে। আধঘন্টা পর্যন্ত চিৎকার করে মোনাজাত করলেন, কিছুই বাকি রাখলেন না, যা বলার সবই বলে ফেললেন। পুলিশ অফিসার ও সেপাইরা হাত তুলে মোনাজাত করতে লাগলো। আধঘন্টা মোনাজাতে পুরো বক্তৃতা করে মওলানা সাহেব সভা শেষ করলেন। পুলিশ ও মুসলিম লীগ ওয়ালারা পুরো বেয়াকুফ হয়ে গেলো।"

- অসমাপ্ত আত্মজীবনী (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান)

মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী গেলো গতকাল, ১৯৭৬ সালের এই দিনে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করছি।

ফরিদপুরের ইতিহাস ঐতিহ্য।

★ ফরিদপুর জেলা প্রতিষ্ঠা লাভ করে ১৮১৫ সালে।
★ ফরিদপুর জেলার পুরাতন নাম ছিল ফতেহাবাদ।
★ ফরিদপুর জেলার নামকরণ করা হয় বিখ্যাত সূফী সাধক শেখ ফরিদের নামানুসারে।
★ ফরিদপুর জেলার মোট আয়তন ২০৫২.৮৬ বর্গকিলোমিটার।
★ ফরিদপুর জেলায় মোট জনসংখ্যা ১৯,৮৮,৬৯৭ জন(আদমশুমারি২০১১)
★ ফরিদপুর জেলায় প্রতি বর্গকিলোমিটারে লোক বাস করে ৯৩২ জন।
★ ফরিদপুর জেলায় উপজেলা ৯ টি যথা- সদর, সদরপুর,মধুখালি, বোয়ালমারী, আলফাডাঙ্গা, সালথা, নগরকান্দা, ভাঙ্গা, চরভদ্রাসন।
★ ফরিদপুর জেলায় পৌরসভা ৬ টি,ইউনিয়ন ৮১ টি ও গ্রাম ১৮৯৯ টি।
★ ফরিদপুর জেলার স্বাক্ষরতার হার ৪৯.০ % ও স্বাক্ষরতা আন্দোলনের নাম "আলোর পথে"
★ ফরিদপুর জেলার উল্লেখযোগ্যা নদনদী- পদ্না, মধুমতি, আড়িয়াল খা, কুমার।
★ ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন বীর শ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ।
★ ফরিদপুর জেলার প্রথম স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ্ মোঃ আবু জাফর।
★ ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করে বিশিষ্ট চলচিত্র পরিচালক তারেক মাসুদ।
★ ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন প্রখ্যাত ভারতীয় বাঙালী চলচ্চিত্রকার মৃণাল সেন।
★ আলাউদ্দিন হুসেন শাহের আমলে নির্মিত ঐতিহাসিক সাতৈর মসজিদ ফরিদপুর জেলায় অবস্থিত।
★ ফরিদপুর জেলা মুক্তিযুদ্ধের সময় ২ ও ৮ নং সেক্টরের অধীনে ছিল।
★ ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন পল্লী কবি জসীমউদ্দীন।
★ ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন বাংলার মুসলিম জাগরণের অগ্রদূত নওয়াব আবদুল লতিফ।
★ বাংলাদেশের একমাত্র নদী গবেষণা ইন্সটিটিউট ফরিদপুর জেলায় অবস্থিত।

"""""সংগ্রহীত বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ""""
""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""
আলেম শামচুল হক (রহঃ), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,খাঁন বাহাদুর আসাদুজ্জামান, খাঁন বাহাদুর ঈসমাইল হোসেন।অধ্যক্ষ আজাহারুল হক মোল্যা( সাবেক এমপি), বীর শ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ,বিশিষ্ট লেখক অধ্যাপক নুরুল মোনেম, আইনের বই লেখক ততকালীন বিখ্যাত মুসলিমলীগ নেতা এবং এম,এল,এ (এমপি) এম,এ ওয়াহিদ টেঁপু মিয়া, বিশিষ্ট লেখক খাঁন আশরাফ, এ,সি,আই এর মালিকগণঃ আসাফুদ্দৌলাহ ( সাবেক সচিব, বুদ্ধিজীবি ), আনিচুদ্দৌলাহ ও ফিরোজা বেগম (নজরু সঙ্গীত শিল্পী), মীর আক্তার হোসেন গ্রুপের দুই কর্ণধারঃ মীর আক্তার হোসেন এবং মীর নাসির হোসেন ( ইষ্টার্ন ব্যাংকের অন্যতম পরিচালক ), হামিম গ্রুপের কর্ণধার এ,কে আজাদ, পান্না গ্রুপের কর্ণধার লোকমান হোসেন, ভাষা সৈনিক শামচুল বারী মিয়া মোহন, বিশিষ্ট লেখক মোতাহার হোসেন, বিশিষ্ট ব্যক্তি হমায়ুন কবির উনার জামাতা ( ইন্ডিয়ার সবেক মন্ত্রী ), বিশিষ্ট ব্যক্তি আকবর কবীর উনার জামাতা ( সাবেক মন্ত্রী ), কবি জসিমউদ্দিন এর জামাতা ( সাবেক ভাইস-প্রেসিডেন্ট ও সাবেক মন্ত্রী ), কবি জসিমউদ্দিন এর আরেক জামাতা ( সাবেক সচিব এবং বর্তমান জ্বালানী উপদেষ্টা ) বিশিষ্ট ব্যক্তি মোহন মিয়া চৌধুরী উনার পুত্র (সাবেক মন্ত্রী ), বিশিষ্ট ব্যক্তি খন্দকার নুরু মিয়া উনার পুত্র ( এলজিআরডির প্রতিষ্ঠাতা এবং বর্তমান এলজিআরডি মন্ত্রী।
(সংগ্রহীত)

এক নজরে জ্যামিতিক সকল (সংজ্ঞা+ ইংরেজি অর্থ) একসাথে দেখে নিন
❑ সূক্ষ্মকোণ (Acute angle) : এক সমকোণ (90) অপেক্ষা ছোট কোণকে সূক্ষকোণ বলে।
❑ সমকোণ (Right angle) : একটি সরল রেখার উপর অন্য একটি লম্ব টানলে এবং লম্বের দু’পাশে অবস্থিত ভূমি সংলগ্ন কোণ দুটি সমান হলে, প্রতিটি কোণকে সমকোণ বলে। এক সমকোণ=90
❑ স্থূলকোণ (Obtuse angle) : এক সমকোণ অপেক্ষা বড় বিন্তু দুই সমকোণ অপেক্ষা ছোট কোণকে সথূলকোণ বলে।
❑ প্রবৃদ্ধকোণ (Reflex angle) : দুই সমকোণ অপেক্ষা বড় কিন্তু চার সমকোণ
অপেক্ষা ছোট কোণকে প্রবদ্ধ কোণ বলে। অর্থাৎ 360 > x 180 হলে x একটি প্রবৃদ্ধ
কোণ।
❑ সরলকোণ (Straight angle) : দু’টি সরল রেখাপরস্পর সম্পর্ণ বিপরীত দিকে গমন করলে রেখাটির দু’পাশে যে কোণ উৎপন্ন হয় তাকে সরলকোণ বলে। সরলকোণ
দুই সমকোণের সমান বা 180
❑ বিপ্রতীপকোণ (Vertically Opposite angle ) : দু’টি সরল রেখা পরস্পর ছেদ করলে যে চারটি কোণ উৎপন্ন হয় এদের যেকোণ একটিকেতার বিপরীত কোণের
বিপ্রতীপ কোণ বলে।
❑ সম্পূরককোণ(Supplementary angle ) : দু’টি কোণের সমষ্টি 180 বা দুইসমকোণ হলে একটিকে অপরটির সম্পূরক কোণ বলে।
❑ পূরককোণ (Complementary angle) : দু’টি কোণের সমষ্টি এক সমকোণ বা 90 হলেএকটিকেঅপরটির পূরক কোণ বলে।
❑ একাস্তরকোণ: দু’টি সমান্তরাল রেখাকে অপর একটি রেখা তির্যকভাবে ছেদ করলে ছেদক রেখার বিপরীত পাশে সমান্তরাল রেখা যে কোণ উৎপন্ন করে তাকে একান্তর কোণ বলে। একান্তর কোণগুলো পরস্পর সমান হয়।
❑ সন্নিহিতকোণ: যদি দু’টি কোণের একটি সাধারণ বাহু থাকে তবে একটি কোণের অপর কোণের সন্নিহিত কোণ বলে।
❑ ত্রিভূজ (Triangle): তিনটি সরলরেখা দ্বারা সীমাবদ্ধ ক্ষেত্রকে ত্রিভূজ বলে।
❑ সুক্ষ্মকোণীত্রিভূজ (Acute angle triangle ) : যে ত্রিভূজের তিনটি কোণই এক সমকোণ(90 0 ) এর ছোট তাকে সূক্ষ্মকোণী ত্রিভূজ বলে।❑ সমকোণী ত্রিভূজ (Right angled triangle) : যে ত্রিভূজের একটি কোণ সমকোণ
তাকে সমকোণী ত্রিভূজ বলে। কোন ত্রিভূজে একটির অধিক সমকোণ থাকতে পারে না। সমকোণী ত্রিভূজের সমকোণের বিপরীত বাহুকে অতিভূজ এবং সমকোণ সংলগ্ন বাহুদ্বয়ের একটিকে ভূমি এবং অপরটিকে লম্ব বলা হয়।
❑ লম্বকেন্দ্র
ত্রিভুজের তিনটি শীর্ষ থেকে বিপরীত বাহুগুলির উপর তিনটি লম্ব সমবিন্দুগামী, এবং বিন্দুটির নাম লম্বকেন্দ্র(orthocenter)❑ পরিবৃত্ত: তিনটি শীর্ষবিন্দু যোগ করে যেমন একটিমাত্র ত্রিভুজ হয় তেমনি তিনটি বিন্দু (শীর্ষ)গামী বৃত্তও একটিই, এর নাম পরিবৃত্ত।❑ পরিকেন্দ্র: পরিবৃত্তের কেন্দ্র (যে বিন্দু ত্রিভুজের শীর্ষত্রয় থেকে সমদূরত্বে স্থিত)।
❑ চতুর্ভুজ: চারটি রেখাংশ দিয়ে সীমাবদ্ধ সরলরৈখিক ক্ষেত্রের সীমারেখাকে চতুর্ভুজ বলে।
বিকল্প সংজ্ঞা: চারটি রেখাংশ দিয়ে আবদ্ধ চিত্রকে চতুর্ভুজ বলে।চিত্রে কখগঘ একটি চতুর্ভুজ।
Geometry-জ্যামিতি,
Point-বিন্দু্,
Line-রেখা,
Solid-ঘনবস্ত
Angle-কোণ,
Adjacent angle-সন্নিহিত কোণ,
Vertically opposite angles-বিপ্রতীপকোন,
Straight angles-সরলরেখা,
Right angle-সমকোণ,
Acute angle সূক্ষকোণ,

বর্তমান যুগে মানুষের প্রতি মানুষের মহব্বত (ভালবাসা) যেন কমে যাচ্ছে। সবকিছুতেই মানুষ লাভ খোঁজে, "মনে হয় মানুষে মানুষের আজ ব্যবসায়িক সম্পর্ক"। উপকার কথাটি যেন একসময় ইতিহাসের পাতায় খুজতে হবে।....................................

..........।

ভাল করে পড়ে..বইলেন..কেমন লাগছে..#গার্লফ্রেন্ডকে পুকুর দেখাতে
নিয়ে গেলো ।।
হঠাৎ গার্লফ্রেন্ড পুকুরে পরে
গেলো....
তারপর,,,,,,,""""
বল্টু কাঁদতে লাগলো...
.
বল্টুর কান্না শুনে এক
জলপরী উঠে এসে বললো-
.
জলপরীঃ এই বালক, কাঁদছো
কেনো??
বল্টু : আমার গার্লফ্রেন্ড
জলে পড়ে গেছে...
তাই কাঁদছি॥
জলপরীঃ=- আচ্ছা,অপেক্ষা
করো
আমি তোমার গার্লফ্রেন্ডকে এনে
দিচ্ছি..
এই বলে জলপরী জলে ডুব দিলো..
অতঃপর জলপরী নিয়ে এল এক
কালো মেয়েকে।
জলপরী জিজ্ঞাসা করল: এটাই
কি তোমার গার্লফ্রেন্ড?
বল্টু চিনতে না পেরে
অস্বীকার করল।
.
(এরপর আপনি কি ভাবছেন.?.. সেই
কাঠুরিয়ার কথা । যে কিনা
একে একে তিনটা কুড়োল এনে
দিয়েছিল ।
এখানেও কি জলপরী আরেকটা
সুন্দরমেয়ে তুলবে?না।)
অস্বীকার করায় বল্টুকে একটা
থাপ্পড় দিয়ে বলল:
* * * ** *
হারামজাদা ভাল করে দেখ
এটাই তোর গার্লফ্রেন্ড।
জলে পরে মেকাপ উঠে গেছে ।

10-Dec-2019 তারিখের কুইজ
(অংশগ্রহণ করেছেন: 815 জন)
প্রশ্নঃ ৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ দক্ষিণ এশিয়ার দুই দেশ ভুটান ও ভারত পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশকে স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দান করে। যুদ্ধের সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ছিলেন ‘রিচার্ড নিক্সন’। তখন ‘রিচার্ড নিক্সন’ কোন দেশকে সমর্থন প্রদান করেন?
(A) নিরপেক্ষ ছিলেন
(B) বাংলাদেশকে সমর্থন করেছিলেন
(C) পাকিস্তানকে সমর্থন করেছিলেন