About Md Hasan Ali

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে যা করবেন

সাধারণত মার্চ থেকে মে এবং অক্টোবর থেকে নভেম্বরের মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বজ্রঝড় হয়ে থাকে। বজ্রপাতের সময় পাকাবাড়ির নিচে আশ্রয় নিতে এবং উঁচু গাছপালা বা বিদ্যুতের লাইন থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। এসময় জানালা থেকে দূরে থাকার পাশাপাশি ধাতব বস্তু এড়িয়ে চলা, টিভি-ফ্রিজ না ধরা, গাড়ির ভেতর অবস্থান না করা এবং খালি পায়ে না থাকারও পরামর্শ দিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। আসুন জেনে নেই বজ্রপাতের সময় কী করবেন?

*ঘন ঘন বজ্রপাতের সময় খোলা বা উঁচু জায়গায় না থেকে দালানের নিচে আশ্রয় নিন।
*বজ্রপাত ও ঝড়ের সময় বাড়ির ধাতব কল, সিঁড়ির রেলিং, পাইপ ইত্যাদি সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকুন। ল্যান্ডফোন ব্যবহার থেকেও বিরত থাকুন।
*বজ্রপাতের সময় বৈদ্যুতিক সংযোগযুক্ত সব ধরনের যন্ত্রপাতির প্লাগ খুলে রাখুন।টিভি, ফ্রিজ ইত্যাদি বন্ধ করা থাকলেও স্পর্শ করা ঠিক হবে না।
*বজ্রপাতের সময় গাড়িতে থাকলে দ্রুত বাড়িতে ফেরার চেষ্টা করুন।
*বৃষ্টি হলে রাস্তায় পানি জমতে পারে। অনেক সময় বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে সেই পানিতে পড়ে হতে পারে দুর্ঘটনা।
*বজ্রপাতের সময় চামড়ার ভেজা জুতা বা খালি পায়ে থাকা খুবই বিপজ্জনক।
*ভয় পাবেন না। মাথা ঠাণ্ডা রাখুন।
*বিদ্যুতের খুঁটি, টাওয়ার – এসব থেকে দূরে থাকুন।

অকালে টাক পড়বে না যে ৪ খাবারে

চুল ঝরা শুরু হলেই আমাদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়। অথচ এটি নিতান্তই একটি স্বাভাবিক ব্যাপার। চুল এবং চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ফ্রান্সেস্কো ফুস্কোর মতে, প্রতিদিন যতটা পরিমাণ চুল ঝরে যায়, মোটামুটি সেই পরিমাণ চুলই আবার নতুন করে গজিয়ে যায়। দৈনিক ৫০ থেকে ১০০টি চুল ঝরে যাওয়াটা স্বাভাবিক। কিন্তু রোজ ঠিক কতটা পরিমাণ চুল ঝরছে আর কতটা চুল নতুন করে গজাচ্ছে, তার হিসেব রাখা কি সম্ভব?

বেশ কয়েকটি কারণে অকালে চুল ঝরে যেতে পারে। তার মধ্যে মাত্রাতিরিক্ত মানসিক চাপ, ব্যাকটেরিয়ার কারণে সংক্রমণ বা অ্যালার্জি, রক্তাল্পতা, আবহাওয়া, অপুষ্টি এবং দূষিত পানি অন্যতম। তবে অকালে চুল ঝরে যাওয়ার ক্ষেত্রে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই কারণ হিসেবে সামনে আসে অপুষ্টি।

পুষ্টিবিদদের মতে, কয়েকটি খাবার বা মশলা নিয়মিত খেতে পারলে অপুষ্টিজনিত কারণে চুল ঝরা বন্ধ হয়ে যাবে। নতুন চুলও গজাবে। খাবারগুলো হলো-

* পালং শাকে রয়েছে ভিটামিন বি, সি, ই, আর ভিটামিন এ। এ ছাড়াও এতে রয়েছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড ও আয়রন। এই উপাদানগুলো চুলের গোড়া শক্ত করতে সাহায্য করে।

* আমলকিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। চুলের পরিচর্যায় যুগ যুগ ধরেই আমলকির ব্যবহার হয়ে আসছে। প্রতিদিন একটা করে আমলকি খেতে পারলে অকালে চুল ঝরে যাওয়া থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব।

* নারকেল তেলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে লরিক অ্যাসিড যা চুলে প্রোটিনের জোগান দিয়ে গোড়া মজবুত করতে সাহায্য করে। মাথায় নারকেল তেল মাখার সঙ্গে সঙ্গে নারকেল তেলে রান্না করে খেতে পারলেও অকালে চুল ঝরে যাওয়ার সমস্যায় দুর্দান্ত ফল মিলবে।

* চুলের পরিচর্যায় মেথি অত্যন্ত কার্যকরী একটি উপাদান। মেথিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ও নিকোটিনিক অ্যাসিড যা চুলের গোড়া শক্ত করে অকালে অতিরিক্ত চুল ঝরে যাওয়া রুখতে সাহায্য করে। প্রতিদিন মেথি ভেজানো পানি খেতে পারলে ফল পাবেন হাতেনাতে।

যে তিনটি শর্ত না মানলে রোজা হবে না

রোজার রয়েছে তিনটি ফরজ। যা প্রত্যেকটি রোজা সহীহ শুদ্ধ হওয়ার জন্য অপরিহার্য শর্ত। সে ফরজ তিনটি হলো যথাক্রমে- ১. বিরত থাকা ২. নিয়ত করা ৩. নির্দিষ্ট সময়ে রোজা রাখা। এই তিনটি বিষয়ে শৈথিল্য মানেই নিজের রোজাকে নিরর্থক করে দেওয়া।

বিরত থাকা মানে পানাহার, জৈবিক চাহিদা মেটানো ও অন্যান্য রোজা ভঙ্গকারী বিষয়াদি থেকে নিজেকে বিরত রাখা। আর নিয়ত করার অর্থ হলো আল্লাহর নির্দেশ পালনার্থে রোজা রাখার আন্তরিক সংকল্প পোষণ করা।

নবী করিম (স.) বলেন, যাবতীয় কার্যাবলী নিয়তের দ্বারাই মূল্যায়ন করা হয়। (বুখারী ও মুসলিম)।

যদি ফরজ রোজা হয় তাহলে রাতে ফজরের পূর্বে নিয়ত করতে হবে। এ ব্যাপারে রাসূল (স.) বলেন, যে ব্যক্তি রাত থেকে রোজার নিয়ত না করবে তার রোজা হবে না। (আবু দাউদ, তিরমিজী ও অন্যান্য)।

আর যদি রোজা নফল হয় তাহলে ভোর হওয়ার পর এমনকি সূর্য উপরে উঠার পরও নিয়ত করলে চলবে, যদি সে পর্যন্ত কিছু না খেয়ে থাকে।

উম্মুল মুমেনীন হযরত আয়েশা (রা) বলেন, একবার সকালে রাসূল (স.) এসে বললেন, তোমাদের মাঝে খাওয়ার কিছু আছে? আমরা বললাম ‘না’। তিনি বললেন, তাহলে আমি রোজা রাখলাম।’ (মুসলিম)

অবশ্য ফিকাহবিদরা যে সব ব্যক্তি রমজানে সাহরীর পর নিয়ত করতে ভুলে যান তাদের জন্য সকাল বেলায়ও নিয়ত করার সুযোগ রেখেছেন। আবার কেউ কেউ বলেছেন, শেষ রাতে ওঠা, সাহরী খাওয়াও এক ধরনের রোজার নিয়ত ও সংকল্প।

এবার সময় প্রসঙ্গ। নির্দিষ্ট সময় বলতে রমজান মাসের দিন ভোর হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত। আল্লাহ বলেন, তোমরা পানাহার কর, যতক্ষণ না অন্ধকার থেকে সাদা আলোকচ্ছটা দেখা যায়। অতঃপর রাত্রি পর্যন্ত রোজা পূর্ণ কর।’ (সূরা বাকারা- ১৮৭)। বরকতের জন্য রোজার সূচনা সময়ে রয়েছে সাহরী এবং সমাপণীতে রয়েছে ইফতার গ্রহণের নিয়ম ও আনুষ্ঠানিকতা।

রোজার সঙ্গে সময় ও চাঁদের সম্পর্ক অত্যন্ত নিবিড়। রাসূল (স.) বলেন, তোমরা চাঁদ দেখে রোজা রাখা শুরু কর এবং চাঁদ দেখেই ঈদ-উল-ফিতরের প্রস্তুতি নাও। আর যদি চাঁদ না দেখ, তাহলে ৩০ দিন পূর্ণ কর।’ (তিরমিযী)।

ক্যান্সার চিকিৎসায় গবেষকদের নতুন সাফল্য

ক্যান্সার চিকিৎসা নিয়ে নতুন সাফল্যের খবর দিলেন যুক্তরাজ্যের গবেষকরা। একই সঙ্গে তাঁরা চিকিৎসার জন্য নতুন কিছু ধারণাও নিয়ে এসেছেন। গবেষকদের ভাষ্য, নতুন পদ্ধতিতে পুরো শরীরের জন্য ওষুধ না দিয়ে শুধু আক্রান্ত কোষগুলোর চিকিৎসা সম্ভব। সম্প্রতি এসংক্রান্ত গবেষণাপত্র আন্তর্জাতিক সাময়িকী ‘নেচার’-এ প্রকাশিত হয়েছে।

ওয়েলকাম স্যাংগার ইনস্টিটিউটের একটি দল ৩০ ধরনের ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করতে সক্ষম হয়েছে। এর মাধ্যমে প্রায় ৬০০ নতুন ধরনের ঝুঁকি নিরসন করা সম্ভব হয়েছে বলে তারা জানিয়েছে। বর্তমানে ক্যান্সার চিকিৎসায় কেমোথেরাপি দেওয়া হয়। আর এর প্রতিক্রিয়ায় পুরো শরীরেই কমবেশি ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে।

গবেষকদের একজন ডা. ফিওনা বেহান। তাঁর মা ক্যান্সারে দুইবার আক্রান্ত হয়ে মারা যান। প্রথম দফায় ডা. বেহানের মাকে যে কেমোথেরাপি দেওয়া হয়, তাতে তাঁর হৃদ্যন্ত্রের ক্ষতি হয়। ফলে দ্বিতীয়বার যখন তিনি ক্যান্সার আক্রান্ত হলেন, তখন চিকিৎসা নেওয়ার মতো অবস্থা তাঁর ছিল না।

ডা. বেহান বলেন, ‘বর্তমানে যে চিকিৎসা পদ্ধতি প্রচলিত আছে তা ক্যান্সার রোগীর পুরো শরীরের চিকিৎসা। সুনির্দিষ্টভাবে ক্যান্সার কোষগুলোকে চিহ্নিত করা হয় না। এ গবেষণায় আমরা ক্যান্সার কোষগুলোর দুর্বলতম স্পটগুলোকে শনাক্ত করেছি এবং এটি আমাদের ওষুধ তৈরিতে সহায়তা করেছে। এগুলো শুধু ক্যান্সার কোষগুলোরই চিকিৎসা দেবে। অক্ষত রাখবে ভালো কোষগুলোকে।’

ক্যান্সার মানুষের শরীরের ভেতরের কোষগুলোকে পরিবর্তন করে দেয়। ফলে ডিএনএ নির্দেশনাও পরিবর্তন হয়ে যায়। পরে ধীরে ধীরে আক্রান্ত কোষগুলো ছড়াতে থাকে। একপর্যায়ে মানুষকে মৃত্যুর দিকে নিয়ে যায়। এখন গবেষকরা বলছেন, তাঁরা ক্যান্সার জিনগুলো অকার্যকরের পথে অগ্রগতি অর্জন করেছেন। প্রায় ৩০ ধরনের ক্যান্সার থেকে ল্যাবরেটরিতে বেড়ে ওঠা ৩০০টির বেশি টিউমারের জিন বাধাগ্রস্ত করেছেন তাঁরা। এ জন্য তাঁরা বিশেষ ধরনের জেনেটিক টেকনোলজি ব্যবহার করেছেন, যেটি গত বছর চীনে ব্যবহৃত হয়েছিল।

ডা. বেহান বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি ক্যান্সার সেলগুলোতে কী হচ্ছে, যাতে সুনির্দিষ্টভাবেই ওই কোষগুলোর দিকে বন্দুক তাক করা যায়।’গবেষকদের প্রধান লক্ষ্য, সব ধরনের ক্যান্সার চিকিৎসার জন্য ‘ক্যান্সার ডিপেনডেন্সি ম্যাপ’ প্রণয়ন করা। এর ফলে চিকিৎসকরা টিউমারগুলো টেস্ট করে আক্রান্ত কোষগুলোকে ধ্বংসের জন্য ওষুধ দিতে পারবেন।

শিশু নিরাপত্তায় কিছু পরামর্শ

ইন্টারনেট ও তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার সবার জন্য অসীম তথ্যভাণ্ডার এবং বিনোদনের সীমাহীন দ্বার উন্মুক্ত করেছে। শিশুরাও এর ব্যতিক্রম নয়। শিশুর মানসিক বিকাশের জন্য ইন্টারনেটের যেমন গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে, একইভাবে এর কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে। তবে সামান্য সচেতন হলে ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষতিকর দিকগুলো থেকে শিশুদের রক্ষা করা সম্ভব।

স্বাস্থ্যকরভাবে মোবাইল ও কম্পিউটার যন্ত্র ব্যবহার করার জন্য খাবার এবং ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোন নিষিদ্ধ করা উচিত বলে বলছেন যুক্তরাজ্যের শীর্ষ চারজন প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা।

-প্রতি ঘণ্টা অন্তর শিশুদের অবশ্যই মোবাইল বা কম্পিউটারের স্ক্রিন থেকে চোখ সরানো উচিত, তারা বলছেন।

-শিশুদের নিরাপদ রাখতে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর আরো ভূমিকা রাখা উচিত বলে তারা মনে করেন।

-নিজের ক্ষতি এবং আত্মহত্যার মতো প্রবণতা রুখতে ইন্সটাগ্রামের সঙ্গে ব্রিটেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক বৈঠক করতে যাচ্ছেন, এমন খবর প্রকাশের সময় এই তথ্য জানা গেল।

-ইন্সটাগ্রামের কিছু উপাদানের কারণে কিশোরী মলি রাসেলের আত্মহত্যার জের ধরে এই বৈঠকটি হতে যাচ্ছে। কিশোরীর বাবার অভিযোগ, ফেসবুকের মালিকানাধীন ইন্সটাগ্রাম তার সন্তানকে হত্যায় সহায়তা করেছে।

-যন্ত্র ব্যবহারের সময় কিছু সতর্কতা এবং পদ্ধতি অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন ব্রিটেনর প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তারা, যেগুলো অনুসরণ করে শিশুদের নিরাপদ রাখা যেতে পারে।

-খাবারের সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার না করা। কারণ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে গল্পগুজব করাটা উঠতি বয়সের সন্তানদের জন্য খুব ভালো হয়।

-ঘুমানোর আগে থেকেই বা বিছানায় মোবাইল ফোন ব্যবহার করার অভ্যাস পরিত্যাগ করা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অনলাইনের নিরাপদ থাকার বিষয়ে আলাপ আলোচনা করা, যাতে তারা ইন্টারনেটের হয়রানি বা উস্কানি সম্পর্কে সতর্ক হয়। এরকম পরিস্থিতি দেখা গেলে তাদের কি করা উচিত, সেটাও ঠিক করে রাখা।

-রাস্তা পারাপারের মতো যেসব ঘটনায় পুরো মনোযোগ দরকার, এরকম সময়ে মোবাইল ফোন ব্যবহার না করা। প্রতি ঘণ্টা অন্তর শিশু-কিশোরদের অবশ্যই যন্ত্রের পর্দা থেকে চোখ সরিয়ে হাঁটাচলা বা অন্য কোন ধরণের কাজ করতে হবে।

-অভিভাবকদের উচিত তাদের সন্তানদের প্রতি ঠিকঠাক মনোযোগ দেয়া এবং সবাইকে নিয়ে পারিবারিক সময় কাটানো।

-ব্রিটেনের গবেষকদের একটি দল বলেছেন, যদিও বেশ কয়েকটি গবেষণায় মোবাইল পর্দার সঙ্গে রাগ ও বিষণ্ণতার মতো নেতিবাচক ফলাফলের মিল পাওয়া গেছে, কিন্তু এ নিয়ে এখনি কোন চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসা যাবে না।

-এমনটা হতে পারে যে, যাদের আগে থেকেই মানসিক সমস্যা রয়েছে, তারাই যন্ত্রের প্রতি বেশি আসক্ত হয়ে পড়েন, বলেছেন একজন চিকিৎসা কর্মকর্তা ডেমি স্যালি।
তা হলেও, এ ব্যাপারে আরো গবেষণা করে পুরোপুরি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত স্ক্রিন ব্যবহারে সতর্ক হওয়া দরকার, আর সেজন্যই অভিভাবকদের জন্য এসব পরামর্শ।

-যুক্তরাজ্যের রয়্যাল কলেজ অফ সাইকিয়াট্রিস্টসের ড. বের্নাদকা ডুবিকা বলেছেন, মোবাইল পর্দা এবং মানসিক সমস্যার সঙ্গে কোন যোগসূত্র আছে কিনা, তা নিয়ে এখনো যথেষ্ট প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে এটা ঠিক যে, ইন্টারনেটে অল্পবয়সীদের জন্য রাগ, আত্মহত্যা বা নিজের ক্ষতি করার মতো উপাদান রয়েছে, যা কারো জন্য নিঃসন্দেহে ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে।

দৃষ্টিহীন নারীর হাতে স্তন ক্যন্সার ধরা পড়ছে ডাক্তারের চেয়েও দ্রুত

ফ্রান্সিয়া পাপামিজা তাঁর দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলেন শৈশবেই। চোখের রেটিনার বিচ্যুতির কারণে এমনটি ঘটে। ৩৬ বছর বয়সী এই নারীর চোখে আজ সবই অন্ধকার। তবে একটি জিনিস তাঁর কাছে একেবারেই স্বচ্ছ।

পাপামিজা জানেন, কীভাবে স্তন ক্যান্সার নির্ণয় করতে হয়। কেবল হাতের আঙুলের স্পর্শেই নির্ভুল রোগনির্ণয় করতে পারেন তিনি। এ কাজে দক্ষতায় চিকিৎসকরাও হার মানেন তাঁর কাছে। কলম্বিয়ার কালি শহরে অবস্থিত একটি ক্লিনিকে দায়িত্ব পালন করছেন এই অন্ধ নারী। সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন স্তন ক্যান্সার প্রাথমিক শনাক্তকরণে।

কেবল স্পর্শের অনুভূতি দিয়ে স্তন ক্যান্সার নির্ণয় করেন পাপমিজা। এ কাজে একজন দক্ষ মেডিক্যাল এক্সামিনার (এমটিই) তিনি। কেবল পাপামিজা নন, তাঁর মতো রয়েছেন আরো দুই দৃষ্টিহীন নারী। দেশটির একমাত্র এমটিই তাঁরাই।

ডা. ফ্রাঙ্ক হফম্যান একজন স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ। তিনিই প্রথম আবিষ্কার করেন, অন্ধ নারী তাঁর হাতের স্পর্শে নির্ণয় করতে পারেন স্তন ক্যান্সার। ফ্রাঙ্ক হফম্যানের মতে, অন্ধ নারীরা চিকিৎসকদের তুলনায় টিস্যু পরিবর্তনের বিষয় শনাক্ত করতে সক্ষম প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি।

কালি শহরে অবস্থিত লা রিভারার স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বরাদ্দ পাপামিজার নিজের কক্ষ। সেখানে প্রতিদিন ১০ জন নারীকে দেখেন তিনি। বিশ্বাস করেন, একজন দৃষ্টিহীন নারী হিসেবে তার জন্য রোগীদের সঙ্গে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি করা সহজ। কেননা, নারীরা সংবেদনশীল বিষয়গুলো সবার সামনে খোলাখুলি বলতে স্বস্তিবোধ করেন না।

ক্যান্সার নির্ণয়ে একজন নারীর স্তন পরীক্ষায় পাপামিজা সময় নেন ৪৫ মিনিট। পরীক্ষায় রোগীর বগল এবং ঘাড়ও বাদ যায় না। এ কাজে তিনি ব্রেইলে চিহ্নিত পাঁচটি আঠালো রেখাচিত্র ব্যবহার করেন। আঙুলের ডগায় কোনো পিণ্ডের উপস্থিতি টের পেলেই তা চিকিৎসককে জানান।

পাপামিজাসহ তিন দৃষ্টিহীন নারী গত দুই বছর ধরে দায়িত্ব পালন করছেন। লা রিভারার স্বাস্থ্যকেন্দ্র ছাড়াও শহরটির অন্য স্বাস্থ্যকেন্দ্রেও এমটিই হিসেবে কাজ করছেন তাঁরা। একজন পেশাদার এমটিই হতে তাঁরা পেয়েছেন ৯ মাসের প্রশিক্ষণ। ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক অব ল্যাটিন আমেরিকা তাঁদেরকে স্বীকৃতি দিয়েছে। সম্প্রতি মেক্সিকোতেও গ্রহণ করা হয়েছে অনুরূপ প্রকল্প।

প্রকল্পটির সমন্বয়কারী সার্জন ডা. লুইস আলবার্তো ওলভ বলেন, 'তাঁদের (এমটিই) আঙ্গুলগুলো হচ্ছে বিশেষ উপহার। উপযুক্ত প্রশিক্ষণ পেলে তাঁদের এই অক্ষমতা (দৃষ্টিহীনতা) পরিণত হতে পারে প্রতিভা আর শক্তিতে। এই প্রতিভা ও শক্তি ব্যবহৃত হতে পারে অন্য মানুষের সেবায়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বে প্রতিবছর দুই মিলিয়ন নারী স্তন ক্যান্সারের শিকার হন। ২০১৮ সালে এই রোগে মারা যান ছয় লাখ ২৭ হাজার নারী।

আর কলম্বিয়ায় প্রতিবছর এই রোগ ধরা পড়ছে আট হাজারেরও বেশি নারীর স্তনে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই রোগে মৃত্যুহার ক্রমাগত বাড়ছে। এর মূল কারণ হলো অনেক ক্ষেত্রে স্তন ক্যান্সার ধরা পড়ে অনেক দেরিতে।

জেনে নিন ফুসফুস নিকোটিনের বিষমুক্ত করার উপায়

ধুমপায়ী না হলে আপনার জন্য পরিচিত যারা ধুমপান করেন তাদের নিচের পরামর্শ দেবেন। আর যারা ধুমপান ছেড়ে দিয়েছেন, তারাও জেনে নিন শরীর থেকে নিকোটিন দূর করার উপায়।

৪০০ গ্রাম কুচানো পেঁয়াজ, এক টুকরা আদা এবং ২ চামচ হলুদ গুঁড়া এক লিটার পানিতে ভালো করে ফুটিয়ে নিন কয়েক মিনিট। এভাবে তৈরি করা হলুদ চা দিনে দুই বার খান।

হলুদে আছে সারকিউমিন যা শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান বের কর দিতে সাহায্য করে। আদা বমি বমি ভাব দূর করে। এই চা পান করার পর এক হাত বুকে ও অপর হাত পেটের উপর রেখে উপর থেকে নিচের দিকে হাত বুলিয়ে নিন কিছুক্ষণ। ৩ থেকে ১০ বার এমন করুন।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে এমন খাবার বেশি করে খান। যেমন যেকোন লেবুজাতীয় ফল। এটি আপনার শরীরে মেটাবলিজমের হার বাড়াবে এবং শরীরের ক্ষত সারাবে।

এর পর ক্যাফিন, দুগ্ধজাত খাবার ও মিষ্টান্ন খাওয়া বন্ধ করুন। এগুলি ফুসফুসের শ্বাসপ্রশ্বাস ব্যবস্থাকে জটিল করে।

এ ছাড়া পানি পান করুন প্রচুর পরিমাণে। এটি আপনার লিভার ও কিডনির বর্জ্য দূর করতে সাহায্য করবে।প্রতিদিন কিছুক্ষণ শরীরচর্চা করুন। এতে শরীরে রক্ত চলাচল বাড়বে এবং ঘামের মাধ্যমে বিষ দূর হতে থাকবে।

জেনে রাখবেন, আপনি যদি সপ্তাহে একদিন ধুমপান করেন, তবে তার নিকোটিন শরীর থেকে দূর হয় ২-৩ দিনে। আর যদি আপনি প্রতিদিন ধুমপান করেন, তাহলে ধুমপান ছাড়ার পরও নিকোটিন এক বছর সময় নেয় শরীর থেকে বের হতে।

কবে থেকে শুরু হয় হালখাতার প্রচলন?

হিসাবের খাতা হাল নাগাদ করা থেকেই ‘হালখাতা’র উদ্ভব। গ্রাম-নগরের ব্যবসায়ীরা পুরনো খাতা তুলে রেখে পহেলা বৈশাখ বা বাংলা সনের প্রথম দিনে খুলতেন হিসাবের নতুন খাতা। হালখাতার প্রচলন ঠিক কবে থেকে শুরু হয় তা নিয়ে দু-ধরনের তথ্য পাওয়া যায়।

কেউ বলেন, গৌড়ের রাজা শশাঙ্কের আমল থেকে শুরু, আবার কেউ বলেন, মুঘল সম্রাট আকবরের আমল থেকে। তবে দ্বিমত যাই থাক, হালখাতা খাজনা আদায় থেকে শুরু হয়েছে। জমিদারী আমল শেষে এটি ব্যবসায়ীরা এখন পালন করে থাকেন।

বাংলা নববর্ষের প্রথমদিন ব্যবসায়ীরা তাদের দেনা-পাওনার হিসেব সমন্বয় করে নতুন খাতা খোলেন। এ জন্য ক্রেতাদের পাওনা শোধ করার অনুরোধ করে থাকেন ব্যবসায়ীরা। পুরোনো হিসেবের খাতা বাদ দিয়ে নতুন বছরে নতুন খাতায় আবারো নতুন করে হিসেব হালনাগাদ করা হয়। এদিন নতুন হিসেবের সাথে ক্রেতাদের মিষ্টিমুখ করানো হয়। রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থানে এখনও হালখাতার বেশ প্রচলন লক্ষ্য করা যায়। বিশেষ করে পুরান ঢাকার শ্যাম বাজার, ফরাশগঞ্জ, মৌলভী বাজার, তাঁতিবাজার, শাঁখারিবাজার এবং চকবাজারে পয়লা বৈশাখে ঘটা করে এখনও হালখাতা উদযাপন করা হয়।

ইতিহাস বলে একটা সময় ছিল হালখাতার আমন্ত্রণ পত্র লেখা হতো তালপাতায়। কাগজের প্রচলন হলে কাগজে লিখে দাওয়াত দেয়া হতো পয়লা বৈশাখের এই আয়োজনে। বর্তমানে নানান ডিজাইনে আধুনিক প্রযুক্তির মুদ্রণ যন্ত্রে ছাপা দাওয়াত কার্ড পৌঁছে যায় ক্রেতার কাছে।

এখন পয়লা বৈশাখ জাঁকজমকের সঙ্গে পালন করা হলেও আধুনিকতার ছোঁয়া ও কালের বিবর্তনে অনেকটাই বিলুপ্তির পথে এক সময়ের জনপ্রিয় ও প্রাণের উৎসব হালখাতা।এক সময় হালখাতায় ব্যবসায়ীরা ক্রেতাদের গরম মিষ্টি, জিলেপি ও অন্যান্য খাবার দিয়ে আপ্যায়ন করতেন। সময় পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে খাবারের আয়োজনেও পরিবর্তন এসেছে। বেশিরভাগ ব্যবসায়ী হোটেল বুকিং করে রেখেছেন এবং টোকেনের ব্যবস্থা করেছেন। ক্রেতারা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দেনা মিটিয়ে একটি টোকেন দেখিয়ে হোটেলগুলো থেকে খাবার নেবেন। রাখা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের দামি ও আকর্ষণীয় উপহারের ব্যবস্থা।

বিশ্বে যেভাবে পালিত হয় পবিত্র রমজান
শুরু হয়ে গেছে সারা বিশ্বের মুসলিম স¤প্রদায়ের কাছে সবচেয়ে মর্যাদার মাস পবিত্র রমজান। সব বয়সের মুসলিম নরনারী এ মাসটির জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন। কারণ, এই মাস সবচেয়ে বেশি বরকতময়। গুনাহ মাপের মাস। বেহেশত লাভের মাস। এজন্য সারা বিশ্বের মুসলিম এই বহুল প্রত্যাশিত ও আনন্দঘন মাসকে প্রাণখুলে স্বাগত জানাচ্ছেন। এ নিয়ে অনলাইন আরব নিউজে একটি নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। পবিত্র রমজান শুরু হয় চাঁদ দেখা যাওয়া সাপেক্ষে। চাঁদ দেখার ওপর ভিত্তি করে বিশ্বের কমপক্ষে ১০০ কোটি মুসলিম রোজা রাখা শুরু করেন। সূর্যোদয়ের আগে থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সমস্ত রকম পানাহার, স্ত্রী সম্ভোগ, পাপ কাজ থেকে বিরত থাকেন তারা। এর মধ্য দিয়ে শুধু শারীরিক বিশুদ্ধতাই অর্জন হয়- এমন নয়। মন ও আত্মাও পরিশুদ্ধ হয়। এ সময় বিশ্বজুড়ে প্রতিটি মুসলিমের হৃদয় থাকে একসূত্রে গাঁথা। তাদের মধ্যে কোনো ভেদাভেদ থাকে না। তারা একই ধ্যানে মগ্ন থাকেন। প্রতি বছর মুসলিমরা তাদের নিজেদের, পরিবার ও বাড়িঘরকে এই মাসের পবিত্রতার জন্য প্রস্তুত করেন। কারণ এই মাসেই মহানবী হজরত মোহাম্মদ (স.)-এর ওপর নাযিল হয়েছিল পবিত্র কোরআন। রমজানে প্রতিটি বাড়ি থাকে শান্ত। শহরজুড়ে মসজিদে মসজিদে থাকে নামাজের আয়োজন। আগেভাগে তৈরি করা ইফতার নিয়ে বাসায় বাসায় চলে প্রস্তুতি। পরিবারের সবাই একত্রিত হয়ে ইফতার করেন। সবার সামনে একই খাবার। এর মধ্য দিয়ে পারিবারিক বন্ধনও হয় শক্তিশালী। এর বাইরে মসজিদে বা বিভিন্ন স্থানে পাওয়া যায় ইফতারি। সেখানে ধনী-গরিবের ব্যবধান থাকে না। সউদী আরবে রমজান আসে প্রতিটি বাড়িতে পবিত্রতার এক বার্তা আর রীতি নিয়ে। সূর্য যখন পাটে বসা শুরু হয়, সঙ্গে সঙ্গে বাড়ির ভেতর থেকে এলাচের ঘ্রাণযুক্ত খাবার আর আরবের বিখ্যাত কফির ঘ্রাণ বেরিয়ে আসতে শুরু করে। শুকনো ময়দা দিয়ে দলা পাকানো হয় সমুসা তৈরির জন্য। গোলাপের ঘ্রাণযুক্ত চা-ও আছে তালিকায়। সৌদি আরবে যদি ঘোরেন তাহলে বিভিন্ন বাড়ি থেকে শুনতে পাবেন পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত। আবার পরিবারের সদস্যরা প্রবীণদের জন্য পাঠিয়ে থাকেন নানা রকম মিষ্টি খাবারসহ নানা রকম খাবার। কিছু কিছু পরিবার আয়োজন করে কমর আল দিন নামে খোবানি নামের একটি ফলের জুস। বারলি অথবা পাউরুটির গুঁড়া, চিনি ও রেইজিন পানিতে কয়েক দিন মিশিয়ে রেখে তা দিয়ে তৈরি হিজাজ পানীয় তৈরি করা হয়। এর নাম সুবিয়া। পরিবেশন করা হয় তরমুজের জুস। ইফতারিতে হালকা খাবার খেয়ে থাকেন সৌদি আরবের মুসলিমরা। ইফতারের পরে তারাবিহ নামাজ আদায় করার আগে তারা কিছু মিষ্টি ও আরবের বিখ্যাত কফি পান করেন। পান করেন পবিত্র জমজমের পানি। টিনের তৈরি টুটুওয়া নামের ছোট্ট ছোট্ট কাপে তা পান করা হয়। মিশরে রোজা শুরুর সঙ্গে সঙ্গে শিশুরা আনন্দ করতে থাকে। তারা ছুটে যায় প্রতিবেশীদের দরজায়। ছোট ছোট ফানুস উড়িয়ে মজা করে। রমজানকে স্বাগত জানিয়ে গাইতে থাকে লোকগান ‘ওয়াহাইয়ি ইয়া ওয়াহাইয়ি’। রোজার আগমনে মিশরীয়রা তাদের বাড়িঘর, রাস্তাঘাট সাজান ফানুস দিয়ে। তবে ইফতারে তারা ভারি খাবার খান। সেহরিতে খান হালকা খাবার। পরিবারের সদস্যরা ও বন্ধুবান্ধবরা মসজিদে একত্রিত হয়ে নামাজ আদায় করেন একসঙ্গে। ইফতারের পর নামাজ আদায় শেষে তারা বাড়িতে বা কোনো ক্যাফেতে জমায়েত হন। সেহরির কিছু সময় আগে মেসাহারাতি হিসেবে পরিচিত লোকজন সবাইকে ডেকে তোলেন ড্রাম বাজিয়ে। সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধ চললেও রাতে অনেক মার্কেট মানুষে পরিপূর্ণ থাকে। তারা কেনাকাটা করেন। চা পান করেন। জনগণের উদ্দেশে বাজানো হয় প্রচলিত গান। পরিবেশন করা হয় লোকনৃত্য। আরেকটি রীতি হলো সেখানে গল্প বলা হয়।

নিয়মিত হাঁটা অনেক রোগের ওষুধ হিসাবে কাজ করে। যদিও চিকিৎসার অংশ হিসেবে হাঁটার পরামর্শ দিলে অনেকেরই হয়ত মনঃপুত হবে না। কিন্তু সত্যিকার অর্থে বিনে পয়সায় এর চেয়ে ভাল ওষুধ খুব কমই আছে। আমরা সবাই জানি, ব্যায়াম করা শরীরের জন্য উপকারী। অনেকের ধারণা শরীরের সুস্থতায় জিমে যেয়ে অনেক ভারী ভারী যন্ত্রপাতি নিয়ে ব্যায়াম করতে হবে। কিন্তু ব্যায়ামের জন্য জিমে যাওয়া অত্যাবশ্যক নয়। নিয়মিত হাঁটাও অতি সহজ একটি ব্যায়াম। বিনে খরচার এই ব্যায়ামের উপকারের কোন তুলনা হয় না।

গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন নিয়ম করে ২১ মিনিট অর্থাৎ সপ্তাহে আড়াই ঘণ্টা করে হাঁটলে হৃদরোগের ঝুঁকি ৩০ শতাংশ কমে যায়। নিয়মিত এই সহজ কাজটি করলে হৃদরোগ ছাড়াও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে যায়। প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময় হাঁটলে রক্তচাপ ও রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকে; আর মস্তিস্ক থাকে সতেজ এবং সক্রিয়। এগুলো ছাড়াও হাঁটা-চলা করার আরো বেশ কিছু উপকারিতা আছে। চলুন, নিয়মিক হাঁটার উপকারিতাগুলো জেনে নেই-
হাঁটার পাঁচটি উপকারিতা:

১) ওজন কমায়: হাঁটা আমাদের শরীরের ওজন বাড়ানোর জিনের কাজ কমিয়ে দেয়। হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির গবেষকগণ ১২,০০০ মানুষের ওপর ৩২ রকমের ওজন বাড়ানোর জিন নিয়ে পরীক্ষা করেছেন। এতে দেখা গিয়েছে দৈনিক এক ঘণ্টা করে জোরে জোরে হাঁটলে ওজন বাড়ানোর জিনের কার্যকারিতা অর্ধেক কমে যায়। ফলস্বরূপ ওজন কমে।

২) মিষ্টি জাতীয় খাবার গ্রহণের প্রবণতা কমায়: হাঁটলে মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছে কমে যায়। সাধারণত যাদের মিষ্টি খাওয়ার লোভ বেশী তাদের ওজন সহজে বেড়ে যায়। কিন্তু নিয়মিত ১৫ মিনিট হাঁটলে চকলেটসহ অন্যান্য মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়ার ইচ্ছে কমে যায়। ফলে যারা বেশী হাঁটেন তাদের যে কোন ধরণের মিষ্টিযুক্ত খাদ্যগ্রহণের প্রবণতা কম থাকে।

৩) স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়: হাঁটলে স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। যে কোন ধরনের ব্যায়াম স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। তবে আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটির সমীক্ষায় দেখা যায়, যারা সপ্তাহে কমপক্ষে সাত ঘণ্টা হাঁটেন তাদের স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা তুলনামূলকভাবে অনেক কম।

৪) বাতের ব্যথা কমায়: নিয়মিত হাঁটলে বাতের ব্যাথা কমে যায়। অনেকগুলি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে বাতের জন্য হাঁটা বেশ উপকারী। যারা সপ্তাহে অন্তত পাঁচ থেকে ছয় মাইল হাঁটেন তাদের মধ্যে বাতের প্রকোপ কম। হাঁটলে আমাদের বোন জয়েন্ট বা অস্থিসন্ধিগুলো সুস্থ থাকে। ফলে বাতের প্রকোপ লাঘব হয়।

৫) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: হাঁটলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। যারা নিয়মিত হাঁটেন তাদের সর্দি-কাশি কম হয়। প্রায় ১০০০ নারী এবং পুরুষের ওপর দীর্ঘদিন সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে যারা প্রতিদিন অন্তত ২০ মিনিট করে সপ্তাহে পাঁচদিন হাঁটেন, তাদের অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা অন্যদের চেয়ে প্রায় অর্ধেক কম।

অতএব, বুঝতেই পারছেন হাঁটার উপকারিতা অনেক। আর তাই সুস্থতার জন্য নিয়মিত হাঁটুন এবং সুস্থ থাকুন।

বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত শেখ হাসিনা

আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন গবেষণা সংস্থা দ্য স্ট্যাটিসটিক্স শেখ হাসিনাকে বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করেছে। দ্য স্ট্যাটিসটিক্সের গবেষণায় এ মনোনয়ন দেওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা।

অার এ স্বীকৃতিকে সরকারের অর্জন হিসেবে মন্তব্য করে জনগণকে উৎসর্গ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণ আস্থা রেখেছে বলেই এ অর্জন সম্ভব হয়েছে। তবে বাংলাদেশের এই অর্জন অনেক অগেই সম্ভব হতো বলে মনে করেন তিনি।
তিনি আরও বলেন, ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট না এলে বাংলাদেশ আরো আগেই লক্ষ্য অর্জন করতে পারত।

এদিন জাতিসংঘের উন্নয়নের সব সূচকে বাংলাদেশ তার লক্ষ্য পূরণ করে এগিয়ে আছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

এদিকে উন্নয়নের সব সূচক পূরণ করে এখন উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশ। এ অর্জনে সোমবার অভিনন্দন প্রস্তাব গ্রহণ করে মন্ত্রিসভা। বলা হয়, এই ধারাবাহিকতা আরো ছ’বছর অব্যাহত থাকলে ২০২৪ সালে জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে চূড়ান্ত স্বীকৃতি পাবে বাংলাদেশ।

কানে পানি ঢুকলে কি করবেন?

গোসলের সময় সতর্ক থাকলেও অনেক সময়েই শরীরে পানি ঢালার তোড়ে কানের ভিতর পানি ঢুকে যায়। অল্পস্বল্প পানি ঢুকলে অত অসুবিধা হয় না। কিন্তু অনেকটা পানি ঢুকে গেলে সারা দিন থাকে অস্বস্তি। বহু চেষ্টাতেও সেই পানি বার করা যায় না। কান বন্ধ হওয়া থেকে কানে যন্ত্রণা তো রয়েইছে, এমনকি পানির পরিমাণ বেশি হলে কান থেকে রক্ত বার হওয়া, পুঁজ ইত্যাদির সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

“কানে পানি ঢুকলে খানিকটা চেষ্টা করে তা না বেরলে অনেকেই সেই শারীরিক অসুবিধা নিয়ে কাটিয়ে দেন দিনের পর দিন। শরীরের নিজস্ব প্রক্রিয়ায় কান থেকে সেই পানি বেরিয়ে যাবে ধরে নিয়েই অপেক্ষা করেন। কম পানি ঢুকলে যাও বা এই অভ্যাস মেনে নেওয়া যায়, কিন্তু পরিমাণে বেশি পানি ঢুকলে তার জন্য কোনও চিকিৎসা বা চেষ্টা না থাকলে বধিরতাও আসতে পারে কিন্তু!’’

রমাদান মাসের ফজিলত হাসিল করার জন্য এমন কিছু কাজ রয়েছে যা থেকে বিরত থাকা দরকার, সেগুলো নিম্নে উপস্থাপন করা হলো :

1. বিলম্বে ইফতার করা
2. সাহরী না খাওয়া
3. শেষের দশ দিন কেনা কাটায় ব্যস্ত থাকা
4. মিথ্যা বলা ও অন্যান্য পাপ কাজ করা
5. অপচয় ও অপব্যয় করা
6. তিলাওয়াতের হক আদায় না করে কুরআন খতম করা
7. জামা‘আতের সাথে ফরয সালাত আদায়ে অলসতা করা
8. বেশি বেশি খাওয়া
9. রিয়া বা লোক দেখানো ইবাদাত করা
10. বেশি বেশি ঘুমানো
11. সংকট তৈরি করা জিনিস পত্রের দাম বৃদ্ধির জন্য
12. অশ্লীল ছবি, নাটক দেখা
13. বেহুদা কাজে রাত জাগরণ করা
14. বিদ‘আত করা
15. দুনিয়াবী ব্যস্ততায় মগ্ন থাকা

ওষুধ ছাড়া ডায়াবেটিসমুক্ত থাকার অভ্যাসগুলো

ডায়াবেটিসের হার বেড়েই চলেছে দিন দিন। খাওয়া দাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করেও মনের মধ্যে ভয় পুষে রাখেন অনেকেই।
তবে যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে বা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তারা এই আট উপায় গ্রহণের মাধ্যমে সহজেই ডায়াবেটিসকে দূরে রাখতে পারেন।

১.খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন এনে ওজন কমানো
খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন এনে অতিরিক্ত ওজন কমানোর মাধ্যমে ডায়াবেটিস শতকরা প্রায় ৯০ ভাগ কমিয়ে ফেলা সম্ভব যদি সে রোগীর ডায়াবেটিসের বয়স চার বছরের কম হয়ে থাকে। জার্মান ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ প্রফেসার স্টেফান মার্টিন এ তথ্য জানিয়েছেন।

২.নুডলস খাওয়া বাদ দিন
নুডলস বা মিষ্টি জাতীয় খাবারের শর্করা রক্তে চিনির মাত্রা মুহূর্তের মধ্যেই বাড়িয়ে দেয়, যার ফলে শরীরের কোষে কোষে ইনসুলিন হরমোনটি ছড়িয়ে পড়ে।

৩.দিনে মাত্র ৬০০ ক্যালোরি
২০০ ডায়াবেটিস রোগী নিয়ে করা একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, ডায়াবেটিস রোগীরা কড়া খাদ্যাভ্যাস অনুসরণ করে অর্থাৎ দিনে মাত্র ৬০০ ক্যালরি প্রোটিনযুক্ত খাবার খাওয়ার পর ঔষুধ সেবন বন্ধ করতে পেরেছেন। তাছাড়া দীর্ঘ তিন মাস শর্করা জাতীয় খাবার পুরোপুরি বাদ দিয়ে শুধু প্রোটিনযুক্ত খাবার খেয়েও একই ফল পাওয়া গেছে।

৪.তিন বেলা প্রোটিন
তিন সপ্তাহ ধরে তিন বেলাই শুধু প্রোটিনযুক্ত খাবার খেলে অবশ্যই রক্তে চিনির মাত্রা কমে যাবে বলে জানিয়েছেন জার্মান বিশেষজ্ঞ স্টেফান মার্টিন। মাছ, মুরগি, ডিম, মটরশুটি এবং দুধ জাতীয় খাবারে রয়েছে প্রচুর প্রোটিন।

৫.বাদামও খুব উপকারী
বাদামের ম্যাগনেশিয়াম ইনসুলিনের প্রভাবকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। এ কারণে ডায়াবেটিস রোগীকে প্রতিদিন এক মুঠো বাদাম অথবা আখরোট খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা।

৬.সবজি ও সালাদের গুণাগুণ
সালাদে ও বিভিন্ন সবজিতে ক্যালরি প্রায় নেই বললেই চলে। তবে এতে থাকা পানি পেট ভরায় এবং খুব ধীরে ধীরে রক্তে প্রবেশ করে। সালাদের সাথে অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিলে অনেকক্ষণ খিদেও পায় না। তাই প্রচুর সালাদ খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

৭.স্ট্রবেরি এবং আপেল
এসব ফলে অন্যান্য ফলের তুলনায় অনেক কম শর্করা রয়েছে। কাজেই ওজন কমাতে এবং ব্লাডপ্রেশার নিয়ন্ত্রণে রাখতে কোনো চিন্তা না করে এ ধরনের ফল যত খুশি খাওয়া যায়।

৮.বাইরের খাবার বাদ দিন
ডায়াবেটিস রোগীর এক প্লেট খাবারের অর্ধেকটাই হতে হবে সালাদ বা সবজি। আর বাকি অর্ধেকে চার ভাগের তিন ভাগ প্রোটিনযুক্ত খাবার আর এক ভাগ থাকতে পারে শর্করা জাতীয় খাবার। বাইরের কেনা খাবার একেবারেই বাদ রাখুন।

এই নিয়মগুলো মেনে চললে ডায়াবেটিসকে নিয়ন্ত্রণে রাখা আর মোটেই কষ্টকর হবে না।

শিশুকে স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে কিভাবে আগ্রহী করবেন

বাবা মায়েদের চিন্তার কারণ শিশুরা পুষ্টিকর খাবার খেতে চায় না।

আজকাল বাবা মায়েদের নতুন চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে সন্তানদের যাচ্ছেতাই খাদ্যাভ্যাস। যার কারণে একদিকে শিশুরা অপুষ্টিজনিত রোগে ভুগছে অন্যদিকে স্থূলতার হারও বাড়ছে সমান তালে।

যুক্তরাজ্য জুড়ে, শিশুদের স্থূলতা সম্প্রতি রেকর্ড পরিমাণে দাঁড়িয়েছে। এবং স্থূলতার এই প্রবণতা একটি শহরে সবচেয়ে বেশি।

তবে সাম্প্রতিক এক জরিপ থেকে জানা যায় যে, ওই শহরটি তাদের শিশু স্থূলতার হার ৬.৪% কমাতে সক্ষম হয়েছে।

স্থূলতার মোকাবেলা করার জন্য শহরটি যেসব কৌশল হাতে নিয়েছিল তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল প্রি-স্কুল শিশুদের উপর মনোযোগ দেয়া এবং সুস্থ থাকার ব্যাপারে শিশুদের উৎসাহী করতে বাবা মায়েদের ক্লাস করানো।

তবে শিশুর সঙ্গে খাবারের বিষয়টি কিভাবে উপস্থাপন করতে হয় সেটা বাবা-মা অথবা শিশুর যত্নকারীর পক্ষে পুরোপুরি বোঝা সবসময় সহজ হয়না।

এক্ষেত্রে চলুন জেনে নেয়া যাক যে তারা শিশুর সুস্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে সেরা কি করতে পারেন।
আরও পড়তে পারেন:

'শিশুর বিকাশে পুষ্টিকর খাবার ও খেলাধুলাই যথেষ্ট না'

সকালের নাশতা বাদ দিয়ে কি মৃত্যু ডেকে আনছেন?

যেসব খাবারে প্রতি পাঁচ জনে একজনের অকাল মৃত্যু হচ্ছে

শিশুদের পছন্দমতো খাবার বেছে নেয়ার সুযোগ দিলে তারা ভাল খাবার খেতে আগ্রহী হয়।
পছন্দমতো বেছে নেয়া

পূর্ব লন্ডনের লিডসে অনুষ্ঠিত এক কর্মশালায় যোগ দিয়েছিলেন টিনা লি।

তিনি বলেন, শিশুদের একদম অল্প বয়স থেকে এক বা একাধিক স্বাস্থ্যকর খাবারের বিকল্প থেকে নিজের পছন্দমতো খাবারটি বেছে নেয়ার সুযোগ দিতে হবে।

এটা তাদের মধ্যে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস তৈরিতে সাহায্য করে।

টিনা লি বলেন, "এটি শিশুদের কোন খাবার খেতে অস্বীকার করার ঝুঁকি কমিয়ে আনতে সেইসঙ্গে তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকতেও সাহায্য করে,"

"আমরা যখন শিশুদের একটি বিকল্প দিই না, তখন তারা একদম চুপ হয়ে যেতে পারে এবং কিছুটা হতাশ হতে পারে।
ছোট ছোট পদক্ষেপ

শিশুদের খাদ্যাভ্যাস বিশেষজ্ঞ ডা. অ্যানা গ্রুম স্বীকার করেন যে, যেসব শিশু খাওয়ার ব্যাপারে বেশ অস্থির এবং উদাসীন তাদের সঠিক খাদ্যাভ্যাস গড়ে তোলা এতোটা সহজ নয়।

তিনি বলেন, "শুরু থেকেই ছোট ছোট পরিবর্তন আনলে শিশুদের খাবার সময়ে তর্ক এড়ানোর চাপ কমবে।"

"এটি গুরুত্বপূর্ণ যে শিশুরা পছন্দ করে এমন কিছু নিরাপদ খাবার তার থালায় রয়েছে এবং অল্প পরিমাণে হলেও সেই খাবারে নতুন কিছু আছে।" তিনি জানান।

বেলিন্ডা মোল্ড নামে এক মা এই পদ্ধতিটি তার তিন বছরের মেয়ের ওপর প্রয়োগ করে দেখেন যে, এটা তার মেয়ের খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলতে বেশ ভালভাবে কাজ করেছে।

যেখানে তার মেয়ে আগে কেবল সসেজ এবং সেদ্ধ মটরশুঁটি খেত।

তিনি বিবিসির ভিক্টোরিয়া ডার্বিশায়ার প্রোগ্রামকে বলেন, "যদি আমরা তাকে অন্য কিছু খেতে দিতাম সে সেগুলো মেঝেতে ছুড়ে ফেলত নাহলে খাবার ফেলে চলে যেতো। কিছুই খেত না।"

কিন্তু তিনি তার মেয়েকে প্রতিদিন অল্প পরিমাণে হলেও নতুন খাবার দেয়ায়, এখন সে বলতে গেলে সবই খায়।

মিসেস মোল্ড বলেন "আমি আমার মেয়েকে বলতাম, তুমি এটা মুখে নিয়ে খাবার চেষ্টা করে দেখ। যদি এটা তোমার ভাল না লাগে, তাহলে আমি তোমাকে অন্য কিছু দেয়ার চেষ্টা করবো।"

"এক্ষেত্রে আপনাকে নাছোড়বান্দা হতে হবে, তাই যদি শিশু আপনার খাবার শুরুতে প্রত্যাখ্যান করে, তাহলে আপনাকেও বার বার চেষ্টা করে যেতে হবে।"

অল্প বয়স থেকে‌ই একটি শিশুর জন্য একটি ভাল উদাহরণ হয়ে ওঠা বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন মিস টিনা।

তিনি বলেন. "আপনি যদি নিজে স্বাস্থ্যকর খাবার খান, তাহলে আপনার সন্তানেরও সেই অভ্যাস গড়ে ওঠার সম্ভাবনা তৈরি হয়।",

তিনি মনে করেন যে, প্রতি বেলায় সবাই মিলে একসঙ্গে খেলে ছোট বাচ্চারা তাদের বাবা-মায়ের অভ্যাস অনুকরণ করতে উৎসাহিত হয়।

মিস টিনা আরও বলেন, বাবা-মায়েরা যেসব খাবার পছন্দ করেন না সেগুলোর বিষয়ে নেতিবাচক কথাবার্তা শিশুদের সামনে এড়িয়ে যেত হবে।

কেননা, আপনাদের কথাই তাদরে নতুন খাবারের প্রতি আগ্রহকে প্রভাবিত করতে পারে।

স্বাস্থ্যকর খাবারের প্রতি উৎসাহিত করতে শিশুদের পার্কে নিয়ে যাওয়ার কথা বলতে পারেন।
পুরস্কার

স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার জন্য পুরস্কার এবং প্রশংসা ভাল অভ্যাস গড়ে তুলতে শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেন মিস টিনা।

তবে, তিনি জোর দেন যে পুরষ্কারগুলো যেন তাদের খাদ্যের সাথে সম্পর্কিত না হয়। বরং পার্কে যাওয়ার মতো কিছু কার্যকলাপ, কিছু রঙ করা বা চার্টে স্টিকার স্থাপন করার মতো ছোট ছোট বিষয় হয়।

তিনি সব সময় ঘুষ বা ঘুষের মতো দেখায় এমন পুরস্কার এড়িয়ে যেতে বলেন।

টিনা বলেন, "আপনি কখনোই বাচ্চাকে এটা বলবেন না যে, যদি সে পুরো খাবারটা খায় তাহলে আপনি তাকে একটি চকোলেট বা কিছু আইসক্রিম দেবেন। কারণ এতে সে মনে করবে, যে খাবারটি আপনি তাকে খেতে বলছেন সেটা পুরস্কারে পাওয়া খাবারের চাইতে মূল্যহীন।"
ছবির কপিরাইট Thinkstock
Image caption সুস্বাস্থ্যের সচেতনতা শিশুকে যেন তার ওজন নিয়ে হীনমন্যতায় ফেলে না দেয়।
চাই সুস্বাস্থ্য, সুন্দর চেহারা নয়

বিশেষ করে একটু বড় বাচ্চাদের জন্য, খাদ্য ও ওজন একটি সংবেদনশীল বিষয় হতে পারে।

কারণ তাদের মধ্যে নিজেদের চেহারা নিয়ে বা তাদের দেখতে কেমন লাগে সে বিষয়ে উদ্বেগ কাজ করে।

যেটা কিনা তাদের আত্মসম্মানের ওপর বড় ধরণের প্রভাব ফেলতে পারে।

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, যে স্থূলতা এবং মানসিক স্বাস্থ্য ঘনিষ্ঠভাবে সংযুক্ত। একজন, স্থূল শিশু বিভিন্ন ধরণের মানসিক সমস্যা যেমন অতি উদ্বিগ্নতা এবং মন খারাপের মতো সমস্যায় তুলনামূলক বেশি ভোগে।

টিনার পরামর্শ হল, এই বয়সী শিশুদের সঙ্গে খাদ্য বিষয়ক কথোপকথন এমন হতে হবে, যেন তারা এটা না ভাবে যে, স্বাস্থ্যকর খাবার তার চেহারার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট।

"তাদেরকে সুস্থ হওয়ার জন্য উৎসাহিত করুন, এই কারণে নয় যে তাদের চেহারায় কোন পরিবর্তন আনবে। বরং এই কারণে যে সুস্থ থাকলে তারা ভাল বোধ করবে।"
ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption শিশুর মধ্যে একসঙ্গে খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।

অ্যানা মনে করেন যখন কারও ওজনের প্রসঙ্গটি সামনে আসে, তখন ওজনের সমস্যা মোকাবেলায় বুঝে শুনে ভাষা ব্যবহার করা বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি বলেন,"শিশুদের খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনার আগে পুরো পরিবারকে পরিবর্তন আনতে উৎসাহিত করা হয়। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যেন শিশুরা একলা বোধ না করে"।

"বিষয়টা এমন যে, "আসুন, আমরা পুরো পরিবার নিয়ে স্বাস্থ্যবান হই। এতে শিশুরা নিজেদের স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন হবে ঠিকই। তবে তারা এটা ভাববে না যে তাদের বাবা-মা তাদের ওজন নিয়ে চিন্তিত।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি প্রায় এক সপ্তাহ আগে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয়। ১৯৭৬ সালের পর এপ্রিলে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়গুলোর মধ্যে এটি শক্তিশালী বলে জানিয়েছে ভারতীয় আবহাওয়া অধিদফতর। ঘূর্ণিঝড় ‌‌‘ফণী’ নাম দিয়েছে বাংলাদেশ। এর অর্থ সাপ বা ফণা তুলতে পারে এমন প্রাণী। ইংরেজিতে (Fani) লেখা হলেও এর উচ্চারণ ফণী। খবর: বিবিসি বাংলা।



বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা আঞ্চলিক কমিটি একেকটি ঝড়ের নামকরণ করে। যেমন ভারত মহাসাগরের ঝড়গুলোর নামকরণ করে এই সংস্থার আটটি দেশ। দেশগুলো হচ্ছে: বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, মায়ানমার, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড এবং ওমান, যাদের প্যানেলকে বলা হয় WMO/ESCAP।

এর সময় ঝড়গুলোকে নানা নম্বর দিয়ে সনাক্ত করা হতো। কিন্তু সেসব নম্বর সাধারণ মানুষের কাছে দুর্বোধ্য হতো। ফলে সেগুলোর পূর্বাভাস দেয়া, মানুষ বা নৌযানগুলোকে সতর্ক করাও কঠিন মনে হতো। এ কারণে ২০০৪ সাল থেকে বঙ্গোপসাগর ও আরব সাগরের উপকূলবর্তী দেশগুলোয় ঝড়ের নামকরণ শুরু হয়। সে সময় আটটি দেশ মিলে মোট ৬৪টি নাম প্রস্তাব করে। সেসব ঝড়ের নামের মধ্যে এখন 'ফণী' ঝড়কে বাদ দিলে আর সাতটি নাম বাকী রয়েছে।

এর আগে থেকেই যুক্তরাষ্ট্র বা অস্ট্রেলিয়া অঞ্চলে ঝড়ের নামকরণ করা হতো। ভারত মহাসাগরে ঘূর্ণিঝড়কে সাইক্লোন বলা হলেও আটলান্টিক মহাসাগরীয় এলাকায় ঘূর্ণিঝড়কে বলা হয় হারিকেন, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে বলা হয় টাইফুন।

ফণী নামটি কোথা থেকে এলো?

আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ বলছেন, বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার বৈঠকে বাংলাদেশের এক বা একাধিক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা অংশ নিয়ে থাকেন। আগে থেকে তারা আলোচনা করে নেন যে, কি নাম হবে।

আবহাওয়া দপ্তরের সাবেক পরিচালক শাহ আলম বলছেন, এখন ঝড়ের যেসব নাম আসছে, সেগুলো অনেক আগে ঠিক করা হয়েছিল। এমনকি আমি যতদিন দায়িত্বে ছিলাম, তখন আমাদের কোন নাম প্রস্তাব করতে হয়নি। আগে ঠিক হওয়া নামগুলোই এখনো শেষ হয়নি।'

তিনি জানান, আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক বা সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল অংশ নিয়ে থাকে। তারা ঝড়ের নামগুলো করে থাকেন। পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে সেই তালিকা থেকে ঝড়ের নাম বাছাই করা হয়।

আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ বলছেন, ঝড়ের নাম বাছাইয়ের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখা হয়, যাতে সেটি ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক বা সামাজিক ভাবে কোনরকম বিতর্ক বা ক্ষোভ তৈরি না করে।

তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ২০১৩ সালে একটি ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেয়া হয়েছিল 'মহাসেন।' নামটি প্রস্তাব করেছিল শ্রীলঙ্কাই। কিন্তু সেখানকার সাবেক একজন রাজার নাম ছিল 'মহাসেন', যিনি ওই দ্বীপে সমৃদ্ধি নিয়ে এসেছিলেন। ফলে এ নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়। এমনকি শ্রীলঙ্কার সংবাদমাধ্যমে সেটিকে নামহীন ঝড় বলে বর্ণনা করা হয়। পরবর্তীতে রেকর্ডপত্রে ঝড়টির নতুন নাম নির্ধারণ করা হয় 'ভিয়ারু'।




ভাত নষ্ট হচ্ছে? ফেলে না দিয়ে তৈরি করে নিন সুস্বাদু এই মিষ্টি! গৃহস্থ বাড়িতে ভাত একটু বেশি থাকবে না, তা হয় না৷ আবার ধরুন যেমন আপনি প্রায় প্রতিদিনই কচিকাঁচাদের সঙ্গে নিয়ে সন্ধেবেলায় বেড়িয়ে পড়ছেন কেনাকাটিতে৷ শপিং করতে করতে ক্লান্ত হয়ে পড়ছে খুদে৷ তাকে আবারও চাঙ্গা করতে আপনি ঢুকছেন রেস্তরাঁয়৷

ব্যস, বাড়িতে এসে আর খাওয়ার ইচ্ছা নেই কারও৷ রান্না করে রাখা ভাত দিনের পর দিন জমছে ফ্রিজে৷ ভাত ফেলে দিতে হবে ভেবে মন খারাপ আপনার৷ কিন্তু জানেন কি, ওই ভাত ফেলে না দিয়ে বরং খুব সহজেই তা থেকে বানিয়ে ফেলতে পারেন সুস্বাদু মিষ্টি৷ আপনার জন্য রইল ভাতের রসগোল্লা তৈরির প্রণালী৷

ভাতের রসগোল্লা তৈরির উপকরণ:

ভাত পরিমাণমতো, এক চামচ ময়দা, এক চামচ গুঁড়ো দুধ, এক চামচ ঘি, চিনি : দেড় কাপ, জল : তিন কাপ

ভাতের রসগোল্লা তৈরির প্রণালী:

প্রথমে একটি বাটিতে ভাত নিন৷ ভাল করে হাত দিয়ে চটকে নিন ভাতটি৷ একটি মিক্সিতে দিয়ে পেস্ট তৈরি করুন৷ এরপর একটি ফ্রাইং প্যানে ঘি ঢালুন৷ ভাতের ওই পেস্টটি ওই প্যানে ঢেলে দিন৷ হালকা আঁচে ভাতের পেস্টটি নাড়াচাড়া করুন৷ সোনালি রং হয়ে গেলে গ্যাস বন্ধ করুন৷ এবার অন্য একটি পাত্রে ময়দা ও গুঁড়ো দুধ ঢালুন৷ ভাতের সঙ্গে মিশিয়ে নিন৷ এবার ছোট ছোট লেচি তৈরি করুন৷ আলাদা একটি পাত্রে চিনির রস তৈরি করে নিন৷

এবার ওই লেচিগুলি চিনির রসে ফেলে দিন৷ দশ মিনিট পর রস ছেঁকে লেচিগুলি তুলে নিন৷ খেয়ে দেখুন ছানার তৈরি রসগোল্লাকেও হার মানাবে এই মিষ্টি৷

পরামর্শ:
জেনেটিক ফ্যাক্টর, শারীরিক ক্রিয়ার অভাব, হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস ইত্যাদি কারণে শিশু মুটিয়ে যেতে পারে। এজন্য বাবা মায়ের সচেতনতা জরুরি। আর শিশুদের জন্য ডায়েট প্ল্যান ও এক্সারসাইজ আছে। তবে একটু সচেতন হলেই এই মুটিয়ে যাওয়ার রোধ করা সম্ভব। শিশু মুটিয়ে গেলে যদি সেটা স্থূলতার পর্যায়ে চলে যায় তাহলে অবশ্যই শিশুকে চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে। হরমোনের ভারসাম্যহীনতা মেডিকেল টেস্টে নিশ্চিত হওয়া যায়। সেক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় চিকিৎসাই হচ্ছে প্রথম করণীয়। এছাড়া খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনও জরুরি।
এক্ষেত্রে বাবা মা যা করতে পারেন তা হলো, বাচ্চাকে নিয়মিত মাঠে খেলতে পাঠাতে পারেন। ঘণ্টার পর ঘণ্টা টেলিভিশন দেখা বা মোবাইলে গেইম খেলা বন্ধ করে দিতে হবে।
মা বাবার উচিত জাংকফুডের বদলে ঘরে তৈরি খাবারের প্রতি শিশুদের উৎসাহিত করা। মনে রাখতে হবে জাংক ফুড কখনই স্বাস্থ্যকর নয়, জাংকফুড বিষের মতো ক্ষতিকর। সুতরাং এ ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। অনেক বাবা মা শিশুকে আদর করে জাংক ফুড খাওয়ান। জেনে রাখা ভালো বাড়ন্ত বয়সের অজুহাতে অতিরিক্ত এবং পুষ্টিগুণহীন খাবার খাওয়াকে প্রশ্রয় দিলে শিশুর স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়বে।
শিশুর সুস্বাস্থ্যের জন্য জরুরি যে বিষয় সেটা হলো শাকসবজি, ফলমূল ও পানি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলা। প্রয়োজনে পরিবারের খাদ্যাভ্যাস স্বাস্থ্যকর করুন, বাচ্চারা তাদের চারপাশ থেকেই শেখে। বাবা-মা, ভাইবোন সবাই নিয়মিত শরীরচর্চা বা খেলাধুলায় অংশ নিন, তাতে সবাই যেমন সুস্থ থাকবেন তেমনি শিশুও স্থূলতা থেকে বাঁচবে।


যে কারনে আর বাড়ছে না সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সঃ


সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়াতে সংসদ অধিবেশন আনা সিদ্ধান্ত প্রস্তাবটি কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে গেছে।

আজ বৃহস্পতিবার রাতে সংসদের বেসরকারি দিবসে বগুড়া-৭ থেকে নির্বাচিত স্বতন্ত্র এমপি মো. রেজাউল করিম বাবলু প্রস্তাবটি উত্থাপন করেছেন।

‘সরকারি চাকরিতে ঢোকার বয়সসীমা ৩৫ বছরে উন্নীত করা হোক’ লিখে প্রস্তাবটি আনেন তিনি।

sangsad

তার এ সিদ্ধান্ত প্রস্তাবে ১০ জন সংসদ সদস্য সমর্থন দিয়ে সংশোধনী দেন। এর মধ্যে রুস্তম আলী ফরাজী (পিরোজপুর-৩) অবসরের বয়সসীমা ৬২ করার জন্য সংশোধনী দেন। শহিদুজ্জামান সরকার (নওগাঁ-২) ‘অবিলম্বে’

শব্দ সংযোজন, ছলিম উদ্দিন তরফদার (নওগাঁ-৩) অবসরের সীমা ৬২ বছর, ইসরাফিল আলম (নওগাঁ-৬) ‘অবিলম্বে’ শব্দ সংযোজন, সংরক্ষিত নারী আসনে রওশনারা মান্নান ‘অবিলম্বে’ শব্দ সংযোজন, ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল (চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১) অবসরের সময় ৬২ বছর,

সংরক্ষিত নারী আসনের মোসাম্মৎ খালেদা খানম ‘অবিলম্বে’ শব্দ সংযোজন, মোহাম্মদ এবাদুল করিম (ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫) ‘অবিলম্বে’ শব্দ সংযোজন, মোহাম্মদ সহিদুজ্জামান (মেহেরপুর-২) ‘অবিলম্বে’ শব্দ সংযোজন ও মোজাফফর হোসেন (জামালপুর-৫) অবসরের সীমা ৬২ করার প্রস্তাব দিয়ে বক্তব্য রেখেছেন।

এই প্রস্তাবে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, বাংলাদেশের রাজীনতির পরিস্থিতি এখন ভালো। এখন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিয়মিত পড়ালেখা হচ্ছে।

35সেশন জট হচ্ছে না। এজন্য একজন শিক্ষার্থী শিক্ষাজীবন শেষের পর ৬ থেকে ৭ বছর পান। এইসময় তারা বহু চাকরির পরীক্ষার অংশ নিতে পারেন।

তাছাড়াও আমাদের সংবিধান ও চাকরির বিধিমালায় আছে ন্যূনতম ২৫ বছর চাকরি না করলে পূর্ণ পপেনশন পাবেন না। সুতরাং কেউ যদি ৩৭ বছরে চাকরিতে যোগ দেন।

২৫ বছর পূর্ণ করতে হলে তাকে ৬২ অথবা ৬৩ বছর বয়সে অবসরে যেতে হবে। কিন্তু বর্তমানে আমাদের অবসরে যাওয়ার সময় ৫৯ বছর।

সুতরাং তাকে আরো তিন/চার বছর চাকরি করতে হবে। কিন্তু আইন অনুযায়ী সেই সুযোগ নেই। এর ফলে পূর্ণ পেনশন তিনি পাবেন না।

পেনশন পাওয়ার সময় নানা ধরনের জটিলতা দেখে দেবে তাছাড়া প্রতিবছর কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের বহু শিক্ষার্থী বের হয় তাদেরও চাকরি সুযোগ দেয়া দরকার।

তাই অবসরের সময় যদি বাড়ানো হয় তাহলে নতুনরা চাকরি থেকে বঞ্চিত হবে। সে কারণে আপাতত সরকারি চাকরিতে বয়স বাড়ানোর কোনো সুযোগ নেই।

এরপর তিনি প্রস্তাবটি প্রত্যাহারের অনুরোধ করেন তিনি। কিন্তু প্রস্তাবকারী স্বতন্ত্র এমপি তার প্রস্তাব তুলে নিতে অস্বীকৃতি জানালে পরে ভোট দেয়া হয়।

সংসদের আওয়ামী লীগের একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা থাকায় ভোটে প্রস্তাবটি প্রত্যাখ্যান হয়।

আদম (আঃ) থেকে নূহ (আঃ) পর্যন্ত দশ শতাব্দীর ব্যবধান ছিল। যার শেষদিকে ক্রমবর্ধমান মানবকুলে শিরক ও কুসংস্কারের আবির্ভাব ঘটে এবং তা বিস্তৃতি লাভ করে। ফলে তাদের সংশোধনের জন্য আল্লাহ নূহ (আঃ)-কে নবী ও রাসূল করে পাঠান। তিনি সাড়ে নয়শত বছরের দীর্ঘ বয়স লাভ করেছিলেন এবং সারা জীবন পথভোলা মানুষকে পথে আনার জন্য দাওয়াতে অতিবাহিত করেন। কিন্তু তাঁর কওম তাঁকে প্রত্যাখ্যান করে। ফলে আল্লাহর গযবে তারা নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। এরপরে আরও কয়েকটি কওম আল্লাহর অবাধ্যতার কারণে পরপর ধ্বংস হয়। এভাবে পৃথিবীতে আদি যুগে ধ্বংসপ্রাপ্ত ৬টি জাতির ঘটনা কুরআনের বিভিন্ন স্থানে বর্ণিত হয়েছে এবং কুরআনের মাধ্যমেই জগদ্বাসী তাদের খবর জানতে পেরেছে। যাতে মুসলিম উম্মাহ ও পৃথিবীবাসী তা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে। উক্ত ৬টি জাতি হ’ল- কওমে নূহ, ‘আদ, ছামূদ, কওমে লূত, মাদইয়ান ও কওমে ফেরাঊন। অবশ্য কুরআনে এ তালিকায় কওমে ইবরাহীমের কথাও এসেছে (তওবাহ ৯/৭০)। যদিও তারা একত্রে ধ্বংস হয়নি। তবে ইবরাহীমের ভাতিজা লূত-এর কওম একত্রে ধ্বংস ও নিশ্চিহ্ন হয়েছিল। আমরা এখানে প্রথমে নূহ (আঃ) ও তাঁর কওম সম্পর্কে আলোচনা করব।

নূহ (আঃ)-এর পরিচয় :

‘আবুল বাশার ছানী’ (ابوالبشرالثانى ) বা মানবজাতির দ্বিতীয় পিতা বলে খ্যাত নূহ (আলাইহিস সালাম) ছিলেন পিতা আদম (আলাইহিস সালাম)-এর দশম অথবা অষ্টম অধঃস্তন পুরুষ। তিনি ছিলেন দুনিয়াতে ১ম রাসূল।[1]

নূহ (আঃ)-এর চারটি পুত্র ছিলঃ সাম, হাম, ইয়াফিছ ও ইয়াম অথবা কেন‘আন।[2] প্রথম তিনজন ঈমান আনেন। কিন্তু শেষোক্ত জন কাফের হয়ে প্লাবনে ডুবে মারা যায়। নূহ (আঃ)-এর দাওয়াতে তাঁর কওমের হাতেগণা মাত্র কয়েকজন ঈমানদার ব্যক্তি সাড়া দেন এবং তারাই প্লাবনের সময় নৌকারোহণের মাধ্যমে নাজাত পান। নূহের কিশতীতে কয়জন ঈমানদার ব্যক্তি আরোহণ করে নাজাত পেয়েছিলেন, সে বিষয়ে কুরআনে বা হাদীছে কোন কিছুই বর্ণিত হয়নি। অমনিভাবে কিশতীটি কত বড় ছিল, কিভাবে ও কত দিনে তৈরী হয়েছিল, এসব বিষয়েও কিছু বর্ণিত হয়নি। এসব বিষয়ে যা কিছু বিভিন্ন তাফসীরে বর্ণিত হয়েছে, সবকিছুর ভিত্তি হ’ল ইস্রাঈলী উপকথা সমূহ। যার সঠিক কোন ভিত্তি নেই।[3] ইমাম তিরমিযী হযরত সামুরা (রাঃ) প্রমুখাৎ রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) হ’তে সূরা ছাফফাত ৭৭ আয়াতের তাফসীরে বর্ণনা করেন যে, নূহের প্লাবন শেষে কেবল তাঁর তিন পুত্র সাম, হাম ও ইয়াফেছ-এর বংশধরগণই অবশিষ্ট ছিল।[4] রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) আরও বলেন যে, سام أبو العرب وحام أبو الحبش و يافث أبو الروم. ‘সাম আরবের পিতা, হাম হাবশার পিতা এবং ইয়াফেছ রোমকদের (গ্রীক) পিতা’।[5]ইবনু আববাস ও ক্বাতাদাহ (রাঃ) বলেন, পরবর্তী মানব জাতি সবাই নূহের বংশধর’।[6]

আল্লাহ বলেন, وَجَعَلْنَا ذُرِّيَّتَهُ هُمُ الْبَاقِيْنَ. ‘আমরা তার (নূহের) বংশধরগণকেই অবশিষ্ট রেখেছি’ (ছাফফাত ৩৭/৭৭)। ফলে ইহুদী-খৃষ্টান সহ সকল ধর্মমতের লোকেরা নূহ (আঃ)-কে তাদের পিতা হিসাবে মর্যাদা দিয়ে থাকে। সাম ছিলেন তিন পুত্রের মধ্যে বড়। তিনি ছিলেনأبو العرب বা আরব জাতির পিতা। তাঁর বংশধরগণের মধ্যেই ছিলেন হযরত ইবরাহীম, ইসমাঈল, ইসহাক এবং ইসমাঈলের বংশধর ছিলেন মানবজাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান হযরত মুহাম্মাদ (ছাঃ)। ইসহাকের বংশধরগণের মধ্যে ছিলেন ইয়াকূব, ইউসুফ, মূসা, দাঊদ, সুলায়মান, ইউনুস, ইলিয়াস, ঈসা প্রমুখ নবী ও রাসূলগণ। হাম ও ইয়াফেছ-এর বংশধরগণের নিকটে প্রেরিত নবীগণের নাম জানা যায়নি। তবে আরবদের মধ্যকার চারজন নবী ছিলেন হূদ, ছালেহ, শু‘আয়েব ও মুহাম্মাদ (ছাঃ)।[7] অধিকাংশ ছাহাবীর মতে নূহ (আঃ) ছিলেন ইদরীস (আঃ)-এর পূর্বেকার নবী।[8] তিনিই ছিলেন জগতের প্রথম রাসূল।[9] ইবনু আববাস (রাঃ) বলেন, তিনি চল্লিশ বছর বয়সে নবুঅত প্রাপ্ত হন এবং মহাপ্লাবনের পর ষাট বছর জীবিত ছিলেন।[10] ফলে সুদীর্ঘকাল যাবত তিনি নবী হিসাবে শিরকে নিমজ্জিত হঠকারী কওমকে দাওয়াত দেন। প্লাবনের পর তাঁর সাথে নৌকারোহী মুমিন নর-নারীদের মাধ্যমে পৃথিবীতে নতুনভাবে আবাদ শুরু হয় এবং তাদেরকে তিনি সত্যের পথে পরিচালিত করেন। এ কারণে তাঁকে ‘মানব জাতির দ্বিতীয় পিতা’ বলা হয়।

আদম (আঃ) ৯৬০ বছর বেঁচে ছিলেন[11] এবং নূহ (আঃ) ৯৫০ বছর জীবন পেয়েছিলেন (আনকাবূত ২৯/১৪)। উল্লেখ্য যে, আদম ও নূহ (আঃ)-এর দীর্ঘ বয়স আল্লাহর বিশেষ দান ও তাঁদের মু‘জেযা স্বরূপ ছিল। নূহ (আঃ)-এর পুরুষানুক্রমিক বয়স তাঁর ন্যায় দীর্ঘ ছিল না। নূহ (আঃ) ইরাকের মূছেল নগরীতে স্বীয় সম্প্রদায়ের সাথে বসবাস করতেন। তারা বাহ্যতঃ সভ্য হ’লেও শিরকের অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিল। তিনি তাদের হেদায়াতের জন্য প্রেরিত হয়েছিলেন।

উল্লেখ্য যে, হযরত নূহ (আঃ) সম্পর্কে পবিত্র কুরআনের ২৮টি সূরায় ৮১টি আয়াতে বর্ণিত হয়েছে।[12]

তৎকালীন সামাজিক ও ধর্মীয় অবস্থা :

আদম (আঃ)-এর সময়ে ঈমানের সাথে শিরক ও কুফরের মুকাবিলা ছিল না। তখন সবাই তওহীদের অনুসারী একই উম্মতভুক্ত ছিল (বাক্বারাহ ২/২১৩)। তাঁর শরী‘আতের অধিকাংশ বিধানই ছিল পৃথিবী আবাদকরণ ও মানবীয় প্রয়োজনাদির সাথে সম্পৃক্ত। কিন্তু কালের বিবর্তনে মানুষের মধ্য শিরকের অনুপ্রবেশ ঘটে। নূহের কওম ওয়াদ, সুওয়া‘, ইয়াগূছ, ইয়াঊক্ব ও নাস্র প্রমুখ মৃত নেককার লোকদের অসীলায় আখেরাতে মুক্তি পাবার আশায় তাদের পূজা শুরু করে। এই পূজা তাদের কবরেও হ’তে পারে, কিংবা তাদের মূর্তি বানিয়েও হ’তে পারে। মুহাম্মাদ ইবনু ক্বায়েস বলেন, আদম ও নূহ (আঃ)-এর মধ্যবর্তী সময়কালের এই পাঁচজন ব্যক্তি নেককার ও সৎকর্মশীল বান্দা হিসাবে প্রসিদ্ধ ছিলেন। তাঁদের মৃত্যুর পর ভক্ত অনুসারীগণকে শয়তান এই বলে প্ররোচনা দেয় যে, এইসব নেককার মানুষের মূর্তি সামনে থাকলে তাদের দেখে আল্লাহর প্রতি ইবাদতে অধিক আগ্রহ সৃষ্টি হবে। ফলে তারা তাদের মূর্তি বানায়। অতঃপর উক্ত লোকদের মৃত্যুর পরে তাদের পরবর্তীগণ শয়তানের ধোঁকায় পড়ে ঐ মূর্তিগুলিকেই সরাসরি উপাস্য হিসাবে পূজা শুরু করে দেয়। তারা এইসব মূর্তির অসীলায় বৃষ্টি প্রার্থনা করত’।[13] আর এভাবেই পৃথিবীতে প্রথম মূর্তিপূজার শিরকের সূচনা হয়।

ইমাম বুখারী (রহঃ) হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আববাস (রাঃ) হ’তে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন যে, এই লোকগুলি হযরত নূহ (আঃ)-এর যুগের নেককার ব্যক্তি ছিলেন। তাদের মৃত্যুর পর শয়তান তাদের অনুসারীদের এই মর্মে ধোঁকা দিল যে, এঁদের বসার স্থানগুলিতে এক একটি মূর্তি বানাও ও তাদের নামে নামকরণ কর। লোকেরা তাই করল। ...

এই মূর্তিগুলি পরবর্তীকালে আরবদের মধ্যেও চালু ছিল। ‘ওয়াদ’ ছিল বনু কালবের জন্য দূমাতুল জান্দালে, সুওয়া‘ ছিল বনু হোযায়েলের জন্য, ইয়াগূছ ছিল বনু গুত্বায়েফ-এর জন্য জুরুফ নামক স্থানে, ইয়া‘ঊক্ব ছিল বনু হামদানের জন্য এবং নাস্র ছিল হিমইয়ার গোত্রের বনু যি-কালা এর জন্য’।[14]

ইবনু আবী হাতেম-এর বর্ণনায় এসেছে যে, ‘ওয়াদ’ ছিল এদের মধ্যে প্রথম এবং সর্বাধিক নেককার ব্যক্তি। তিনি মারা গেলে লোকেরা তার প্রতি ভক্তিতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। শয়তান এই সুযোগ গ্রহণ করে এবং লোকদেরকে তার মূর্তি বানাতে প্ররোচনা দেয়। ফলে ওয়াদ-এর মূর্তিই হ’ল পৃথিবীর সর্বপ্রথম মূর্তি, আল্লাহকে বাদ দিয়ে যার পূজা শুরু হয়’।[15]

অতএব পৃথিবীর প্রাচীনতম শিরক হ’ল নেককার মানুষের কবর অথবা তাদের মূর্তিপূজা। যা আজও প্রায় সকল ধর্মীয় সমাজে চালু আছে এবং বর্তমানে যা মুসলিম সমাজে স্থানপূজা, কবর পূজা, ছবি-প্রতিকৃতি, মিনার ও ভাষ্কর্য পূজায় রূপ নিয়েছে। উক্ত পাঁচটি মূর্তির মাহাত্ম্য ও তাদের প্রতি ভক্তি লোকদের হৃদয়ে এমনভাবে প্রোথিত হয়েছিল যে, তারা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে এবং পারস্পরিক চুক্তি সম্পাদনকালে তাদের নাম উল্লেখ করত। এতদ্ব্যতীত তারা নানাবিধ সামাজিক অনাচারে ডুবে গিয়েছিল। সম্প্রদায়ের এইরূপ পতন দশায় আল্লাহ তাদের হেদায়াতের জন্য নূহ (আঃ)-কে রাসূল হিসাবে প্রেরণ করেন (আ‘রাফ ৭/৬১)।

স্বীয় কওমের প্রতি নূহ (আঃ)-এর দাওয়াত :

আল্লাহ বলেন,

إِنَّا أَرْسَلْنَا نُوحاً إِلَى قَوْمِهِ أَنْ أَنذِرْ قَوْمَكَ مِن قَبْلِ أَن يَّأْتِيَهُمْ عَذَابٌ أَلِيمٌ، قَالَ يَا قَوْمِ إِنِّي لَكُمْ نَذِيرٌ مُّبِينٌ،َ أَنِ اعْبُدُوا اللهَ وَاتَّقُوهُ وَأَطِيعُونِ، يَغْفِرْ لَكُم مِّنْ ذُنُوْبِكُمْ وَيُؤَخِّرْكُمْ إِلَى أَجَلٍ مُّسَمًّى إِنَّ أَجَلَ اللهِ إِذَا جَاءَ لاَ يُؤَخَّرُ لَوْ كُنتُمْ تَعْلَمُونَ- (نوح ১-৪)-

‘আমরা নূহকে তার কওমের নিকটে প্রেরণ করলাম তাদের উপরে মর্মান্তিক আযাব নাযিল হওয়ার পূর্বেই তাদেরকে সতর্ক করার জন্য’। ‘নূহ তাদেরকে বলল, হে আমার জাতি! আমি তোমাদের জন্য স্পষ্ট সতর্ককারী’। ‘এ বিষয়ে যে তোমরা আল্লাহর ইবাদত কর, তাঁকে ভয় কর এবং আমার আনুগত্য কর’। ‘তাতে আল্লাহ তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করবেন এবং নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অবকাশ দিবেন। তবে এটা নিশ্চিত যে, আল্লাহর নির্ধারিত সময় যখন এসে যাবে, তখন তা এতটুকুও পিছানো হবে না। যদি তোমরা তা জানতে’ (নূহ ৭১/১-৪)।

অতঃপর তিনি তাদেরকে শিরক পরিত্যাগ করে পরিপূর্ণভাবে আল্লাহর ইবাদতে ফিরিয়ে আনার জন্য বান্দার উপরে আল্লাহর অসংখ্য অনুগ্রহ ও অগণিত নে‘মতরাজির কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন,

أَلَمْ تَرَوْا كَيْفَ خَلَقَ اللَّهُ سَبْعَ سَمَاوَاتٍ طِبَاقا، وََجَعَلَ الْقَمَرَ فِيهِنَّ نُوراً وَّجَعَلَ الشَّمْسَ سِرَاجاً، وَاللهُ أَنبَتَكُم مِّنَ الْأَرْضِ نَبَاتاً، ثُمَّ يُعِيدُكُمْ فِيهَا وَيُخْرِجُكُمْ إِخْرَاجاً، وَالله ُجَعَلَ لَكُمُ الْأَرْضَ بِسَاطاً، لِتَسْلُكُوا مِنْهَا سُبُلاً فِجَاجاً- (نوح ১৫-২০)-

‘তোমরা কি লক্ষ্য কর না, আল্লাহ কিভাবে সপ্ত আকাশ স্তরে স্তরে সৃষ্টি করেছেন’। ‘সেখানে তিনি চন্দ্রকে রেখেছেন আলো রূপে এবং সূর্যকে রেখেছেন প্রদীপ রূপে’। ‘আল্লাহ তোমাদেরকে মাটি থেকে উদ্গত করেছেন’। ‘অতঃপর তাতে ফিরিয়ে নিবেন ও আবার পুনরুত্থিত করবেন’। ‘আল্লাহ তোমাদের জন্য যমীনকে করেছেন বিছানা সদৃশ’। ‘যাতে তোমরা চলাফেরা করতে পার প্রশস্ত রাস্তাসমূহে’ (নূহ ৭১/১৫-২০)।

নূহ (আঃ) স্বীয় কওমকে দিন-রাত দাওয়াত দিতে থাকেন। তিনি তাদেরকে প্রকাশ্যে ও গোপনে বিভিন্ন পন্থায় ও পদ্ধতিতে দাওয়াত দেন। কিন্তু ফলাফল হয় নিতান্ত নৈরাশ্যজনক। তাঁর দাওয়াতে অতিষ্ট হয়ে তারা তাঁকে দেখলেই পালিয়ে যেত। কখনো কানে আঙ্গুল দিত। কখনো তাদের চেহারা কাপড় দিয়ে ঢেকে ফেলতো। তারা তাদের হঠকারিতা ও যিদে অটল থাকত এবং চরম ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করত’ (নূহ ৭১/৬-৯)। এক সময় কওমের সর্দাররা লোকদের ডেকে বলল, وَقَالُوا لاَ تَذَرُنَّ آلِهَتَكُمْ وَلاَ تَذَرُنَّ وَدّاً وَلاَ سُوَاعاً وَّلاَ يَغُوثَ وَيَعُوقَ وَنَسْراً- (نوح ২১-২৩)- (খবরদার!) ‘তোমরা তোমাদের পূর্ব পুরুষদের পূজিত উপাস্য ওয়াদ, সুওয়া‘, ইয়াগূছ, ইয়াঊক্ব, নাস্র-কে কখনোই পরিত্যাগ করবে না’। (এভাবে) ‘তারা বহু লোককে পথভ্রষ্ট করে এবং (তাদের ধনবল ও জনবল দিয়ে) নূহ-এর বিরুদ্ধে ভয়ানক সব চক্রান্ত শুরু করে’ (নূহ ৭১/২১-২৩)।

নূহ (আঃ)-এর বিরুদ্ধে পাঁচটি আপত্তি :

কওমের অবিশ্বাসী নেতারা জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য নূহ (আঃ)-এর বিরুদ্ধে পাঁচটি আপত্তি উত্থাপন করেছিল। যথাঃ (১) আপনি তো আমাদের মতই একজন মানুষ। নবী হ’লে তো ফেরেশতা হতেন। (২) আপনার অনুসারী হ’ল আমাদের মধ্যকার হীন ও কম বুদ্ধিসম্পন্ন লোকেরা (৩) কওমের উপরে আপনাদের কোন প্রাধান্য পরিদৃষ্ট হয় না (হূদ ১১/২৭)। (৪) আপনার দাওয়াত আমাদের বাপ-দাদাদের রীতি বিরোধী (৫) আপনি আসলে নেতৃত্বের অভিলাষী (মুমিনূন ২৩/২৪-২৫)। অতএব আপনাকে আমরা মিথ্যাবাদী মনে করি (হূদ ১১/২৭)।

জনগণকে ক্ষেপিয়ে তোলার জন্য নূহ-এর দাওয়াতকে ক্ষমতালোভী রাজনৈতিক আন্দোলন বলে আখ্যায়িত করে কাফের নেতারা বলল,

فَقَالَ الْمَلَأُ الَّذِينَ كَفَرُوْا مِنْ قَوْمِهِ مَا هَذَا إِلاَّ بَشَرٌ مِّثْلُكُمْ يُرِيدُ أَن يَّتَفَضَّلَ عَلَيْكُمْ وَلَوْ شَآءَ الله ُلَأَنزَلَ مَلَآئِكَةً مَّا سَمِعْنَا بِهَذَا فِيْ آبَائِنَا الْأَوَّلِيْنَ- (المؤمنون ২৪-২৫)-

‘এ লোক তো তোমাদের মতই একজন মানুষ। আসলে সে তোমাদের উপরে নেতৃত্ব করতে চায়। আল্লাহ ইচ্ছা করলে তো একজন ফেরেশতা পাঠাতে পারতেন। তাছাড়া এ লোক যেসব কথা বলছে, তাতো আমরা আমাদের বাপ-দাদাদের কাছে কখনো শুনিনি’। ‘আসলে লোকটার মধ্যে পাগলামী রয়েছে কিংবা তার সাথে কোন জিন রয়েছে। অতএব তোমরা এ ব্যক্তির দিকে ভ্রুক্ষেপ কর না। বরং কিছুদিন অপেক্ষা কর’ (মুমিনূন ২৩/২৪-২৫)। (এভাবে) ‘তারা তাঁকে সরাসরি পাগল বলে এবং (প্রাণে মারার) হুমকি দেয়’ (ক্বামার ৫৪/৯)।

আপত্তি সমূহের জওয়াব :

(১) গোত্রের নেতাদের উপরোক্ত আপত্তি ও অপবাদ সমূহের জবাবে নূহ (আঃ) বলেন,

قَالَ يَا قَوْمِ أَرَأَيْتُمْ إِنْ كُنْتُ عَلَى بَيِّنَةٍ مِّن رَّبِّيْ وَآتَانِيْ رَحْمَةً مِّنْ عِنْدِهِ فَعُمِّيَتْ عَلَيْكُمْ أَنُلْزِمُكُمُوْهَا وَأَنتُمْ لَهَا كَارِهُوْنَ- (هود ২৮)-

‘হে আমার কওম! আমি যদি আমার প্রভুর পক্ষ হ’তে স্পষ্ট দলীলের উপরে থাকি, আর তিনি যদি তাঁর পক্ষ হ’তে আমাকে রহমত দান করেন, আর সেসব থেকে যদি তোমাদের চক্ষু অন্ধ থাকে, তাহ’লে কি আমি তা তোমাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে তোমাদের উপরে চাপিয়ে দিতে পারি? (হূদ ১১/২৮)। একথা দ্বারা বুঝানো হয়েছে যে, নবুওয়াত ও রিসালাত চেয়ে পাওয়া যায় না। এটা সস্পূর্ণরূপে আল্লাহর ইচ্ছাধীন। তিনি মানুষের জন্য কোন ফেরেশতাকে নয়, বরং তাঁর মনোনীত কোন মানুষকেই নবী করে পাঠিয়ে থাকেন স্পষ্ট দলীল-প্রমাণ সহকারে। নূহ (আঃ) তাঁর কওমকে আরও বলেন,

أَوَعَجِبْتُمْ أَنْ جَاءَكُمْ ذِكْرٌ مِّن رَّبِّكُمْ عَلَى رَجُلٍ مِّنكُمْ لِيُنْذِرَكُمْ وَلِتَتَّقُوا وَلَعَلَّكُمْ تُرْحَمُوْنَ- (الأعراف ৬৪)-

‘তোমরা কি এ বিষয়ে আশ্চর্যবোধ করছ যে, তোমাদের পালনকর্তার পয়গাম তোমাদের মধ্য থেকেই একজনের মাধ্যমে তোমাদের কাছে এসেছে, যাতে সে তোমাদের ভীতি প্রদর্শন করে ও তার ফলে তোমরা আল্লাহর অনুগ্রহপ্রাপ্ত হও’ (আ‘রাফ ৭/৬৩)। আল্লাহ বলেন, ‘কিন্তু তারা নূহকে মিথ্যা সাব্যস্ত করে। তখন আমরা তাকে ও তার নৌকারোহী সাথীদেরকে মুক্ত করি এবং আমাদের আয়াত সমূহে মিথ্যারোপকারীদের ডুবিয়ে মারি। বস্ত্ততঃ তারা ছিল জ্ঞানান্ধ’ (আ‘রাফ ৭/৬৪)।

মুসলিম উম্মাহর মধ্যে একদল লোক শেষনবী মুহাম্মাদ (ছাঃ)-কে ‘নূরের নবী’ বলে পরোক্ষভাবে তাঁকে ‘ফেরেশতা নবী’ বানাতে চায়। এভাবে তারা বিগত যুগের কাফিরদের সন্দেহবাদের অনুসরণ করে মাত্র। অথচ আল্লাহ বলেন,

وَلَوْ جَعَلْنَاهُ مَلَكًا لَّجَعَلْنَاهُ رَجُلاً وَلَلَبَسْنَا عَلَيْهِم مَّا يَلْبِسُوْنَ- (الأنعام ৯)-

‘যদি আমরা কোন ফেরেশতাকে রাসূল করে পাঠাতাম, তবে সে মানুষের আকারেই হ’ত। কিন্তু এতেও তারা ঐ সন্দেহই প্রকাশ করত, যা এখন করছে’ (আন‘আম ৬/৯)।

(২) তাদের দ্বিতীয় আপত্তির জবাবে নূহ (আঃ) বলেন,

وَمَا أَنَا بِطَارِدِ الَّذِينَ آمَنُوْا إِنَّهُم مُّلاَقُوْ رَبِّهِمْ وَلَـكِنِّيْ أَرَاكُمْ قَوْماً تَجْهَلُوْنَ، وَيَا قَوْمِ مَن يَّنْصُرُنِيْ مِنَ اللهِ إِنْ طَرَدتُّهُمْ أَفَلاَ تَذَكَّرُوْنَ؟- (هود ২৯-৩০)-

‘আমি কোন (গরীব) ঈমানদার ব্যক্তিকে তাড়িয়ে দিতে পারি না। তারা অবশ্যই তাদের পালনকর্তার দীদার লাভে ধন্য হবে। বরং আমি তোমাদেরই মূর্খ দেখছি’। ‘হে আমার কওম! আমি যদি ঐসব লোকদের তাড়িয়ে দেই, তাহ’লে কে আমাকে আল্লাহর পাকড়াও থেকে রক্ষা করবে? তোমরা কি উপদেশ গ্রহণ করবে না? (হূদ ১১/২৯-৩০; শো‘আরা ২৬/১১১-১১৫)।

(৩) তৃতীয় আপত্তির জবাবে তিনি বলেন,

وَلاَ أَقُولُ لِلَّذِينَ تَزْدَرِي أَعْيُنُكُمْ لَن يُؤْتِيَهُمُ الله ُخَيْراً اللّهُ أَعْلَمُ بِمَا فِي أَنفُسِهِمْ إِنِّي إِذاً لَّمِنَ الظَّالِمِينَ- (هود ৩১)-

‘তোমাদের দৃষ্টিতে যারা দীনহীন-অবাঞ্ছিত ব্যক্তি তাদেরকে আল্লাহ কোনরূপ কল্যাণ দান করবেন না। তাদের মনের কথা আল্লাহ ভাল করেই জানেন। সুতরাং এমন কথা বললে আমি অন্যায়কারীদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাব’ (হূদ ১১/৩১)।

অতএব দুনিয়াবী প্রাধান্য মূলতঃ কোন প্রাধান্য নয়। পরকালীন উচ্চ মর্যাদাই হ’ল প্রকৃত মর্যাদা।

(৪) চতুর্থ আপত্তির জবাবে তিনি পয়গম্বরসুলভ উত্তর দিয়ে বলেন, قَالَ يَا قَوْمِ لَيْسَ بِيْ ضَلاَلَةٌ وَلَكِنِّيْ رَسُوْلٌ مِّن رَّبِّ الْعَالَمِيْنَ، أُبَلِّغُكُمْ رِسَالاَتِ رَبِّيْ وَأَنْصَحُ لَكُمْ وَأَعْلَمُ مِنَ اللهِ مَا لاَ تَعْلَمُونَ (الأعراف ৬১-৬২)- ‘হে আমার কওম! আমার মধ্যে কোনই পথভ্রষ্টতা নেই। বরং আমি বিশ্বপালকের পক্ষ হ’তে প্রেরিত রাসূল’। ‘আমি তোমাদের নিকটে আমার প্রভুর রিসালাত পৌঁছে দেই এবং আমি তোমাদেরকে সদুপদেশ দিয়ে থাকি। কেননা আমি আল্লাহর পক্ষ থেকে এমন বিষয় জানি, যা তোমরা জানো না’ (আ‘রাফ ৭/৬১-৬২)।

অতএব আল্লাহ প্রদত্ত রিসালাত তথা অহী-র বিধান পালন করা ও তা জনগণের নিকটে পৌঁছে দেওয়াই আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য- পিতৃধর্ম পালন করা নয়। বস্ত্ততঃ বাপ-দাদার ধর্মের দোহাই নূহ (আঃ) থেকে শুরু করে শেষনবী মুহাম্মাদ (ছাঃ) পর্যন্ত সবাইকে দেওয়া হয়েছিল। আর সেকারণে প্রায় সকল নবীকেই স্ব স্ব জাতির নিকট থেকে চরম নির্যাতন ভোগ করতে হয়েছিল।

(৫) অতঃপর নেতৃত্ব লাভের আশায় নূহ (আঃ) লোকদের নিকটে দাওয়াত দিচ্ছেন মর্মে তাদের পঞ্চম আপত্তির জবাবে তিনি স্পষ্টভাষায় বলে দেন যে,

وَيَا قَوْمِ لاَ أَسْئَلُكُمْ عَلَيْهِ مَالاً إِنْ أَجْرِيَ إِلاَّ عَلَى رَبِّ الْعَالَمِيْنَ- (الشعراء ১০৯)-

‘এই দাওয়াতের বিনিময়ে আমি তোমাদের কাছে কোন মাল-দৌলত বা কোন বিনিময় কামনা করি না। আমার পুরষ্কার তো কেবল বিশ্বপালকের (আল্লাহর) নিকটেই রয়েছে’ (শো‘আরা ২৬/১০৯; ইউনুস ১০/৭২; হূদ ১১/২৯)।

বস্ত্ততঃপক্ষে সকল নবীই একথা বলেছেন। শেষনবী মুহাম্মাদ (ছাঃ)-এর কাছে এসে তাঁর কওমের নেতারা যখন নেতৃত্ব গ্রহণের অথবা মাল-দৌলতের বিনিময়ে তাওহীদের দাওয়াত পরিত্যাগের প্রস্তাব দিয়েছিল, তখন তিনি তা প্রত্যাখ্যান করে বলেছিলেন, ‘যদি তোমরা আমার ডানহাতে সূর্য ও বামহাতে চন্দ্র এনে দাও, তথাপি আমি যে সত্য নিয়ে আগমন করেছি, তা পরিত্যাগ করব না’ (আর-রাহীক্ব পৃঃ ৯৭)।

বস্ত্ততঃ শিরকের মাধ্যমে দুনিয়া অর্জন সহজলভ্য হয় বিধায় যুগ যুগ ধরে দুনিয়াপূজারী এক শ্রেণীর বকধার্মিক লোক মূর্তি, কবর ও মাযার নিয়ে পড়ে আছে। লোকেরা তাদেরকে আল্লাহর অলী ভাবে। অথচ ওরা মূলতঃ শয়তানের অলী। ইবরাহীম (আঃ) এদের উদ্দেশ্যেই বলেছিলেন,

رَبِّ إِنَّهُنَّ أَضْلَلْنَ كَثِيرًا مِّنَ النَّاسِ فَمَنْ تَبِعَنِيْ فَإِنَّهُ مِنِّيْ وَمَنْ عَصَانِيْ فَإِنَّكَ غَفُوْرٌ رَّحِيْمٌ- (إبراهيم ৩৬)-

‘হে প্রভু! এ মূর্তিগুলি বহু লোককে পথভ্রষ্ট করেছে। এক্ষণে যারা আমার অনুগামী হয়েছে, কেবল তারাই আমার দলভুক্ত। আর যারা আমার অবাধ্যতা করেছে (তাদের ব্যাপারে আপনিই সবকিছু), নিশ্চয়ই আপনি ক্ষমাশীল ও দয়াবান’ (ইবরাহীম ১৪/৩৬)। নিঃসন্দেহে যারা শেষনবী মুহাম্মাদ (ছাঃ)-এর সত্যিকারের অনুসারী হবে, কেবল তারাই আখেরাতে মুক্তি পাবে। যেহেতু ‘শিরকপন্থীদের জন্য আল্লাহ জান্নাতকে হারাম করেছেন’ (মায়েদাহ ৫/৭২), সেহেতু শিরকের মাধ্যমে দুনিয়া অর্জনকারী লোকেরা এবং মুশরিক ব্যক্তিরা মুখে আল্লাহকে স্বীকার করলেও ওরা চিরস্থায়ীভাবে জাহান্নামের অধিবাসী হবে। অতএব হে মানুষ! শিরক হ’তে সাবধান হও!!

নূহ (আঃ)-এর দাওয়াতের ফলশ্রুতি :

আল্লাহ তা‘আলা নূহ (আঃ)-কে সাড়ে নয়শত বছরের সুদীর্ঘ জীবন দান করেছিলেন। তিনি এক পুরুষের পর দ্বিতীয় পুরুষকে অতঃপর তৃতীয় পুরুষকে শুধু এই আশায় দাওয়াত দিয়ে যাচ্ছিলেন যে, তারা ঈমান আনবে। কিন্তু শতাব্দীর পর শতাব্দী অক্লান্তভাবে দাওয়াত দেওয়া সত্ত্বেও তারা ঈমান আনেনি। মূলতঃ এই সময় নূহ (আঃ)-এর কওম জনবল ও অর্থবলে বিশ্বে অপ্রতিদ্বন্দ্বী ছিল। সংখ্যাধিক্যের কারণে ইরাকের ভূখন্ড ও পাহাড়েও তাদের আবাস সংকুলান হচ্ছিল না। আল্লাহর চিরন্তন নীতি এই যে, তিনি অবাধ্য জাতিকে সাময়িকভাবে অবকাশ দেন (বাক্বারাহ ২/১৫)। নূহের কওম সংখ্যাশক্তি ও ধনাঢ্যতার শিখরে উপনীত হয়ে দিগ্বিদিক জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিল। তারা নূহ (আঃ)-এর দাওয়াতকে তাচ্ছিল্য ভরে প্রত্যাখ্যান করেছিল। নূহ (আঃ) তাদেরকে দিবারাত্রি দাওয়াত দেন। কখনো গোপনে কখনো প্রকাশ্যে অর্থাৎ সকল পন্থা অবলম্বন করে তিনি নিজ কওমকে দ্বীনের পথে ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা করেন (নূহ ৭১/৫-৯)। আব্দুল্লাহ ইবনে আববাস (রাঃ) বলেন, এই সুদীর্ঘ দাওয়াতী যিন্দেগীতে তিনি যেমন কখনো চেষ্টায় ক্ষান্ত হননি, তেমনি কখনো নিরাশও হননি। সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে নানাবিধ নির্যাতনের সম্মুখীন হয়েও তিনি ছবর করেন। কওমের নেতারা বলল,

62
قَالُوْا لَئِن لَّمْ تَنْتَهِ يَا نُوْحُ لَتَكُوْنَنَّ مِنَ الْمَرْجُوْمِيْنَ- (الشعراء ১১৬)-

‘হে নূহ! যদি তুমি বিরত না হও, তবে পাথর মেরে তোমার মস্তক চূর্ণ করে দেওয়া হবে’ (শো‘আরা ২৬/১১৬)। তবুও বারবার আশাবাদী হয়ে তিনি সবাইকে দাওয়াত দিতে থাকেন। আর তাদের জন্য দো‘আ করে বলতে থাকেন, رَبِّ اغْفِرْ لِقَوْمِيْ إَنَّهُمْ لاَ يَعْلَمُوْنَ- ‘হে আমার পালনকর্তা! তুমি আমার কওমকে ক্ষমা কর। কেননা তারা জানে না’ (তাফসীর কুরতুবী, সূরা নূহ)।

ওদিকে তাঁর সম্প্রদায়ের অনীহা, অবজ্ঞা, তাচ্ছিল্য এবং ঔদ্ধত্য ক্রমেই বৃদ্ধি পেতে থাকে। মুহাম্মাদ ইবনু ইসহাক্ব বলেন, ولم يلق نبى من قومه من الأذى مثل نوح إلا نبى قُتل ‘নিহত কোন নবী ব্যতীত অন্য কোন নবী তার কওমের নিকট থেকে নূহের মত নির্যাতন ভোগ করেননি’ (ইবনু কাছীর, সূরা আ‘রাফ ৫৯-৬২)। বলা চলে যে, তাদের অহংকার ও অত্যাচার চরম সীমায় পৌঁছে গিয়েছিল এবং পাপ ষোলকলায় পূর্ণ হয়ে গিয়েছিল। ফলে এক পর্যায়ে নূহ (আঃ) স্বীয় কওমকে ডেকে বললেন,

يَا قَوْمِ إِنْ كَانَ كَبُرَ عَلَيْكُم مَّقَامِيْ وَتَذْكِيْرِيْ بِآيَاتِ اللّهِ فَعَلَى اللّهِ تَوَكَّلْتُ فَأَجْمِعُوْا أَمْرَكُمْ وَشُرَكَاءَكُمْ ثُمَّ لاَ يَكُنْ أَمْرُكُمْ عَلَيْكُمْ غُمَّةً ثُمَّ اقْضُواْ إِلَيَّ وَلاَ تُنْظِرُوْنِ، فَإِنْ تَوَلَّيْتُمْ فَمَا سَأَلْتُكُم مِّنْ أَجْرٍ إِنْ أَجْرِيَ إِلاَّ عَلَى اللهِ وَأُمِرْتُ أَنْ أَكُوْنَ مِنَ الْمُسْلِمِيْنَ، فََكَذَّبُوْهُ فَنَجَّيْنَاهُ وَمَن مَّعَهُ فِي الْفُلْكِ وَجَعَلْنَاهُمْ خَلاَئِفَ وَأَغْرَقْنَا الَّذِيْنَ كَذَّبُوْا بِآيَاتِنَا فَانْظُرْ كَيْفَ كَانَ عَاقِبَةُ الْمُنْذَرِيْنَ- (يونس ৭১-৭৩)-

‘হে আমার কওম! যদি তোমাদের মাঝে আমার অবস্থিতি ও আল্লাহর আয়াত সমূহের মাধ্যমে তোমাদের উপদেশ দেওয়া ভারি বলে মনে হয়, তবে আমি আল্লাহর উপরে ভরসা করছি। এখন তোমরা তোমাদের যাবতীয় শক্তি একত্রিত কর ও তোমাদের শরীকদের সমবেত কর, যাতে তোমাদের মধ্যে কোনরূপ দ্বিধা-সংকোচ না থাকে। অতঃপর আমার ব্যাপারে একটা ফায়ছালা করে ফেল এবং আমাকে মোটেও অবকাশ দিয়ো না’। ‘এরপরেও যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নাও। তবে জেনে রেখ, আমি তোমাদের কাছে কোনরূপ বিনিময় কামনা করি না। আমার বিনিময় কেবলমাত্র আল্লাহর নিকটেই রয়েছে। আর আমার প্রতি নির্দেশ রয়েছে যেন আমি আত্মসমর্পণকারীদের অন্তর্ভুক্ত হই’। ‘কিন্তু তারপরও তারা তাকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করল...’ (ইউনুস ১০/৭১-৭৩)। বলা বাহুল্য যে, এটা ছিল কওমের দুরাচার নেতাদের প্রতি নূহ (আঃ)-এর ছুঁড়ে দেওয়া চ্যালেঞ্জ, যার মুকাবিলা করা তাদের পক্ষে আদৌ সম্ভব ছিল না।

এ সময় আল্লাহ পাক অহী নাযিল করে বলেন,

أَنَّهُ لَن يُّؤْمِنَ مِنْ قَوْمِكَ إِلاَّ مَنْ قَدْ آمَنَ فَلاَ تَبْتَئِسْ بِمَا كَانُوْا يَفْعَلُوْنَ- (هود ৩৬)-

‘তোমার কওমের যারা ইতিমধ্যে ঈমান এনেছে, তারা ব্যতীত আর কেউ ঈমান আনবে না। অতএব তুমি ওদের কার্যকলাপে বিমর্ষ হয়ো না’ (হূদ ১১/৩৬)। এভাবে আল্লাহর অহী মারফত তিনি যখন জেনে নিলেন যে, এরা কেউ আর ঈমান আনবে না। বরং কুফর, শিরক ও পথভ্রষ্টতার উপরেই ওরা যিদ করে থাকবে, তখন নিরাশ হয়ে তিনি প্রার্থনা করলেন,

قَالَ رَبِّ انصُرْنِي بِمَا كَذَّبُوْنِ- (مؤمنون ২৬)- ‘হে আমার পালনকর্তা! আমাকে সাহায্য কর। কেননা ওরা আমাকে মিথ্যাবাদী সাব্যস্ত করেছে’ (মুমিনূন ২৩/২৬)। فَافْتَحْ بَيْنِيْ وَبَيْنَهُمْ فَتْحًا وَنَجِّنِيْ وَمَن مَّعِيَ مِنَ الْمُؤْمِنِيْنَ- (الشعراء ১১৮)- ‘অতএব তুমি আমার ও তাদের মাঝে চূড়ান্ত ফয়ছালা করে দাও এবং আমাকে ও আমার সাথী মুমিনদেরকে তুমি (ওদের হাত থেকে) মুক্ত কর’ (শো‘আরা ২৬/১১৮)। তিনি স্বীয় প্রভুকে আহবান করে বললেন, فَدَعَا رَبَّهُ أَنِّيْ مَغْلُوْبٌ فَانْتَصِرْ- (القمر ১০)- ‘আমি অপারগ হয়ে গেছি। এক্ষণে তুমি ওদের বদলা নাও’ (ক্বামার ৫৪/১০)। তিনি অতঃপর চূড়ান্তভাবে বদ দো‘আ করে বললেন,وَقَالَ نُوْحٌ رَّبِّ لاَ تَذَرْ عَلَى الْأَرْضِ مِنَ الْكَافِرِيْنَ دَيَّارًا، إِنَّكَ إِنْ تَذَرْهُمْ يُضِلُّوا عِبَادَكَ وَلاَ يَلِدُوْا إِلاَّ فَاجِرًا كَفَّارًا- (نوح ২৬-২৭)- ‘হে প্রভু! পৃথিবীতে একজন কাফের গৃহবাসীকেও তুমি ছেড়ে দিয়ো না’। ‘যদি তুমি ওদের রেহাই দাও, তাহ’লে ওরা তোমার বান্দাদের পথভ্রষ্ট করবে এবং ওরা কোন সন্তান জন্ম দিবে না পাপাচারী ও কাফের ব্যতীত’ (নূহ ৭১/২৬-২৭)।

বলা বাহুল্য, নূহ (আঃ)-এর এই দো‘আ আল্লাহ সাথে সাথে কবুল করেন। যার ফলে তারা ধ্বংস ও নিশ্চিহ্ন হ’ল এবং কেবলমাত্র মুষ্টিমেয় মুমিন নর-নারী মুক্তি পেলেন। বর্তমান পৃথিবীর সবাই তাদের বংশধর। আল্লাহ বলেন, ذُرِّيَّةَ مَنْ حَمَلْنَا مَعَ نُوحٍ إِنَّهُ كَانَ عَبْداً شَكُوْراً- ‘তোমরা তাদের বংশধর, যাদেরকে আমরা নূহের সাথে (নৌকায়) সওয়ার করিয়েছিলাম। বস্ত্ততঃ সে ছিল একজন কৃতজ্ঞ বান্দা’ (ইসরা ১৭/৩; ছাফফাত ৩৭/৭৭)।

গযবের কারণ : আল্লাহ বলেন, مِمَّا خَطِيئَاتِهِمْ أُغْرِقُوْا فَأُدْخِلُوْا نَاراً فَلَمْ يَجِدُوْا لَهُم مِّن دُوْنِ اللَّهِ أَنصَاراً- ‘তাদের পাপরাশির কারণে তাদেরকে (প্লাবনে) ডুবিয়ে মারা হয়েছিল। অতঃপর তাদেরকে (কবরের) অগ্নিতে প্রবেশ করানো হয়েছিল। কিন্তু নিজেদের জন্য আল্লাহর মুকাবেলায় কাউকে তারা সাহায্যকারী পায়নি’ (নূহ ৭১/২৫)। উপরোক্ত আয়াতে বুঝা যায় যে, পথভ্রষ্ট সমাজনেতাদের সাথে পুরা সমাজটাই পাপে নিমজ্জিত হয়েছিল। যেজন্য সর্বগ্রাসী প্লাবনের গযবে তাদেরকে ডুবিয়ে ধ্বংস করা হয়। এমনকি মৃত্যুর পর বরযখী জীবনে তাদেরকে কবর আযাবের অগ্নিকুন্ডে প্রবেশ করানো হয়েছে, সেকথাও আল্লাহ বলে দিয়েছেন। এতদ্ব্যতীত ক্বিয়ামতের দিন তাদের জন্য জাহান্নাম যে সুনিশ্চিত, সেকথাও বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। কেননা তারা সেদিন মুক্তির জন্য কোন সুফারিশকারী পাবেনা।

শিক্ষণীয় বিষয় : সমাজপরিচালনার জন্য সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ ব্যাপারে দল ও প্রার্থীবিহীন ইসলামী নেতৃত্ব নির্বাচন পদ্ধতি অনুসরণ করা আবশ্যক।

নূহের প্লাবন ও গযবের কুরআনী বিবরণ :

এ বিষয়ে সূরা হূদে পরপর ১২টি আয়াত নাযিল হয়েছে। যেমন, চূড়ান্ত গযব আসার পূর্বে আল্লাহ নূহ (আঃ)-কে বললেন,

وَاصْنَعِ الْفُلْكَ بِأَعْيُنِنَا وَوَحْيِنَا وَلاَ تُخَاطِبْنِيْ فِي الَّذِيْنَ ظَلَمُوْا إِنَّهُم مُّغْرَقُوْنَ، وَيَصْنَعُ الْفُلْكَ وَكُلَّمَا مَرَّ عَلَيْهِ مَلأٌ مِّن قَوْمِهِ سَخِرُواْ مِنْهُ قَالَ إِن تَسْخَرُوْا مِنَّا فَإِنَّا نَسْخَرُ مِنكُمْ كَمَا تَسْخَرُونَ، فَسَوْفَ تَعْلَمُونَ مَن يَّأْتِيهِ عَذَابٌ يُخْزِيْهِ وَيَحِلُّ عَلَيْهِ عَذَابٌ مُّقِيمٌ، حَتَّى إِذَا جَاءَ أَمْرُنَا وَفَارَ التَّنُّورُ قُلْنَا احْمِلْ فِيهَا مِن كُلٍّ زَوْجَيْنِ اثْنَيْنِ وَأَهْلَكَ إِلاَّ مَن سَبَقَ عَلَيْهِ الْقَوْلُ وَمَنْ آمَنَ وَمَا آمَنَ مَعَهُ إِلاَّ قَلِيلٌ، وَقَالَ ارْكَبُوْا فِيهَا بِسْمِ اللهِ مَجْرِيهَا وَمُرْسَاهَا إِنَّ رَبِّي لَغَفُورٌ رَّحِيمٌ، وَهِيَ تَجْرِي بِهِمْ فِيْ مَوْجٍ كَالْجِبَالِ وَنَادَى نُوحٌ ابْنَهُ وَكَانَ فِي مَعْزِلٍ يَا بُنَيَّ ارْكَب مَّعَنَا وَلاَ تَكُن مَّعَ الْكَافِرِينَ، قَالَ سَآوِي إِلَى جَبَلٍ يَعْصِمُنِي مِنَ الْمَاء قَالَ لاَ عَاصِمَ الْيَوْمَ مِنْ أَمْرِ اللهِ إِلاَّ مَن رَّحِمَ وَحَالَ بَيْنَهُمَا الْمَوْجُ فَكَانَ مِنَ الْمُغْرَقِينَ، وَقِيلَ يَا أَرْضُ ابْلَعِي مَاءَكِ وَيَا سَمَاء أَقْلِعِي وَغِيْضَ الْمَاء وَقُضِيَ الأَمْرُ وَاسْتَوَتْ عَلَى الْجُودِيِّ وَقِيلَ بُعْداً لِّلْقَوْمِ الظَّالِمِينَ، وَنَادَى نُوحٌ رَّبَّهُ فَقَالَ رَبِّ إِنَّ ابُنِي مِنْ أَهْلِي وَإِنَّ وَعْدَكَ الْحَقُّ وَأَنتَ أَحْكَمُ الْحَاكِمِينَ، قَالَ يَا نُوْحُ إِنَّهُ لَيْسَ مِنْ أَهْلِكَ إِنَّهُ عَمَلٌ غَيْرُ صَالِحٍ فَلاَ تَسْأَلْنِ مَا لَيْسَ لَكَ بِهِ عِلْمٌ إِنِّي أَعِظُكَ أَن تَكُونَ مِنَ الْجَاهِلِينَ، قَالَ رَبِّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ أَنْ أَسْأَلَكَ مَا لَيْسَ لِي بِهِ عِلْمٌ وَإِلاَّ تَغْفِرْ لِي وَتَرْحَمْنِي أَكُن مِّنَ الْخَاسِرِينَ، قِيلَ يَا نُوحُ اهْبِطْ بِسَلاَمٍ مِّنَّا وَبَركَاتٍ عَلَيْكَ وَعَلَى أُمَمٍ مِّمَّن مَّعَكَ وَأُمَمٌ سَنُمَتِّعُهُمْ ثُمَّ يَمَسُّهُمْ مِّنَّا عَذَابٌ أَلِيمٌ- (هود ৩৭-৪৮)-

‘তুমি আমার সম্মুখে আমারই নির্দেশনা মোতাবেক একটা নৌকা তৈরী কর এবং (স্বজাতির প্রতি দয়া পরবশ হয়ে) যালেমদের ব্যাপারে আমাকে কোন কথা বলো না। অবশ্যই ওরা ডুবে মরবে’ (হূদ ১১/৩৭)। আল্লাহ বলেন, ‘অতঃপর নূহ নৌকা তৈরী শুরু করল। তার কওমের নেতারা যখন পাশ দিয়ে যেত, তখন তারা তাকে বিদ্রুপ করত। নূহ তাদের বলল, তোমরা যদি আমাদের উপহাস করে থাক, তবে জেনে রেখো তোমরা যেমন আমাদের উপহাস করছ, আমরাও তেমনি তোমাদের উপহাস করছি’ (৩৮)। ‘অচিরেই তোমরা জানতে পারবে লাঞ্ছনাকর আযাব কাদের উপরে আসে এবং কাদের উপরে নেমে আসে চিরস্থায়ী গযব’ (৩৯)। আল্লাহ বলেন, ‘অবশেষে যখন আমার হুকুম এসে গেল এবং চুলা উদ্বেলিত হয়ে উঠল, (অর্থাৎ রান্নার চুলা হ’তে পানি উথলে উঠলো), তখন আমি বললাম, সর্বপ্রকার জোড়ার দু’টি করে এবং যাদের উপরে পূর্বেই হুকুম নির্ধারিত হয়ে গেছে, তাদের বাদ দিয়ে তোমার পরিবারবর্গ ও সকল ঈমানদারগণকে নৌকায় তুলে নাও। বলা বাহুল্য, অতি অল্প সংখ্যক লোকই তার সাথে ঈমান এনেছিল’ (৪০)। ‘নূহ তাঁদের বলল, তোমরা এতে আরোহণ কর। আল্লাহর নামেই এর গতি ও স্থিতি। নিশ্চয়ই আমার প্রভু অতীব ক্ষমাশীল ও দয়াবান’ (৪১)। ‘অতঃপর নৌকাখানি তাদের বহন করে নিয়ে চলল পর্বতপ্রমাণ তরঙ্গমালার মাঝ দিয়ে। এ সময় নূহ তার পুত্রকে (ইয়ামকে) ডাক দিল- যখন সে দূরে ছিল, হে বৎস! আমাদের সাথে আরোহণ কর, কাফেরদের সাথে থেকো না’ (৪২)। ‘সে বলল, অচিরেই আমি কোন পাহাড়ে আশ্রয় নেব। যা আমাকে প্লাবনের পানি হ’তে রক্ষা করবে’। নূহ বলল, ‘আজকের দিনে আল্লাহর হুকুম থেকে কারু রক্ষা নেই, একমাত্র তিনি যাকে দয়া করবেন সে ব্যতীত। এমন সময় পিতা-পুত্র উভয়ের মাঝে বড় একটা ঢেউ এসে আড়াল করল এবং সে ডুবে গেল’ (৪৩)। অতঃপর নির্দেশ দেওয়া হ’ল, হে পৃথিবী! তোমার পানি গিলে ফেল (অর্থাৎ হে প্লাবনের পানি! নেমে যাও)। হে আকাশ! ক্ষান্ত হও (অর্থাৎ তোমার বিরামহীন বৃষ্টি বন্ধ কর)। অতঃপর পানি হরাস পেল ও গযব শেষ হ’ল। ওদিকে জূদী পাহাড়ে গিয়ে নৌকা ভিড়ল এবং ঘোষণা করা হ’ল, যালেমরা নিপাত যাও’ (৪৪)। ‘এ সময় নূহ তার প্রভুকে ডেকে বলল, হে আমার পালনকর্তা! আমার পুত্র তো আমার পরিবারের অন্তর্ভুক্ত, আর তোমার ওয়াদাও নিঃসন্দেহে সত্য, আর তুমিই সর্বাপেক্ষা বিজ্ঞ ফায়ছালাকারী (৪৫)। ‘আল্লাহ বললেন, হে নূহ! নিশ্চয়ই সে তোমার পরিবারভুক্ত নয়। নিশ্চয়ই সে দুরাচার। তুমি আমার নিকটে এমন বিষয়ে আবেদন কর না, যে বিষয়ে তোমার জ্ঞান নেই। আমি তোমাকে সতর্ক করে দিচ্ছি যেন জাহিলদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না’ (৪৬)। ‘নূহ বলল, হে আমার পালনকর্তা! আমার অজানা বিষয়ে আবেদন করা হ’তে আমি তোমার নিকটে পানাহ চাচ্ছি। তুমি যদি আমাকে ক্ষমা না কর ও অনুগ্রহ না কর, তাহ’লে আমি ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাব’ (৪৭)। ‘বলা হ’ল, হে নূহ! এখন (নৌকা থেকে) অবতরণ কর আমাদের পক্ষ হ’তে নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধি সহকারে তোমার উপর ও তোমার সঙ্গী দলগুলির উপর এবং সেই (ভবিষ্যৎ) সম্প্রদায়গুলির উপর- যাদেরকে আমরা সত্বর সম্পদরাজি দান করব। অতঃপর তাদের উপরে আমাদের পক্ষ হ’তে মর্মান্তিক আযাব স্পর্শ করবে’ (হূদ ১১/৩৭-৪৮)।

মাক্কী জীবনের চরম আতংক ও উৎকণ্ঠার মধ্যে সূরা হূদ নাযিল করে সেখানে যথাক্রমে নূহ, হূদ, ছালেহ, ইব্রাহীম, লূত, শু‘আয়েব ও মূসা প্রমুখ বিগত নবী ও রাসূলগণের ও তাদের সম্প্রদায়ের কাহিনী সংক্ষেপে বর্ণনার মাধ্যমে রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) ও তাঁর সাথীদেরকে আল্লাহ সান্ত্বনা দিয়েছেন। যেমন প্রথমে নূহ (আঃ)-এর কাহিনী বর্ণনা শেষে আল্লাহ বলেন, تِلْكَ مِنْ أَنبَاءِ الْغَيْبِ نُوْحِيْهَا إِلَيْكَ مَا كُنْتَ تَعْلَمُهَا أَنْتَ وَلاَ قَوْمُكَ مِنْ قَبْلِ هَـذَا فَاصْبِرْ إِنَّ الْعَاقِبَةَ لِلْمُتَّقِيْنَ- (هود ৪৯)- ‘এটি গায়েবের খবর যা আমরা আপনার নিকটে অহী করেছি। যা ইতিপূর্বে আপনি বা আপনার সম্প্রদায় জানতো না। অতএব আপনি ধৈর্য ধারণ করুন। নিশ্চয়ই শুভ পরিণাম কেবল আল্লাহভীরুদের জন্যই’ (হূদ ১১/৪৯)। বস্ত্ততঃ কুরআনের মাধ্যমেই পৃথিবীবাসী সর্বপ্রথম বিগত যুগের এই সব ধ্বংসপ্রাপ্ত জাতির খবর জানতে পেরেছে।

অন্যান্য বিবরণ :

সূরা হূদে বর্ণিত উপরোক্ত আয়াত সমূহে নূহ (আঃ)-এর প্লাবনের নাতিদীর্ঘ ঘটনা বিবৃত হয়েছে। কুরআন তার বাকরীতি অনুযায়ী কেবল প্রয়োজনীয় কথাগুলিই বলে দিয়েছে। বাদবাকী ব্যাখ্যা সমূহ মোটামুটি নিম্নরূপঃ

(১) কিশতী : নূহ (আঃ)-কে যখন নৌকা তৈরীর নির্দেশ দেওয়া হয়, তখন তিনি নৌকাও চ

• the Golden Ball (currently commercially termed "adidas Golden Ball") for best player, first awarded in 1982;

ওয়ানডে স্টাটাস পেলো যুক্তরাষ্ট্র ক্রিকেট দল

অভিনন্দন যুক্তরাষ্ট্র ক্রিকেট দলকে

প্রতারণা

2. সে ব্যক্তি দোযখে প্রবেশ করবেনা , যে আল্লাহর ভয়ে কাঁদে। [তিরমিযী]

৯৮৯ সাল থেকে এই মঙ্গল শোভাযাত্রা পহেলা বৈশাখ উৎসবের একটি অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। এছাড়াও ১৯৬৭ সাল থেকে প্রতি বছর এই দিনে ছায়ানটে শিল্পিরা গানের মাধ্যমে নতুন বছরকে বরন আসছে।

সাশ্রয়ী মূল্যে নতুন নতুন পণ্যের বিশাল সম্ভার নিয়ে Trig.com.bd সব সময় আপনার পাশে !! আমাদের ওয়েবসাইটে আপনি পাবেন আপনার প্রতিদিন এর দরকারি বিভিন্ন জিনিস তাছাড়াও নানান রকমের আকর্ষণীয় পণ্য !!! আর আমাদের নিয়মিত চমকপ্রদ অফার গুলোতো থাকছেই !!! এবার শপিং🛍 হোক মন খুলে !!!

🛒 👌আপনার পছন্দের পণ্য পেতে
আপনার নম্বরটি ইনবক্স করুন 💌
অথবা কল করুন 01844488899 ☎️
ভিজিট করুন - https://trig.com.bd

সৌরজগৎ বলতে সূর্য এবং এর সাথে মহাকর্ষীয়ভাবে আবদ্ধ সকল জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক বস্তুকে বোঝায়।

তওবার দো‘আ :
(১) أَسْتَغْفِرُ اللهَ الَّذِيْ لآ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّوْمُ وَأَتُوْبُ إِلَيْهِ আস্তাগফিরুল্লা-হাল্লাযী লা ইলা-হা ইল্লা হুওয়াল হাইয়ুল ক্বাইয়ূমু ওয়া আতূবু ইলাইহে’ (আমি আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি। যিনি ব্যতীত কোন উপাস্য নেই। যিনি চিরঞ্জীব ও বিশ্বচরাচরের ধারক এবং আমি তাঁর দিকেই ফিরে যাচ্ছি (বা তওবা করছি)।[133]

শুভ সকাল

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রথম গভর্নর কে ছিলেন?
এ এন এম হামিদুল্লাহ।

যদি কোনো নারীর ফাসি হয়, ফাসিতে যাওয়ার আগেও সে তার প্রসাধন ঠিক করার জন্য সময় চাইবে।



ডাকসু নির্বাচনে সহসভাপতি (ভিপি) হিসেবে নুরুল হককে মেনে নিতে চায় না ছাত্রলীগ। নুরুল ভিপি হওয়ার প্রতিবাদে ছাত্রলীগের কর্মীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামানের বাসভবনের সামনে অবস্থান করছে। তারা সেখানে বিক্ষোভ করছে।

Eprothom Alo
আজ মঙ্গলবার সকালে দেখা যায়, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন আছে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, নুরুল হক জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তাই তাঁকে তারা ভিপি হিসেবে মানবে না।

উপাচার্যের বাসভবনের সামনে ছাত্রলীগের অবস্থান। ছবি: সাইফুল ইসলামউপাচার্যের বাসভবনের সামনে ছাত্রলীগের অবস্থান। ছবি: সাইফুল ইসলাম

নীলক্ষেত মোড়ে ক্যাম্পাসে ঢুকতে রাস্তা বন্ধ করে রাখা হয়েছে। ছাত্রলীগ কর্মী ও সমর্থকেরা ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে স্লোগান দিচ্ছে ‘প্রহসনের নির্বাচন মানি না, মানবো না।’ তাঁরা শিবিরের বিরুদ্ধে স্লোগান দিচ্ছে।

বিক্ষোভের সময় উপাচার্য তাঁর বাসভবনেই ছিলেন।

উপাচার্যের বাসভবনের কাছে রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ছবি: সাইফুল ইসলামউপাচার্যের বাসভবনের কাছে রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ছবি: সাইফুল ইসলামডাকসুর নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানীর ভাষ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ধর্মভিত্তিক দল বা শিবিরের রাজনীতি থেকে মুক্ত। নুরুল হক জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। নুরুলকে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছে না বিশ্ববিদ্যালয়। তাই আমাদের সংগঠনসহ সাধারণ অনেক শিক্ষার্থী বিক্ষোভ করছে। রাতেও প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ হয়েছে। শান্তিপূর্ণভাবেই শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

নীলক্ষেত মোড়ে ক্যাম্পাসে ঢোকার রাস্তা বন্ধ। ছবি: সুহাদা আফরিননীলক্ষেত মোড়ে ক্যাম্পাসে ঢোকার রাস্তা বন্ধ। ছবি: সুহাদা আফরিন

গতকাল রাতে ভিপি পদে বিজয়ী হিসেবে নুরুল হকের নাম ঘোষণার পর থেকে ক্ষোভে ফেটে পড়ে ছাত্রলীগ। রাতে ফল ঘোষণার সময় সিনেট ভবনের চারপাশে বিক্ষোভ করতে থাকে ছাত্রলীগের নেতা–কর্মীরা। সেখানে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে উপাচার্য অনেকটা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। পরে তিনি বাসায় ফিরে যান।

উপাচার্যের বাসভবনের কাছে রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ছবি: সুহাদা আফরিনউপাচার্যের বাসভবনের কাছে রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ছবি: সুহাদা আফরিন

দীর্ঘ ২৮ বছর ১০ মাস পর ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন হয়েছে। কিন্তু নির্বাচনের উৎসাহ ও আনন্দ ভোটের দিনে বেশ কিছু অনিয়মের কারণে অনেকটাই ম্লান হয়ে গেছে। একপর্যায়ে ছাত্রলীগ বাদে প্রায় সব প্যানেল নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেয়। ফল ঘোষণা নিয়েও গভীর রাত পর্যন্ত অপেক্ষায় রাখে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

উপাচার্যের বাসভবনের সামনে ছাত্রলীগ কর্মীদের অবস্থান ও বিক্ষোভ। ছবি: দীপু মালাকারউপাচার্যের বাসভবনের সামনে ছাত্রলীগ কর্মীদের অবস্থান ও বিক্ষোভ। ছবি: দীপু মালাকার

গত রাত সোয়া তিনটায় ঘোষিত ফলে দেখা যায়, ভোট বর্জন করেও সহসভাপতি (ভিপি) পদে নির্বাচিত হয়েছেন নুরুল হক। সাধারণ সম্পাদক (জিএস) পদে নির্বাচিত হয়েছেন ছাত্রলীগের গোলাম রাব্বানী। সহসাধারণ সম্পাদক (এজিএস) হয়েছেন সাদ্দাম হোসেন। ডাকসুর মোট ২৫টি পদের মধ্যে ২৩ টিতেই ছাত্রলীগের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন।

উপাচার্যের বাসভবনের সামনে পুলিশের অবস্থান। ছবি: দীপু মালাকারউপাচার্যের বাসভবনের সামনে পুলিশের অবস্থান। ছবি: দীপু মালাকার

১৮টি হল সংসদের মধ্যে ১২ টিতে ভিপি পদে জয়ী হয়েছে ছাত্রলীগ। বাকি ছয়টি হলে ভিপি পদে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। ছাত্রদের হলে ছাত্রলীগ প্রায় একচেটিয়া জয় পেলেও ছাত্রীদের পাঁচটি হলের মধ্যে চারটিতেই হেরেছে তারা।

ওয়েলিংটন টেস্টের প্রথম দুই দিন বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর তৃতীয় দিনে শুরু হয় খেলা। ওপেনিংয়ে তামিম-সাদমান পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের জুটি গড়লেও প্রথম ইনিংসে ২১১ রানে গুটিয়ে গেছে বাংলাদেশ

Incepta
‘মর্নিং শোজ দ্য ডে’—দিনটি কেমন যাবে, তা সকাল দেখলে বোঝা যায়। অর্থাৎ সকালটা ভালো হলে দিনটা ভালো যাবে বলেই ধরে নেওয়া হয়। ওয়েলিংটন টেস্টে বাংলাদেশ দলের জন্য কথাটি খাটছে না। দুই ওপেনার কী দুর্দান্ত শুরু করেছিলেন! কিন্তু ১১৯ থেকে ১৩৪—এই ১৬ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারানোয় দুর্দান্ত শুরু করেও খুব একটা লাভ হয়নি। অবশ্য তামিম-সাদমান যখন ব্যাট করছিলেন, তখন কে জানত, মিডল অর্ডারে ছোটখাটো মড়ক লাগবে! দুই ওপেনারের ব্যাটিং দেখে মনে হতেই পারে নিউজিল্যান্ড সফর তাঁদের দুজনেরই বিশেষ পছন্দের।

বৃষ্টিতে ভেসে গেছে টেস্টের প্রথম দুই দিন। পাঁচ দিনের টেস্ট তাই পরিণত হয়েছে তিন দিনের ম্যাচে। টানা দুই দিন ঢেকে রাখায় উইকেট একটু নরম হয়ে পড়াই স্বাভাবিক। বাউন্সও অসমান হওয়ার কথা। যার মানে, ব্যাটিং করা সহজ হবে না। আজ তৃতীয় দিনে নিউজিল্যান্ড টস জিতে ফিল্ডিংয়ে নেমে পড়তে তাই দেরি করেনি। লক্ষ্য পরিষ্কার। প্রতিপক্ষকে যত দ্রুত সম্ভব গুটিয়ে দাও। কিন্তু তামিম-সাদমান যতক্ষণ উইকেটে ছিলেন, তাঁদের কিছুটা হলেও হতাশ হতে হয়েছে। বেশি না, ৭৫ রানের জুটি গড়েছেন দুই ওপেনার। তাতে ছিল ধারাবাহিকতার প্রতিচ্ছবি। এবার নিউজিল্যান্ড সফরে এ নিয়ে টানা তিন ইনিংসে পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের জুটি গড়লেন তামিম-সাদমান।

নিউজিল্যান্ড এমনিতেই প্রতিপক্ষ দলগুলোর জন্য বেশ কঠিন জায়গা। এক দক্ষিণ আফ্রিকা ছাড়া আর কোনো দলেরই ব্যাটিং গড় পঁয়ত্রিশের ওপাশে যেতে পারেনি নিউজিল্যান্ডে। আর ওপেনারদের ক্ষেত্রে অসুবিধা তো আরও বেশি। শীতল বাতাস আর মেঘাচ্ছন্ন পরিবেশে নতুন বলের গতি আর সুইং সামলানোর পরীক্ষা দিতে হয়। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ভারত, ইংল্যান্ড, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার মতো দলগুলোর ওপেনিং জুটির ব্যাটিং গড় চৌত্রিশের নিচে। তামিম-সাদমান সে তুলনায় ভালোই করেছেন। তাতে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে গত ১৯ বছরের মধ্যে সফরকারি দলগুলোর ওপেনারদের মধ্যে তাঁরা একটি জায়গায় ছাপিয়ে গেছেন সবাইকে!

২০০০ সাল থেকে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে সফরকারি দলের কোনো ওপেনিং জুটিই টানা তিন ইনিংসে পঞ্চাশোর্ধ্ব রান তুলতে পারেনি। তামিম-সাদমান গত ১৯ বছরের মধ্যে নিউজিল্যান্ডে সফরকারি দলের প্রথম ওপেনিং জুটি হিসেবে এই নজির গড়লেন। হ্যামিল্টন টেস্টে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে ৫৭ এবং দ্বিতীয় ইনিংসে ৮৮ রানের জুটি গড়েছিলেন দুজন। তাঁদের আগে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টানা তিন ইনিংসে সফরকারি দলের হয়ে পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের জুটি গড়েছিলেন হার্শেল গিবস ও গ্যারি কারস্টেন।

টেস্টে বাংলাদেশের ওপেনিং জুটির কাছ থেকে টানা তিন ইনিংসে পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের জুটি সবশেষ দেখা গেছে ২০১৭ সালের মার্চে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার মিলে ১১৮, ৬৭ ও ৯৫ রানের জুটি গড়েছিলেন। আজ ওয়েলিংটনে তামিম-সাদমান ভালো শুরুর পরও কিন্তু বাংলাদেশের শেষটা ভালো হয়নি। প্রথম ইনিংসে ২১১ রানে গুটিয়ে গেছে বাংলাদেশ।

আজকের কুইজ (19-May-2019)

আজ অংশগ্রহণ করেছেন:2133 জন
প্রশ্নঃ ‘মাফিয়া’ আন্তর্জাতিক সন্ত্রাশী একটি দলের নাম। প্রায় ৫ হাজার সদস্য রয়েছে এই দলে, যারা মাদক চোরাচালান থেকে শুরু করে খুন, অপহরন এর মত কাজ করে থাকে। বাংলাদেশেও এর যথেষ্ট প্রভাব লক্ষ করা যায়। মার্কিন সাময়িকী ফোর্বস-এর বিশ্বের শীর্ষ পলাতক অপরাধীদের তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছেন এই সন্ত্রশী গ্রুপের প্রধানের নাম। ‘মাফিয়া’ এর প্রধানের নাম কি?
(A) দাউদ ইব্রাহিম
(B) জুবিনা জেরিন
(C) ছোটা শাকিলক