গাম্বিয়ার করা মামলায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আদালতের ৪ আদেশ

রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে চারটি আদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক বিচার আদালত (আইসিজে)। এই চার আদেশে বলা হয়েছে-

১! রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা দিতে হবে। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সদস্যদের হত্যা, নিপীড়ন, বাস্তুচ্যুতির মতো পদক্ষেপ গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী বা অন্য রাষ্ট্রীয় অন্য কোনো বাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালাতে পারবে না। এমনকি নির্যাতনের ষড়যন্ত্রও করতে পারবে না।

২! দায়ী সেনাদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।
৩! প্রতি মাসে মিয়ানমার সরকারকে গাম্বিয়ার সঙ্গে বসতে হবে এবং গাম্বিয়ার প্রশ্নের জবাব দিতে হবে।

৪! আগামী ৪ মাসের মধ্যে রোহিঙ্গাদের সুরক্ষায় নেওয়া পদক্ষেপের রিপোর্ট আদালতে জমা দিতে হবে।এরপর প্রতি ছয় মাস পরপর প্রতিবেদন দিতে হবে।গাম্বিয়া এই প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে তার পরিপ্রেক্ষিতে আদালতের কাছে আবেদন করতে পারবে।

এর পর ও আমি বলবো এটা রোহিঙ্গাদের জন্য সঠিক বিচার হয়নি?আইসিজে উচিত ছিলো কঠিন হস্তে বিচার করা। কারণ ভ্যবিষতে কোন দেশ গণহত্যা চলানোর আগে মিয়ানমার কথা স্মরন করতো?
আশা করি চূরান্ত বিচারে জয় মনবতার হবে,মিয়ারমার নামে অর্তচারী দেশটি ধ্বংস হবে,ইনশাআল্লাহ
###Collected

{মাত্র ১ মিনিট সময় নিয়ে পড়বেন, আর আপনাদের উপর ছেড়ে দিলাম আপনারাই সিদ্ধান্ত নেবেন আসলে আমরা কি করছি!

ফুল দিতে যাচ্ছিলাম হটাত্‍ পথ আগলে দাঁড়ালো রফিক, সালাম, বরকত ও জব্বার .....!!!

★রফিকঃ -- কই যাও?

★আমিঃ --জ্বী, শহীদ মিনারে ফুল দিতে যাচ্ছি।

★সালামঃ -- ফুল দিয়ে কি হবে?

★আমিঃ -- না, মানে আপনাদের
স্মরণ করা হল। আপনাদের আত্মা শান্তি পাবে।

★বরকতঃ -- হা... Read More>>

বাংলা সিনেমায় যার নাম স্মরণ করা হবে চিরকাল...... Read More>>

21-Feb-2020 তারিখের কুইজ
(অংশগ্রহণ করেছেন: 3281+)
প্রশ্নঃ ভাষা আন্দোলনে কতজন শহীদ হয়েছিল তার সংখ্যা সঠিকভাবে পাওয়া যায় না, তবে পুলিশের গুলিতে ২৬ জন নিহত এবং ৪০০ জনের মতো আহত হয়েছিলেন এমন কিছু তথ্য পাওয়া যায়। ১৯৫২ সালের পর থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষার জন্য বাঙালিদের সেই আত্মত্যাগকে স্মরণ করে দিনটি উদ্যাপন করা হয়। ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে। জাতিসংঘের ছয়টি অফিসিয়াল ভাষা রয়েছে, নিচের কোনটি জাতিসংষের অফিসিয়াল ভাষা নয়?
(A) ফরাসি
(B) জাপানি
(C) স্পেনীয়