About Yeamin Hussain

করোনাভাইরাসের টিকা আবিষ্কার কত দূর?
চীনে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫৩৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এতে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৬ হাজার ৪৯২ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৪১ জন।


শনিবার চীনের মধ্য প্রদেশ হুবেইয়ের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো এ তথ্য জানিয়েছে। খবর বিবিসি বাংলার। বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ তৈরি করা প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস যার নাম এখন কোভিড-১৯। এই রোগের ভ্যাকসিন আবিষ্কারে কাজ চলছে। এই রোগের ভ্যাকসিন নিয়ে মানুষের আগ্রহের শেষ নেই। সবাই এখন জানতে চায় ভ্যাকসিন আবিষ্কার কত দূর।

কেউ হয়তো আশা করছেন কোনো একটি ঔষধ কোম্পানি দ্রুত এর ভ্যাকসিন বা টিকা বা প্রতিষেধক বাজারে আনবে।

আর আয় করবে মিলিয়ন বা বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার। বে বাস্তবতা হলো এটা হচ্ছে না এখনই। এ জন্য প্রয়োজন সময়ের। বৈশ্বিক ভ্যাকসিন বাজার চলতি বছরে ছয় হাজার কোটি ডলারে দাঁড়াবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে সেখানে বড় ধরনের লাভের কোনো নিশ্চয়তা নেই।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বায়োটেকনোলজি বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান লংকার ইনভেস্টমেন্টের প্রধান নির্বাহী ব্রাড লংকার বলেন, তবে এই টিকা বা প্রতিষেধক সফলভাবে বের করে আনা বেশ জটিল কাজ। আর এর জন্য দরকার অনেক সময় ও অর্থের।

তিনি জানিয়েছেন, কোম্পানিগুলোতে ভ্যাকসিন তৈরি করার মতো পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ নেই। করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণ এখনও অনেক দূরে। বৈশ্বিক ভ্যাকসিন বা টিকা শিল্পে বড় নামগুলো যেমন পিফিজার, মার্ক, গ্লাক্সোস্মিথ, স্যানোফি এবং জনসন অ্যান্ড জনসন।

গত বছর বিশ্বব্যাপী টিকা বিক্রি হয়েছিল পাঁচ হাজার চারশো কোটি ডলার যা ২০১৪ সালের দ্বিগুণ। আর এ বৃদ্ধির মূল কারণ হলো- ইনফ্লুয়েঞ্জা, সোয়াইন ফ্লু, হেপাটাইটিস ও ইবোলার মতো রোগগুলো।

আমস্টার্ডমের ইউনিভার্সিটি মেডিকেল সেন্টার গ্রনিনজেনের মেডিসিন ল’ অ্যান্ড পলিসি বিষয়ক পরিচালক ড. এলেন টি হোয়েন বলেন, করোনার টিকা আবিষ্কারে চারটি সেরা কোম্পানির কেউই এ বিষয়ে কোনো আগ্রহ দেখায়নি কেউ ভাবতে পারে যে এবারের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার মতো অর্থ এই শিল্পের আছে।

তবে বড় কোম্পানিগুলোর বাইরে কিছু ছোট ওষুধ কোম্পানি চেষ্টা করছে কোভিড-১৯ এর টিকা আবিষ্কারের জন্য।

জিলিড, যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বায়োটেক প্রতিষ্ঠান যারা এন্টি এইচআইভি ড্রাগ তৈরি করে তারা ঘোষণা করেছে যে, তারা রেমডিসিভির নামে একটি ওষুধ নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালাবে। অন্যদিকে কালেট্রা চীনে একজন রোগীকে নিয়ে গবেষণা করছে। তবে দুটি পরীক্ষাতেই বিদ্যমান ওষুধই ব্যবহার করা হচ্ছে।

কোভিড-১৯ এর জন্য টিকা খুঁজতে কোম্পানিগুলোকে উৎসাহিত করতে চ্যারিটেবল ডোনেশন ব্যবহার করা হচ্ছে।

এর মধ্যে একটি হলো অলাভজনক সংস্থা দ্য কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ারডসেন ইনোভেশন বা সিইপিআই। এর যৌথ প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে আছে নরওয়ে ও ভারত সরকার, বিল ও মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন এবং দা ওয়েলকাম ট্রাস্ট।

সিইপিআই ইনোভিও ফার্মাসিউটিক্যালস ও মডার্নার ভ্যাকসিন ডেভেলপমেন্ট কর্মসূচিতে সহায়তা করছে। আর বড়দের মধ্যে জিএসকে তাদের হাতে থাকা প্রযুক্তি দিয়ে সিইপিআইকে সহযোগিতার কথা জানিয়েছে।

টিকার ক্ষেত্রে বিক্রির অনুমতি পাওয়ার আগে অনেক সময় লম্বা সময় ধরে হাজার মানুষের ওপর পরীক্ষার প্রয়োজন হয়।

যদিও ২০০২ ও ২০০৩ সালে সার্সের সময় কোনো টিকাই আনা যায়নি এবং সার্সের জন্য এখনও কোনো টিকা নেই। ইউএস ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজের ডিরেক্টর ড. অ্যান্থনি ফৌচি বলছেন, কোনো বড় কোম্পানিই এগিয়ে এসে বলেনি যে তারা কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন তৈরি করবে। এটা খুব হতাশাজনক।

তার মতে, কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন আসতে অন্তত এক বছর সময় লাগবে। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আশা করছে দেড় বছরের মধ্যে এ ভ্যাকসিন বাজারে আসবে।

তথ্যসূত্র: বিবিসি বাংলা

সূর্য আর কতদিন জ্বলবে, সূর্য জ্বলেই বা কেন? নিভে গেলে কি হবে?
এমন কল্পনা সবাই মাঝে মাঝে হয়ে থাকে,
হ্যা, সূর্য নিভে গেল পৃথিবীতে হয়তো সর্বোচ্চ 4/5দিন আমরা জীবিত থাকতে পারবো, তারপর পৃথিবী একটি কঠিন বরপ খন্ডে পরিনত হবে।
যাইহোক,
এতদিন আমরা বিজ্ঞানের মাধ্যমে জেনেছি যে, সূর্যের গাঠনিক উপাদান হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম। এবং একটি নিদিষ্ট সময় এই জ্বালানি/উপাদান শেষ হয়ে যাবে (যেটা হয়তো ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন বছর পরেও হতে পারে) তখন পৃথিবী ধ্বংশ হয়ে যাবে।
-
কিন্তু, আমার দৃষ্টিকোন থেকে উপরের ধারনা সঠিক নয়। সূর্য হিলিয়াম বা হাইড্রোজেন দিয়ে গঠিত নয়, এটা শুধু মাত্র ইলেকট্রন বিষ্ফোরণ মাত্র, যা চৌম্বক আকর্ষণ দ্বারা দৃষ্ট। সৌর জগতে যে গ্রহগুলো রয়েছে, তাদের প্রত্যেকের নির্দিষ্ট আকর্ষণ বল রয়েছে, সমস্ত গ্রহের এই আকর্ষণ বল একটি কেন্দ্রে কেন্দ্রভূত হয়ে বিশাল একটি চৌম্বুক ক্ষেত্রে তৈরী হয়, এবং এই চৌম্বক আবেশ/আকর্ষণের মাধ্যমে ইলেকট্রান উৎপন্ন হয় ও জ্বলে উঠে আলো ছড়ায়। (যেমনটা জেনারেটরের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয়)। কেন্দ্রের এই যৌথ আকর্ষণ বল এতই শিক্তিশালী যে, এই আকর্ষণ এর প্রভাবে আবার সমস্ত গ্রহগুলো একে কেন্দ্র করে ঘুরতে থাকে, এটাই সৌরশক্তি।

[এটা আমার সম্পুর্ণ ব্যক্তিগত অভিমত, তবে সঠিক হওয়ার সম্ভবনা 100%, বিশ্ব বিজ্ঞানিদের বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করার জন্য আহবান করছি।]
-
-ইয়ামিন হুসাইন

আজ এই দিনে বিশিষ্ট বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেল তাঁর সমুদয় সম্পত্তি উইল করে নোবেল পুরস্কার প্রদানের জন্য তহবিল গঠন করেন। আর এই তহবিলের অর্থ থেকেই নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয়। উল্লেখ্য আজ আমার জন্মদিন।

জাতি হিসেব আমরা কতটা মূখ্য..!! সর্বনিন্ম যোগ্যতা ৮শ্রেণি পাস। তাও ধর্মঘট করে ৫ম শ্রেণিতে নামাতে চাই।

ছবিটি দিয়ে কি বুঝলাম।

এবার শীতে অস্বাভাবিকগারে মশা বাড়বে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

যুবউন্নয়ন অধিদপ্তর (সরকারী)- এ নিয়োগঃ
*****
Post Name: ক্রেডিট সুপারভাইজার, প্রদর্শক, কম্পিউটার অপারেটর ইত্যাদি
Number of Post : প্রায় 200টি
Qualification: অনার্স, HSC, SSC
Date Line: 21/11/2019
******
বিস্তারিত Job মেনু থেকে [Job No-115] দেখুন...

নৌবাহিনী’তে নিয়োগঃ
Post Name: বি-অফিসার ক্যাডেট
Number of Post : অজ্ঞাত
Qualification: HSC (বিজ্ঞান বিভাগে 4.50)
Date Line: 02/01/2020
** বিস্তারিত Job মেনুতি গিয়ে [Job No-111] দেখুন।

‘মিলিমিশি’ কুইজঃ
******
একজন ধর্ষক যখন গোপনে ধর্ষণ করে তখন সে চিন্তাও করে না যে, সত্য কখনো গোপন থাকে না, অন্যদের মত সেও একসময় খবরের শিনোনাম হয়ে যাবে। এতটুকু ভাবলে হয়তো সে নিজে ও তার পরিবারকে এই ঘৃণ অপমান ও অপরাধ থেকে বাঁচাতে পারতো। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০, এর ৯ ধারা মতে যদি কোন পুরুষ কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন। অন্যদিকে কেউ যদি ৫ গ্রামের কম ইয়াবা সেবন, বিক্রি, মজুদ বা পরিবহন করে তাহলে তার শাস্তি হবে সর্বনিম্ন ছয় মাসের কারাদণ্ড ও সর্বোচ্চ দুই বছর কারাদণ্ড। বাংলাদেশে প্রকাশ্যে ধুমপানকারীর জরিমানা কত?
(A) ৫ টাকা
(B) ২০০ টাকা
(C) ৩০০ টাকা
**********
পুরাস্কার বিজয়ী হওয়ার জন্য কুইজ অপশন থেকে উত্তর প্রদান করুন ও বন্ধুদের মিলিমিশি’তে জয়েন করার আমন্ত্রণ জানান।
-

মিলিমিশি কুইজঃ
-
নিয়মিত ফল খেলে জীবনিশক্তি বৃদ্ধি পায়; মেধা শক্তি, চোখ ভাল থাকে; ত্বক, চুল সুন্দর হয়। আর যারা নিয়মিত কম চিনি দিয়ে তৈরী লেবুর শরবত খায় তাদের জীবনে ক্যান্সার হয় না। ১টি আম ও ১টি লেবুর মূল্য একসাথে ৬০টাকা। লেবুর মূল্যের চেয়ে আমের মূল্য ৫০টাকা বেশি হলে লেবুর মূল্য কত? (ভাল করে বুঝে উত্তর দিতে হবে, ৯৯% লোক ভুল করে)।
(A) ১০ টাকা
(B) ৫ টাকা
(C) ৩০ টাকা
***
**********
সঠিক উত্তর প্রদানকারীর মধ্যে থেকে একজনকে লটারীর মাধ্যমে বিজয়ী নির্ধারণ করা হবে।
-
[ পুরস্কার জেতার জন্য জন্য কুইজ মেনু থেকে উত্তর প্রদান করুন... ]

আমরা এমন এক কম্পিউটার প্রযুক্তির চূড়ায় পৌঁছে গেছি, যা যুক্তি অমান্য করে, কল্পনাকেও হার মানায়। এখনকার কম্পিউটারের ব্যবহৃত ট্রানজিস্টরগুলো এতটাই ক্ষুদ্র যে তা হাতের নাগালে থাকা প্রযুক্তি দিয়েই বানানো যায়। তাই কম্পিউটার উদ্ভাবকেরা পারমাণবিক ও অতিপারমাণবিক স্তরে সম্ভাব্য সমাধান খোঁজা শুরু করেছেন, যা কোয়ান্টাম কম্পিউটিং হিসেবে পরিচিত।

প্রযুক্তি দুনিয়ার বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলো টেকসই কোয়ান্টাম কম্পিউটার তৈরির জন্য তীব্র প্রতিযোগিতা শুরু করেছে এবং বাণিজ্যিকভাবে তা বাজারে আনার চেষ্টা চালাচ্ছে। কোয়ান্টাম কম্পিউটার এমন কম্পিউটিং শক্তি দিতে সক্ষম হবে, যা প্রচলিত ক্ল্যাসিক্যাল কম্পিউটারের পক্ষে সম্ভব নয়। এটা যেকোনো সমস্যা দ্রুত সমাধান করে ফেলবে। জেনে নিন কোয়ান্টাম কম্পিউটারের ব্যবহার সম্পর্কে:

যুক্তির বাইরে নতুন কম্পিউটিং
কোয়ান্টাম কম্পিউটিংয়ের কাজ সম্পর্কে বুঝতে হলে আগে কোয়ান্টাম কম্পিউটার কী তা জানতে হবে। ২০ শতকের শুরুর দিকে যখন পরমাণু নিয়ে প্রথম গবেষণা চালানো হয়, তখন থেকে কোয়ান্টাম পদার্থবিজ্ঞান লজিক বা যুক্তি অস্বীকার করেছে। কোয়ান্টামের জগতে পরমাণু প্রচলিত পদার্থবিদ্যার সূত্র মানে না। কোয়ান্টাম কণা একই সময়ে সামনে বা পেছনে যেতে পারে, একই সময়ে দুই জায়গায় অবস্থান করতে পারে। অর্থাৎ একটি কোয়ান্টাম কণা বা পারমাণবিক মাত্রার একটি কণা একই সঙ্গে তার সব রকম অবস্থায় থাকতে পারে। এই অদ্ভুতুড়ে আচরণের কারণে কোয়ান্টাম কম্পিউটারে সুবিধা নেওয়ার কথা ভাবেন গবেষকেরা।


হিসাবের সময় কমবে
এখনকার কম্পিউটার চলে বিটের হিসাবে। কিন্তু কোয়ান্টাম কম্পিউটার চলবে কিউবিটের হিসাবে। বর্তমান কম্পিউটার মূলত বিটের মধ্যেই তথ্য সংরক্ষণ করে। এই বিট হচ্ছে বাইনারি ‘০’ অথবা ‘১’-প্রতিনিধিত্বকারী, যা বৈদ্যুতিক বা আলোক সংকেতের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে। এই বিটস পদ্ধতিতে আট বিট মিলে তৈরি হয় বাইট, যা সাধারণত একটি সংকেতকে সংরক্ষণে সক্ষম। তাহলে কিউবিট কী জিনিস?
এটিও ০-১ বাইনারিকেই ব্যবহার করে তথ্য সংরক্ষণের জন্য। কিন্তু আলাদাভাবে নয়। একই সঙ্গে। অনেকটা কোয়ান্টাম তত্ত্বে বর্ণিত পদার্থের কণা ও তরঙ্গ ধর্মের মতো। কারণ, কোয়ান্টাম দুনিয়ায় একই কণা একই সঙ্গে একাধিক জায়গায় থাকতে পারে এবং তরঙ্গ ও কণাধর্মী অচরণের মধ্যে তার বিচরণও সাবলীল। এটি কোয়ান্টাম কম্পিউটারের মূল শক্তি, যা ০-১–এর সহাবস্থানের মাধ্যমে একসঙ্গে বহু তথ্য সংরক্ষণে একে সক্ষম করে তোলে। এটি এর শক্তিকে দ্বিগুণ নয়, বহুগুণ করবে। কারণ, এই শক্তি জ্যামিতিক হারে বাড়ে। যেমন দুই কিউবিটে যদি চারটি সংখ্যা সংরক্ষণ করা যায়, তবে তিন কিউবিটে যাবে আটটি, আর চার কিউবিট পারবে ১৬টি সংখ্যা সংরক্ষণ করতে। এটি একই সঙ্গে একাধিক হিসাব করার সক্ষমতাও দেয়। এতে হিসাবের সময় কমে। প্রতিদিন আমরা প্রচুর তথ্য উৎপাদন করি। এসব তথ্য প্রসেস করে তা থেকে অর্থপূর্ণ ইনসাইট বের করতে অনেক কম্পিউটিং শক্তির প্রয়োজন। এতে কোয়ান্টাম কম্পিউটার সেই সময় বাঁচাবে।

অবাস্তবকে বাস্তব করবে
ধরুন, কোনো একটি সমস্যা শেষ করতে বিলিয়ন বছর লাগত। অর্থাৎ প্রায় অসম্ভব গাণিতিক সমস্যার সমাধান এক তুড়িতেই করে ফেলতে পারবে কোয়ান্টাম কম্পিউটার। একসময় যা অসম্ভব বলে ধরে নেওয়া হতো, তা অসম্ভব থাকবে না। প্রচলিত কম্পিউটারকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাবে কোয়ান্টাম কম্পিউটার।

ডেটা নিরাপত্তা
অনেকেই তথ্যের নিরাপত্তায় এনক্রিপশনকে যথেষ্ট মনে করেন। কিন্তু ভার্চ্যুয়াল যে এনক্রিপশন ভাঙা সম্ভব নয় তা তৈরি করা যাবে। এতে ডেটা নিরাপত্তার পরিস্থিতি বদলে যাবে। এখনকার বেশির ভাগ এনক্রিপশন পদ্ধতি ভেঙে দিতে পারবে কোয়ান্টাম কম্পিউটার। এর বদলে হ্যাক ঠেকানোর মতো বিকল্প ব্যবস্থা পাওয়া যাবে।

সব কাজের কাজি
কোয়ান্টাম কম্পিউটারকে বলা যেতে পারে সব কাজের কাজি। প্রচলিত কম্পিউটারে হয়তো মেইল, স্প্রেডশিট বা ডেস্কটপ পাবলিশিংয়ের মতো কাজগুলো ভালোভাবে করা যায়। তবে কোয়ান্টাম কম্পিউটার তৈরির লক্ষ্যটাই ভিন্ন। এটা মূলত বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের বিভিন্ন টুল হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। এটা প্রচলিত কম্পিউটারের জায়গা নেবে না। যেমন কোনো বিমানবন্দরের ফ্লাইট শিডিউল সবচেয়ে নিখুঁতভাবে নির্ণয় করার কাজ করা যাবে কোয়ান্টাম কম্পিউটারে।

গতির রাজা
গুগল সম্প্রতি কোয়ান্টাম কম্পিউটারে সুপ্রিমেসি অর্জনের ঘোষণা দিয়েছে। বিখ্যাত বিজ্ঞান সাময়িকী নেচারে প্রকাশিত এ সম্পর্কিত প্রতিবেদনে বলা হয়, গুগলের এআই কোয়ান্টাম টিম কোয়ান্টাম কম্পিউটিংয়ের ক্ষেত্রে আরেক ধাপ এগিয়ে গেছে। গুগলের সিকামোর প্রসেসর সাড়ে তিন মিনিট সময়ে এমন এক হিসাব সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়েছে, যা প্রচলিত সবচেয়ে শক্তিশালী কম্পিউটারের করতে ১০ হাজার বছর সময় লাগত। আর্মহার্স্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ক্যাথরিন ম্যাকগিওচের মতে, প্রচলিত কম্পিউটারের চেয়ে হাজার হাজার গুণ গতিসম্পন্ন কোয়ান্টাম কম্পিউটার।

বিগ ডেটার সমাধান
প্রতিদিন আমরা ২ দশমিক ৫ হেক্সাবাইট তথ্য উৎপন্ন করছি, যা ৫০ লাখ ল্যাপটপে থাকা কনটেন্টের সমান। বিশাল এ তথ্য ভান্ডার বিশ্লেষণ করবে কোন কম্পিউটার? কোয়ান্টাম কম্পিউটারের পক্ষেই এ পরিমাণ তথ্য প্রসেস করে বিগ ডেটা যুগের চাহিদা মেটানো সম্ভব। ভবিষ্যতে মেশিন বা যন্ত্রের যুগ আসছে। প্রতিটি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র যন্ত্র থেকেও তৈরি হবে ডেটা। এসব তথ্যের নিখুঁত বিশ্লেষণ করা সম্ভব হবে কোয়ান্টাম কম্পিউটার দিয়েই।

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী
কোয়ান্টাম কম্পিউটারে অধিক বিদ্যুতের প্রয়োজন হবে না। এটি ১০০ থেকে এক হাজার গুণ কম বিদ্যুৎ ব্যবহার করবে, কারণ কোয়ান্টাম টানেলিং নামের এক পদ্ধতি এতে ব্যবহৃত হয়, যাতে বিদ্যুতের খরচ কমে। এ ছাড়া এ কম্পিউটার নাজুক। যেকোনো ধরনের কম্পন পরমাণুর ওপর প্রভাব ফেলে অসংগতি তৈরি করতে পারে।

উন্নত সফটওয়্যার ও মেশিন লার্নিং
কোয়ান্টাম কম্পিউটারের জন্য ইতিমধ্যে কয়েক ধরনের অ্যালগরিদম তৈরি হয়ে গেছে। এর মধ্যে আনস্ট্রাকচারড ডেটাবেইস খুঁজতে গ্রোভারস অ্যালগরিদম ও বৃহৎ সংখ্যাকে উৎপাদন কাজে লাগাতে সর অ্যালগরিদ উল্লেখযোগ্য। টেকসই কোয়ান্টাম কম্পিউটার তৈরি হয়ে গেলে মেশিন লার্নিং সমস্যা সমাধানের জন্য সময় কমাতে সাহায্য করবে।

আমি একদম স্তব্ধ হয়ে গেলাম...
****
কাল আমি উচ্চপদস্ত কর্পোরেট অফিসার কে প্রশ্ন করেছিলাম। (যিনি বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিজনেস পরিচালনা করেন)।
*****
আমিঃ আপনারা অভিজ্ঞলোক ছাড়া নিয়োগ নেন না কেন?
ওনিঃ আমরা শুধুমাত্র বাংলাদেশে অভিজ্ঞ লোক ছাড়া নিয়োগ নেই না। কিন্তু অন্যদেশে ফ্রেসারদের (নতুন) নিয়োগ নেই।
-
আমিঃ বাংলাদেশের জন্য ভিন্ন নিয়ম কেন?
ওনিঃ আপনি রাগ না কররে বলতে পারি।
-
আমিঃ ওকে নো প্রবলেম বলুন।
ওনিঃ বাঙ্গালি জাতটা এরা ‘মাথামোটা’। এদের বলি একটা, বোঝে অন্যটা, করে আরেকটা। আপনি নিজের কাজ করবেন, না তাদের ঠেলবেন। এরা একটা কাজ করতে গেলে এতটা এলোমেলো করে যে,
পরে সেই কাজটি করতে আপনার দ্বিগুণ সময় লাগবে। আর সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো যারা ছোট বেলা থেকেই এই অভ্যাসে পরিনত, তারা কখনোই পরিবর্তন হয় না।
-
এদের কোন কাজ দেখিয়ে দিতে গেলে, ততটুকু দেখাবেন ততটুকু শিখে বসে থাকবে। সারাদিন ইউটিউব দেখবে, ফেইসবুকে থাকবে কিন্তু না পারা কাজটি শিখতে বা নিজেকে ডেভেরপ করতে চেষ্টা করবে না।
-
যারা পারার অল্পতেই বুঝে যায়, আর যারা না পারার তারা সারা জীবন এমনই থাকে। যারা অল্পতে বুঝে না তারা আবার শারীরিক পরিশ্রম করতে ভালবাসে, মানে, এরা যেই কাজগুলোতে মাথা লাগে না শক্তি লাগে যেগুলো করতে ভালবাসে। এজন্য আপনারা (বাঙ্গালী জাতী) লেবার হিসাবে বেশ পারফেক।
-
আমিঃ আচ্ছা চা এর অর্ডার দেই, চা না কপি খবেন।
ওনিঃ ওকে থ্যাংকস্ এখন কিছু খাবা না, এখন উত্তরা দেখে হবে। যাই হোক যাওয়ার আগে আর একটা কথা বলে যাই, আপনারা (বাঙ্গালী জাতীকে বুঝাইতেছে) খাওয়ার সময় স্বাদ খোজ করেন, পুষ্টি খোজ করেন না। ডাক্তারের কাছে গিয়ে তেতো ঔধষ থাবেন, পুষ্টিকর খাবারে স্বাদ কম হলে খাবেন না।
-
এভাবে আরো কত কিছু ওনি বললো... আমি একদম স্তব্ধ হয়ে গেলাম।
-ইয়ামিন হুসাইন।

বাংলাদেশে মানুষ হত্যা ও সন্ত্রাশীদের বিচার শুরু হয়েছে।
ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রী..
হুকুম দাতা ও পালনকারীর সমান শাস্তি! কোন ক্ষমা নাই

মিলিমিশি কুজই-253
****
আমাজন জঙ্গলের আয়াতন প্রায় বাংলাদেশের ৪৭গুন (৭০ লক্ষ বর্গকিলোমিটার)। ৯ টি দেশ জুড়ে এই অরণ্য বিস্তৃত। ধারনা করা হয় পৃথিবীর প্রায় ৭-১০ শতাংশ অক্সিজেন এই বন থেকেই উৎপন্ন হয়। সম্প্রতি এই বনে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ফলে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে, এমনকি পৃথিবীতে অক্সিজের স্বল্পতা দেখা দিতে পারে, ইতোমধ্যেই পৃথিবীর উষ্ণতা পরিমাণের চেয়ে বেশি বাড়তে শুরু করেছে। বিজ্ঞানীদের অভিমত এই গ্রহে টিকে থাকতে হলে, গাছ লাগানোর কোন বিকল্প নেই। ৯টি দেশের মধ্যে উক্ত জঙ্গলের বেশি ভাগ কোন দেশের অংশে পড়েছে?
(A) ব্রাজিলের অংশে
(B) আর্জেন্টিনার অংশে
(C) কানাডার অংশে
*********
*********
[ বিজযী হওয়ার জন্য কুইজ অপশন থেকে কুইজের উত্তর প্রদান করতে হবে...]
----------
মিলিমিশি’তে বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানান, কেননা মিলিমিশি’ই হবে সুস্থ্য ধারার সুন্দর একটি সোসাল নেটওয়ার্ক। এখানে আপনার পরিবার থাকবে অশালীন ও অপসংস্কৃতি মুক্ত।
***
রেফারেল লিংকের মাধমে জয়েন করানোর জন্য এই লিংকের নির্দেশনা দেখুন https://milimishi.com/rf.php

জীবন কিভাবে গড়বো

রাশিয়া, চীন, কুয়েত, সিঙ্গাপুর, আমেরিকা, মালোশিয়া এরা ক্রিকেট খেলে না কেন?

মিলিমিশি কুজই-252
****
অধিকাংশ রোগ-জীবানু আমাদের হাতের মাধ্যেমে শরীরে প্রশেব করে, এভাবে ধীরে ধীরে রোগ-জীবানু শরীরে জমা হতে থাকে, এক পর্যায়ে লিভার ক্যান্সার, যক্ষ্ম সহ ভয়াবহ রোগ শরীরে বাসা বাঁধে। খাওয়ার পূর্বে শুধু পানি দিয়ে হাত ধৌত করলেও তৈলাক্ত ময়লাগুলো থেকেই যায়, তাই সাবান ব্যবহার করা ভাল। টাকা, রিমোট কন্টোল, গাড়ির হাতল, ফ্রিজের হাতল, মাউস, মোবাইল ফোন ইত্যাদিতে লেগে থাকা জীবানু হাতের মাধ্যমে খাবারের সাথে শরীরে প্রবেশ করে। অ্যাপলের (আইফোন) প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবস কি রোগে মৃত্য বরণ করেন?
(A) লিভার ক্যান্সার
(B) অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সার
(C) ব্রেন স্ট্রোক
*********
[ বিজযী হওয়ার জন্য কুইজ অপশন থেকে কুইজের উত্তর প্রদান করতে হবে...]
----------
মিলিমিশি’তে বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানান, কেননা মিলিমিশি’ই হবে সুস্থ্য ধারার সুন্দর একটি সোসাল নেটওয়ার্ক। এখানে আপনার পরিবার থাকবে অশালীন ও অপসংস্কৃতি মুক্ত।
***
রেফারেল লিংকের মাধমে জয়েন করানোর জন্য এই লিংকের নির্দেশনা দেখুন https://milimishi.com/rf.php

Trust Bank (ট্রাস্ট ব্যাংক) এ নিয়োগঃ
Post Name: Graduation & Post Graduation from any recognised university (UGC approved)
Number of Post : অজ্ঞাত
শিক্ষাগত যোগ্যতা: অনার্স, মাস্টার্স
Date Line: ২৬ অক্টোবর ২০১৯
** বিস্তারিত Job মেনুতি গিয়ে [Job No-104] দেখুন।

IFIC Bank (IFIC ব্যাংক) এ নিয়োগঃ
Post Name: Management Trainee
Number of Post : অজ্ঞাত
শিক্ষাগত যোগ্যতা: অনার্স, মাস্টার্স
Date Line: 03/11/2019 পর্যন্ত
** বিস্তারিত Job মেনুতি গিয়ে [Job No-102] দেখুন।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্পোরেশন (BRTC)তে নিয়োগঃ
Post Name: বাস/ট্রাক চালক
Number of Post : 90
শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি
Date Line: 07/11/2019 পর্যন্ত
** বিস্তারিত Job মেনুতি গিয়ে [Job No-102] দেখুন।

মিলিমিশি কুজই-251
***
শিক্ষার পাশাপাশি শুদ্ধ ও সুন্দর করে কথা বলতে ও লিখতে পারা মানবিক গুনাবলীর অন্যতম। সফল মানুষদের মানবিক গুণাবলির মধ্যে রয়েছে: পরিশ্রমী, সৎ ও ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন হওয়া, অধ্যবসায়ী হওয়া, পরিপাঠি ও গোছালো থাকা। সফল মানুষদের অন্যতম একটা গুণাবলি হলো তারা রাতে দ্রুত ঘুমাতে যান ও সকালে দ্রুত উঠেন। নিচের কোন বাক্যটি শুদ্ধ বানানে লেখা রয়েছে?
(A) আজ যা করা সম্ভব, তা আগামী কালের জন্য ফেলে রাখা যাবে না
(B) শিক্ষা গ্রহণের পাশাপাশি স্বাস্তের যত্ন নিতে হবে
(C) লবন, চর্বি, চিনি কম খাওয়া উচিৎ
***
[ বিজযী হওয়ার জন্য কুইজ অপশন থেকে কুইজের উত্তর প্রদান করতে হবে...]
----------
মিলিমিশি’তে বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানান, কেননা মিলিমিশি’ই হবে সুস্থ্য ধারার সুন্দর একটি সোসাল নেটওয়ার্ক। এখানে আপনার পরিবার থাকবে অশালীন ও অপসংস্কৃতি মুক্ত।

মানুষের পেট ফেঁড়ে (নিদিষ্ট সময়ের পূর্বে) বাচ্চা বের করার পদ্ধতিকে ‘সিজার’ বলে।
---
আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’ তথ্য অনুযায়ী একটি দেশের সর্বোচ্চ 15শতাংশ সিজারের প্রয়োজন হতে পারে। কিন্তু বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় ৮৩ সিজার করা হয়। যার অধিকাংশই অপ্রয়োজনীয়।
-----
আমরা সকলেই সতর্ক/সাবধান থাকলে অপ্রয়োজনীয় সিজার থেকে মুক্তি পেতে পারি।
-----
=> সিজানে জন্ম গ্রহণ করা শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক কম থাকে।
=> যে শিশু সিজারের মাধ্যমে হয়, সে জন্মের পর শাল দুধ পায় না। এমনকি কয়েকদিন থেকে সপ্তাহ পর্যন্ত ভালভাবে দুধ পায় না
=> সিজার করে একজন মাকে পঙ্গু করে দেওয়া হয়।
এছাড়া আরো অনেক প্রবলেম থাকলেও আমাদের দেশের ডাক্তারগণ শিশুর পিতা-মাতাকে ভয় দেখিয়ে টাকার লোভে সিজার করিয়ে থাকেন,
-
ভয় গুলো নিন্মরূপঃ
=> বাচ্চার পরিশন ঠিক নাই।
=> বাচ্ছা শ্বাস-প্রশাস ঠিক নাই, এখনই সিজার না করলে মা-বাচ্চার ক্ষতি হতে পারে।
=> বাচ্চা পেটের মধ্যে পায়খানা করে দিয়েছে।
=> বাচ্ছা আকারে বেশি বড় হয়ে গিয়েছে।
-
মনে রাখবেন সৃষ্টিকর্ত/প্রকৃতিক উপায়ে পেটের মধ্যে একটি বাচ্ছার শুরু থেকে জন্মের 2-3দিন পূর্ব পর্যন্ত সব কিছু ঠিক রাখতে পারলে, 0 থেকে একটি মানুষের আকার দিতে পারলে আর মাত্র 2-3 দিন পর স্বাভাবিকভাবেই প্রসবও দিতে পারেন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে নিয়োগঃ
Post Name: জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার
Number of Post : অজ্ঞাত
শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিএ/বিএসসি/বিকম, স্নাতক/সমমান পরীক্ষায় নূন্যতম সিজিপিএ ২.০০ এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ৩.০০ ।
Date Line: 10/11/2019 পর্যন্ত
** বিস্তারিত Job মেনুতি গিয়ে [Job No-101] দেখুন।

মানবতা মানুষদের জন্য, সন্ত্রাশীদের জন্য নয়।
***
আজও পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ২ রোহিঙ্গা নিহত। দিন দিনে রোহিঙ্গাদের অপরাধ বেড়েই চলেছে।
প্রধানমন্ত্রীকে আহবান রোহিঙ্গা যদি মিয়ানমান ফেরতন না নেয় বা রোহিঙ্গারা ফেরত যেতে না চায় তাহলে জাতিসংঘকে বলুন ”আমরা রোহিঙ্গা রাখতে পারবো না, এর দায়িত্ব বিশ্বকে দিন”।
***
আমাদের নিজেদের সমস্যারই অন্ত নেই, সেখানে এত সন্ত্রাশীদের জন্য মেহমানদারির প্রয়োজন নেই।

অলশ ব্যক্তিরা শক্তিশালি হলেও, জয়ী হয় না। A quick brown fox jumps over the lazy dog. এই বাক্যটিতে ইংরেজী 26টি অক্ষর সব রয়েছে। বাক্যটির অর্থ একটি বাদামি রং এর খেকশিয়াল একটি অলশ কুকুরের উপর লাফিয়ে পড়লো। সাধারণ নিয়মে কুকুর শিয়ালের উপর লাফিয়ে পড়ার কথা, কিন্তু, কুকুরটি অলশ হওয়ার কারণে শিয়াল কুকুরের উপর ঝাড়িয়ে পড়লো।

এক গ্লাস কোল্ড ড্রিংস (কোমল পানি) তে ১২ চামচ চিনি! যা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর।

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সের প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকেল চারটায় ফলাফল প্রকাশিত হয়।
---
ফলাফল দেখার লিংকঃ http://result.dghs.gov.bd/

রাজধানী ঢাকা শহরে আরও দুটি মেট্রোরেল হচ্ছে। এতে খরচ ধরা হয়েছে প্রায় ৯৪ হাজার কোটি টাকা। আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এই দুটি প্রকল্প পাস হয়।

নতুন দুই মেট্রোরেলের মধ্যে একটি হবে বিমানবন্দর থেকে নতুন বাজার, বাড্ডা হয়ে কমলাপুর রেলস্টেশন পর্যন্ত। এর দৈর্ঘ্য হবে ৩১ কিলোমিটার। এটি ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট বা লাইন-১ নামে পরিচিত হবে।


আরেকটি মেট্রোরেল হবে সাভারের হেমায়েতপুর থেকে আমিনবাজার, গাবতলী, মিরপুর-১, কচুক্ষেত, বনানী, গুলশান-২, নতুনবাজার হয়ে ভাটারা পর্যন্ত। এর দৈর্ঘ্য ২০ কিলোমিটার। এই রুটটি এমআরটি লাইন-৫ নামে পরিচিত হবে।

প্রথম প্রকল্পে খরচ হবে ৫২ হাজার ৫৬১ কোটি টাকা। প্রথম প্রকল্পটি শেষ হবে ২০২৬ সালের জুন মাসে। দ্বিতীয় প্রকল্পে খরচ ৪১ হাজার ২৩৮ কোটি টাকা। শেষ হবে ২০২৮ সালের ডিসেম্বর মাসে। দুটি প্রকল্পেই জাপানের সাহায্য সংস্থা জাইকা অর্থায়ন করবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে একনেক সভা অনুষ্ঠিত হয়। একনেক সভা শেষে প্রকল্পগুলো সম্পর্কে সাংবাদিকদের জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

নতুন মেট্রোরেল প্রকল্প সম্পর্কে এম এ মান্নান বলেন, প্রকল্পগুলোকে সড়কের সবচেয়ে বেশি ব্যয়ের প্রকল্প বলা যায়। তবে নির্মাণ শেষ হলে ঢাকা হবে বিশ্বমানের শহর। তবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার বিষয়ে মন্ত্রী জানান, মেট্রোরেলের জন্য হাতিরঝিল যেন নষ্ট না হয়। এ ছাড়া মেট্রোরেলের কারণে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা হলেও কোনো ব্যাঘাত ঘটানো যাবে না।

আজকের একনেকে সব মিলিয়ে ১ লাখ ২৫ কোটি টাকার ১০টি প্রকল্প পাস হয়। একনেকে অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলো হলো ১ হাজার ৪৮৫ কোটি টাকার ফেনী-নোয়াখালী জাতীয় মহাসড়কের বেগমগঞ্জ থেকে সোনাপুর পর্যন্ত চার লেনে উন্নীত করা; ৪২১ কোটি টাকার ডোমার-চিলাহাটি-ডাউলাগঞ্জ, ডোমার-জলডাকা এবং জলঢাকা-ভাদুরদরগাহ-ডিমলা জেলা মহাসড়কের মান উন্নীত করা; ৭৩১ কোটি টাকার কিশোরগঞ্জ-করিমগঞ্জ-চামড়াঘাট জেলা মহাসড়ক যথাযথ মানে উন্নীত করাসহ ছয়না-যশোদল-দৌদ্দশত বাজার সংযোগ সড়ক নির্মাণ; ১ হাজার ৭১৯ কোটি টাকার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন অবকাঠামো উন্নয়ন; ১ হাজার ৮৮ কোটি টাকার ঢাকার মিরপুরের পাইকপাড়ায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বহুতল আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ; ১২৯ কোটি টাকার ঢাকার আজিমপুরে বিচারকদের জন্য বহুতল আবাসিক ভবন নির্মাণ; ৫৮০ কোটি টাকার ইরিগেশন ম্যানেজমেন্ট ইম্প্রুভমেন্ট প্রজেক্ট এবং ৭০ কোটি টাকার জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব নিরসনে সিলেট বন বিভাগে পুনঃ বনায়ন ও অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প।

মিলিমিশি কুইজ (15/10/2019ইং):
*****
বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ নোবেল পুরস্কার বিজয়ীরা পান নগদ অর্থ, একটি স্বর্ণের পদক ও একটি সনদ। নগদ অর্থের পরিমান আনুমানিক ৯ কোটি ৪ লাখ টাকা (১১ লাখ ২০ হাজার ডলার)। যিনি ২০১৯ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ করেছেন, তাকে লিথিয়াম আয়ন (মোবাইল ও ল্যাপটপের ব্যাটারি) ব্যাটারির জনক হিসেবে অভিহিত করা হয়, তিনি কে?
(A) আবি আহমেদ
(B) আকিরা ইয়োশিনো
(C) মাইকেল ক্রেমার
[ বিজয়ী হওয়ার জন্য কুইজ অপশন থেকে কুইজের উত্তর দিতে হবে ]
******
******
‘মিলিমিশি’তে রেফার করে স্মার্ট ফোন উপহার নিন।
*********
যারা ইতোপূর্বে ‘মিলিমিশি’তে জয়েন করেছেন, তারা অন্য ফ্রেন্ডদের আমন্ত্রণ জানান, কেননা যে ৭ জন বিজয়ী হবেন, তাদেরকে যদি কেউ রেফার করে থাকে তাহলে যিনি রেফার করেছেন, তিনি উপহার হিসেবে পাবেন আকর্ষণীয় স্মাট ফোন।
****
রেফারেল লিংকের মাধমে জয়েন করানোর জন্য এই লিংকের নির্দেশনা দেখুন https://milimishi.com/rf.php
---
[প্রথম 1000 জন জয়েন কারীদের মধ্যে থেকে লটারির মাধ্যমে 1টি স্মার্টফোন, এবং 10 হাজারের মধ্যে থেকে একটি ল্যাপটপ ও ৩টি মোবাইল সহ মোট 7জনকে পুরুষ্কার প্রদান করা হবে] (এটা সকলের জন্য উন্মুক্ত, সরাসরি/পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পুরুষ্কার পাঠিয়ে দেওয়া হবে]

যারা পেন ড্রাইভ থেকে উইন্ডোজ দিয়ে চান তাদের জন্য উইন্ডোজ-7 iso ফাইল ডাউনলোড করার লিংক। https://softlay.net/operating-system/windows-7-ultimate-iso-download.html (পেন ড্রাইন কিন্তু রিবুটেবল করে নিতে হবে, যারা নতুন তারা ইউটিউব ভিডিও দেখে নিন)

আমার দৃষ্টিকোন থেকে সম্রাট বড় ধরনের কোন অপরাধী নয় !!!
হ্যা, সবাই চমকে উঠলেও এটাই সত্য, কেননা সে একটি খেলার (ক্যাসিনো) আয়োজন করেছে, আর সবাই বুঝে শুনেই এই খেলা খেলতে গিয়েছে... যার ভাগ্য ভাল ছিলো সে জিতেছি, তার ভাগ্য খারাপ সে হেরেছে...
****
আমরার দৃষ্টিকোন থেকে অপরাধী তারা, যারা সরকারী ছত্রছায়ায় থেকে
# রাজনীতেকে ব্যাবহার করে জোর করে মানুষের সম্পদ হরণ করছে, সন্ত্রাশী করছে...
# যারা পর্দার আড়ালে থেকে মানুষ খুন করছে,
# জনগনের সাথে প্রতারণা করছে।
# নিয়োগ বাণিজ্য করে দেশের মেধাবীদের ঠকাচ্ছে।
# যারা সরকারী অফিস/সেবা কেন্দ্রগুলোকে হয়রানী কেন্দ্র তৈরী করে লক্ষ লক্ষ টাকা ঘুষ বানিজ্য করে জনগণকে বিষিয়ে তুলেছে।
***
সরকার ও প্রশাসনকে আহবান প্রকৃত অপরাধীদের ধরুন.. যাদের ধরলে জনগণ উপকৃত হবে, দেশ মুক্তি পাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকে নিয়োগঃ (আবেদন করতে কোন টাকা লাগবে না)
Post Name: CCTV Operator
Number of Post : 26
বেতনঃ BDT 9,300/-22,490/-
শিক্ষাগত যোগ্যতা: Minimum Graduation (অনার্স), অথবা Equivalent Degree with Diploma(at least 06 months) in Computer Science/Short Courses in Hardware and Software.
Date Line: 31/10/2019
** বিস্তারিত Job মেনু থেকে [Job No-99] দেখুন।

এবার বিপিএলে বেশ কিছু নতুনত্ব দেখা যাবে। কিছু বিষয় বাধ্যতামূলক করে দিচ্ছে বিসিবি। আয়োজকেরা বলছেন, প্রায় ৪০০ বিদেশি ক্রিকেটার বিপিএল খেলতে আগ্রহী।

বিসিবির সঙ্গে চুক্তি নবায়নের আগেই ঢাকা ডায়নামাইটস ভিড়িয়েছিল এউইন মরগানকে। শেন ওয়াটনসনকে খুলনা টাইটানস। রাজশাহী কিংস নিয়েছিল জেপি ডুমিনিকে। এবার বিপিএল যেহেতু ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক হবে না, এই তারকা ক্রিকেটারদের উল্লিখিত দলগুলোয় তাই খেলার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।


মরগান-ওয়াটসনরা নতুন নিয়মে হওয়া বিপিএলে শেষমেশ আসবেন কিনা, এখনই বলার উপায় নেই। তবে আয়োজকেরা বলছেন, প্রায় ৪০০ বিদেশি ক্রিকেটার বিপিএল খেলতে আগ্রহী। বিসিবির পরিচালক ও বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য মাহবুব আনাম আজ বিকেলে সাংবাদিকদের বললেন, ‘ড্রাফটের আগেই আমরা বিদেশি খেলোয়াড়দের অন্তর্ভুক্ত করছি। এর মধ্যে চার শর কাছাকাছি খেলোয়াড় নিবন্ধন করেছে। এর বাইরেও যদি বিদেশি খেলোয়াড় নিতে হয় দলের পৃষ্ঠপোষকেরা নিজ খরচে দলে অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে।’

তা-ই নয়, বিদেশি যে পেসাররা খেলবেন তাদের ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটার গতিতে বোলিং করাও বাধ্যতামূলক করতে চায় বিসিবি। মাহবুব আনাম বললেন, ‘ যে বিদেশি ফাস্ট বোলাররা অন্তত ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটার গতিতে বোলিং করতে পারে তাদের যেন দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। যেহেতু আমরা বিসিবির টাকা ক্রিকেটের উন্নয়নে ব্যয় করতে চাই, এ কারণে এসব বাধ্যবাধকতা থাকবে।’

মাহবুব দাবি করলেন, শুধু বিদেশি খেলোয়াড়ই নন; বিপিএলে কাজ করতে চান অনেক নামীদামি বিদেশি কোচও, ‘আমরা প্রতিটা দলে আন্তর্জাতিক কোচ দেব। যে যে কোচ বিপিএলে অন্তর্ভুক্ত হতে আগ্রহী, তারা নাম পাঠিয়েছে। আমরা একই সঙ্গে বিদেশি ফিজিও, ট্রেনার এবং খেলোয়াড় অন্তর্ভুক্ত করতে যাচ্ছি।’

প্রধান কোচদের সবাই যদি বিদেশি হন, স্থানীয় কোচরা তাহলে কী করবেন? বিপিএলের গত চার পর্বের তিনটিই কিন্তু জিতিয়েছেন স্থানীয় কোচেরা। মোহাম্মদ সালাউদ্দীন কুমিল্লাকে দুবার (২০১৫ ও ২০১৮) শিরোপা জিতিয়েছেন। ২০১৬ বিপিএলে ঢাকা জিতেছে খালেদ মাহমুদের তত্ত্বাবধানে। স্থানীয় কোচদের কেউ এবার প্রধান কোচ হবেন কি না জানা না গেলেও বিসিবি একজন করে ‘টিম ডিরেক্টর’ ঠিক করে দেবে। দলের পরিচালক হতে পারেন কোচ, সংগঠক কিংবা সাবেক ক্রিকেটারদের কেউ।

বাংলাদেশ দলে লেগ স্পিনারের হাহাকার দূর করতে এবার প্রতিটি একাদশে একজন রিস্ট স্পিনার খেলতে বাধ্য করা হবে বলে জানালেন মাহবুব, ‘ফ্র্যাঞ্চাইজিরা যখন আসে, তখন তাদের লক্ষ্যই থাকে জয়। এতে আমাদের জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা বেশ কিছু জায়গায় পিছিয়ে পড়েছে। বাংলাদেশ দলের ম্যানেজমেন্ট থেকে পরামর্শ এসেছে যে আমাদের লেগ স্পিনার দরকার। (বিপিএলের) প্রতিটি দলে একজন লেগ স্পিনার খেলাতেই হবে এবং তাকে বাধ্যতামূলকভাবে ৪ ওভার বোলিং করাতে হবে।’

বিপিএলের উইকেট নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায় প্রতিবারই। এবার উইকেট টি-টোয়েন্টি উপযোগী হবে তো? মাহবুব আনাম আশ্বাস দিচ্ছেন, খাঁটি ২০ ওভারের ম্যাচ-বান্ধব উইকেটই হবে এবার।

কে এগিযে????
দুজনেই একসাথে HSC পরীক্ষা দিয়েছিল.. HSC পরীক্ষার পর বোকার বিয়ে হয়ে যায়.. আর বুদ্ধিমতি মেয়েটি ফ্যামিলির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিল প্রতিষ্ঠিত হয়ে বিয়ে করবে বলে.. 7 বছর পর এখন বোকার মেয়ে ১শ্রেণিতে পড়ে, আর বুদ্ধিমতি সেলস্ ম্যানে চাকরি করে ও বোকার মেয়েকে প্রাইভেট পড়ায়.. ভাল চাকরী খুজতেছে প্রতিষ্ঠিত হয়ে বিয়ে করবে বলে....। এখন তার প্রতিষ্ঠিত হতেই হবে, কেননা বাংলার সমাজ বেশি বয়সি মেয়েকে বিয়ে করে না.. প্রতিষ্ঠিত বা টাকা না থাকলে।

সকালের নাস্তায় বেশির ভাগ মানুষই অনায়াসে ঘরের কাছের দোকান থেকে নানরুটি কিংবা পরোটা দিয়ে সকাল-বিকালের নাস্তার পর্ব সেরে ফেলেন। কিন্তু এই রুটি-পরোটা এত নরম কেন? কারণ, এতে ব্যবহার করা হচ্ছে কৃষিকাজে ব্যবহৃত অজৈব সারের এক ধরনের মিশ্রণ।

হোটেল-রেস্তোরাঁয় কর্মীর ভাষায় এর নাম ‘সাল্টু’। এটি পাওয়া যায় মশলার দোকানে। অ্যামোনিয়াম সালফেট এবং ইউরিয়া সার একসঙ্গে মিশিয়ে গুঁড়ো করে এই সাল্টু বানানো হচ্ছে। সরকারি সংস্থা নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে এই রাসায়নিকের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছে।

সাল্টু নামক এই সার রুটি-পরোটা তৈরির আগে আটার খামিতে মিশিয়ে রাখা হয়। তারপর ভাজা হয় রুটি কিংবা পরোটা। এতে পরোটার ওপরের অংশ মচমচে হলেও ভেতরটা হয় নরম। একই উপায়ে বানানো হয় নানরুটি। রাজধানীর বিভিন্ন হোটেল-রেস্তোরাঁতে এই পদ্ধতি অনুসরণ করা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী হয়তো একটা কথা না বুঝেই বলেছিল, বা এর ব্যাখ্যা কি হবে তা তাৎক্ষনিকভাবে তার জানা ছিল না। কথাটা হলো
”ধর্ম যার যার,
উৎসব সবার”
---
তিনি হয়তো কথাটা সম্প্রীতি বুঝানোর জন্য বলেছিলেন। কিন্তু এর আক্ষরিক/পারিভাষিক ব্যাখ্যা করলে এমন হয় যে, মুসলমানরা পুজায় সময়, পুজায় গিয়ে উৎসব করবে, আর হিন্দুরা ঈদের সময়, ঈদ গাহে এসে উৎসব করবে। যা কোন ধর্মই সমার্থন করে না। তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তার দায়িত্ব সকল ধর্মের নিরাপত্তা দেয়া, এবং রাজনৈকিত কারণে সকল ধর্মের উৎসবে যাওয়া.. কিন্তু এটা সবার জন্য প্রয়োজ্য নহে...
অতএব, আমি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার কথাটা একটু এডিট করে বললো
“ধর্ম যার যার,
দেশটা সবার”
************

বিনা খরচে কাজের ভিসা নিয়ে জাপান যেতে পারবেন বাংলাদেশি কর্মীরা। এজন্য তাদেরকে কাজে ও জাপানি ভাষায় দক্ষ হতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতা এখানে কোন বাধাই হবেনা বলে জানিয়েছে রিক্রুটিং এজেন্টদের সংগঠন বায়রা।

স্বাধীনতা পেয়েছি ১৯৭১ এ
এখন ২০১৯;
৪৮ বছর পেরিয়েও
আমরা এখানে কেন?????
আর কত দেরী??? এখনই সময় জেগে উঠ সবাই
দূর্নীতির বিরুদ্ধে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে....
---
প্রধানমন্ত্রী আপনি জীবত থাকতে, ওদের শেকড় সহ উপড়ে ফেলুন...

@ওবায়দুল কাদের
ক্যাসিনো চালু থাকলে সেয়ার মার্কেট কখনোই উঠে দাড়াতে পারবে না। তাই, নীতিমালা তৈরী করে অবৈধ্য ক্যাসিনোকে কখনো যেন বৈধ্য করা না হয়।
-ইয়ামিন হুসাইন।

ক্যাসিনোর সাথে সাথে বঙ্গকন্যাকে আরো কিছু বিষয় নজর দেওয়ার আহবান করছি!
******
1. দেশে পোশাক শিল্পের করুন অবস্থা চলছে,
পোশাক শিল্পের সাথে জড়িত প্রতিষ্ঠান (গার্মেন্টস্/বায়িং হাউজ) গুলোতে নতুন নিয়োগ নেই, চলছে কর্মি ছাটাই।
ভবিষ্যৎ বিপদের আসঙ্গা!!!
---
2. তুলার দাম বেশি, সুতার দাম কম।
কৃষকরা তামাক চাষে ব্যাস্ত, ধান চাষে লাভ কম, তুলা চাষে কোন পদক্ষেপ নেই।
---
টাকা কিন্তু খাওয়া যায় না। দূর্ভিক্ষের সময় শিল্পপতিদের কাছে কোটি কোটি টাকা থাকবে কিন্তু খাবার থাকবে না, টাকা আর সিগারেট খেয়ে বাঁচতে হবে।
---
বাংলাদেশে পরিবর্তি যদি দূর্ভিক্ষ হয়, তাহলে তখন টাকা মূল্য শুন্য হয়ে পড়বে।
**********
[2 নং অপশনটি সবাই বুঝবেন না, এ লাইনগুলি দূরদৃষ্টি সম্পন্নদের জন্য ]

মোবাইল অপারেটররা অস্তিত্ব রক্ষার যুদ্ধে!
---
এক সময়ের জয় জয়াকার মোবাইল অপাটরগুলো এখন অস্তিত রক্ষায় ব্যাস্ত।
ইতোমধ্যে সিটিসেল বন্ধ হয়ে গিয়েছে, অন্যান্য অপারেটররা তাদের খরচ কমিয়ে এনেছে, কর্মি/জনবল হ্রাস করতে শুরু করেছে। মানুষ কখনো মোবাইল সীম ব্যবহার ত্যাগ করতে পারবে না, তবে, সোসাল নেটওয়ার্ক, বিভিন্ন ভিডিও চ্যাটিং এ্যাপ এর কারণে মোবাইল অপারেটর ব্যাবহার করা কমে যাবে।
---
(অন্যদিকে হ্যান্ড সেট বিক্রয়ের ব্যাবসা ক্রমান্বয়ে বেড়েই চলেছে...)
--
এর অন্যতম কারণ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট (ওয়াইফাই) নয়, অন্যতম কারণ হলো যুগের সাথে তাদের ডাটা (ইন্টারনেট) প্যাকেজ গুলো সমন্বয় হীনতা, যদি ডাটা প্যাকেজ গুলো ব্রডব্যান্ড এর সাথে তাল মিলিয়ে আনলিমিটেড ইন্টারনেট সেবা কম দামে প্রদান করতে পারে তাহলে হয়তো তাদের এই অস্থিত্ব রক্ষার যুদ্ধে নামতে হতো না।
*********

গাজীপুরের, ধিরাস্রম গ্রামে #মিনিস্টার_টিভি_ফ্যাক্টরিতে ভয়াবহ আগুন।

আযান শোনার পর কথা বলা বন্ধ করে দেয় সালমান খান

বাইক রাইডার (উবার/পাঠাও) যাত্রীদের যে হেলমেট দেন, তা শুধুই ট্রাফিক আইন থেকে বাচাবে কিন্তু, এক্সিডেন্ট হলে আঘাত থেকে রক্ষা করবে না। সম্পূর্ণ মাথা ঢেকে থাকে এমন হেলমেট ব্যবহার করা বাধ্যতা মূলক করার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন রইল।

17-Feb-2020 তারিখের কুইজ
(অংশগ্রহণ করেছেন: 4156+)
প্রশ্নঃ অপচয় কর না, অভাব হবে না। কাগুজে টাকা বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক "বাংলাদেশ ব্যাংক" কর্তৃক প্রবর্তিত হয়। কিন্তু; ৳১, ৳২ এবং ৳৫ টাকার নোট এবং ধাতব মুদ্রা যেগুলো বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে প্রচলিত হয়। বাংলাদেশে এক হাজার টাকা মূল্যের নোট কোন সাল থেকে চালু হয়?
(A) ২০০৮
(B) ২০০০
(C) ২০১০