About Abidur Rahman

ইন্টারনেট থেকে পাওয়া..
--
নিজ শিশুর ধর্ষণ বা যৌন অত্যাচার ঠেকাতে আপনার যা করণীয় ।

উচিত কথা বললে তো অনেকের পছন্দ হয় না, তবু বলি। নিজের কন্যা সন্তান, এমনকি নবজাতক হলেও আপনার অনুপস্থিতিতে কোনো পুরুষ আত্মীয়ের জিম্মায় দিবেন না। যতো নিকট আত্মীয়ই হোক না কেন। এইখানে কেউ আবার এসে নারী পুরুষ ত্যানা প্যাঁচাইয়েন না। কারণ আপনিও জানেন আমিও জানি যে, অন্তত বাংলাদেশে যৌন নির্যাতকদের মধ্যে পুরুষের শতকরা হার ৯৯.৯৯%। ছেলে বাচ্চাদের ব্যাপারেও একইরকম সাবধানতা অবলম্বন করবেন।

নিজের শিশু সন্তানকে নিজের অনুপস্থিতিতে স্বল্প পরিচিত মানুষ দূরে থাক, কোনো আত্মীয়ের বাসায় রাতে থাকতে দেবেন না, আই রিপিট, কোনো আত্মীয়ের বাসায়। ফুফুর বাড়ি, খালার বাড়ি, নানার বাড়ি, দাদার বাড়ি কোথাও না। কোথাও থাকতে দিলে আপনাকে দাওয়াত না দিলেও লজ্জা শরম ত্যাগ করে গাঁট্টি বোঁচকা নিয়ে তাদের বাসায় বাচ্চার সাথে থাকতে চলে যান, যদি আত্মীয়ের বাসায় রাতে সন্তানকে রাখার বাধ্যবাধকতা থাকে। একটা জিনিস মনে রাখবেন। যতগুলো যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘটে তার অধিকাংশই ঘটে নিকট আত্মীয় বা পরিচিত লোকজনের মাধ্যমে। অমুকে আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু কাজেই মেয়েকে তার সাথে দোকানে পাঠিয়ে দিলাম, আংকেল চকলেট কিনে দিবে বলে, এতবড়ো বলদামি কইরেন না।

নিজের তত্ত্বাবধান ছাড়া প্রতিবেশীর বাসায় শিশুসন্তানকে খেলতে পাঠাবেন না। আপনার প্রতিবেশী আপনার জন্য ভালো, আপনার সন্তানের জন্য ভালো নাও হতে পারে।

বাচ্চাকে মাদ্রাসায় দিয়ে বেহেশত কামাবেন ভালো কথা। আপনার বেহেশতের দাম যেন আপনার সন্তানকে জীবন দিয়ে চুকাতে না হয়। মাদ্রাসায় শিশু সন্তান যেতে না চাইলে, কান্নাকাটি করলে, ভয় পেলে তাকে জোর করে ওই নরকে ঠেলে পাঠাবেন না। সন্তান হুজুরের নামে কিছু বললে বিশ্বাস করতে শেখেন। “হুজুরের তো দাড়ি আছে অতএব বিরাট সুফী মানুষ” এই ধারণা নিয়ে বসে থাকবেন না। সন্তানের ঘাড়ে পাড়া দিয়ে বেহেশতে যাবেন এই চিন্তা ছেড়ে নিজে কষ্ট করে বেহেশত উপার্জন করেন।

শিশু সন্তানকে ড্রাইভারের সাথে স্কুলে পাঠাবেন না। কাজের লোকের সাথে দোকানে পাঠাবেন না। নিজেরা সাথে যাওয়া আসা করবেন। ব্যস্ততার দোহাই দেবেন না। আপনার জীবনের কোনো কাজই আপনার সন্তানের নিরাপত্তার চেয়ে বেশি জরুরি না। যদি অন্যান্য কাজকে সন্তানের নিরাপত্তার চেয়ে জরুরি মনে করেন, তবে সন্তানের জন্ম দিয়েন না। এত অধিক জনসংখ্যার দেশে কেউ আপনাদের মতো মানুষদের পায়ে ধরে সাধে নাই বাচ্চা জন্ম দিতে।

শিশুর যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধে করণীয়, শিশু যৌন নিপীড়ন, বাংলাদেশে শিশু নির্যাতন

সবচেয়ে বড় কথা, নিজের সন্তান যখন তার সাথে ঘটে যাওয়া যৌন নির্যাতনের কথা বলবে, তখন যার বিরুদ্ধে বলুক না কেন, নির্যাতক আপনার যতো আপনজনই হোক না কেন, সন্তানের কথা বিশ্বাস করবেন। তাকে চুপ করিয়ে দিয়ে তার সামনেই ওই নির্যাতককে ডেকে খাতির যত্ন কইরেন না। এমন অনেক ছেলেমেয়েকে চিনি যাদের বাপ-মা সবকিছু জেনেও সন্তানের যৌন নির্যাতককে সন্তানকে দিয়েই চা-নাস্তা পরিবেশন করিয়েছে। বাংলাদেশের সামাজিক পরিস্থিতি অনুযায়ী মা বাবাকে দেবতা মনে করা হয় বলেই এইসব সন্তানরা এই ধরনের বাপ-মা গুলোকে দুই বেলা জুতায় না। কিন্তু ঠিকই সারাজীবন মনে মনে ঘৃণা করে যায়।

কাজেই সন্তানের নির্যাতককে সন্তানের সামনেই শাস্তি দিন। ঠুনকো ইজ্জত সম্মানের তোয়াক্কা না করে নির্যাতককে এক্সপোজ করুন, সামাজিক এবং পারিবারিকভাবে বয়কট করুন। প্রয়োজনে মামলা করে চৌদ্দশিকের ভাত খাওয়ান।

রাস্তায় হাঁটার সময় কোনো শিশুর সাথে কাউকে অস্বাভাবিক আচরণ করতে দেখলে সাথে সাথে চ্যালেঞ্জ করুন। “আমি বাচ্চার চাচা/মামা/খালু হই” এইসব বললেও পিছপা হবেন না। প্রয়োজনে লোক জড়ো করে বাচ্চাসহ ওই লোককে নিয়ে বাচ্চার মা-বাপের কাছে চলে যান। আপনার একটু উদ্যোগ হয়তো একটা শিশুর জীবন বাঁচিয়ে দেবে।

বাংলাদেশের সমাজব্যবস্থা এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি একেবারেই শিশুবান্ধব না এবং ভবিষ্যতে এ পরিস্থিতির উন্নতি হবে এমন কোনো সম্ভাবনা আমি দেখি না। এ অবস্থায় আমাদের সবার সচেতনতাই পারে আমাদের শিশুদের জীবন আরেকটু বেশি নিরাপদ করতে

মিন্নির হাটার গতি এত স্লো কেন সেটা বুঝতেছি না।

মানুষ এতটা নির্মম হয় জানা ছিলনা?
----
এবার চট্টগ্রামে বিশ্ব কলোনিতে মহসীন নামে এক যুবককে দিন দুপুরে প্রকাশ্য কুপিয়ে ও স্টাম দিয়ে পিটিয়ে আহত করেছে দূর্বৃত্তরা। গতকাল ( ৩০ জুন) বিকেল ৫ ঘটিকায় বিশ্ব কলোনি এন ব্লকে এ ঘটনা ঘটে।

বর্ষাকালে কেউ বিদ্যুতের ঘুটি স্পর্ষ করবেন না।

ভাগ্য গণনাকারি জানতেন না তার ভাগ্যে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ছিল
ভাগ্য গণনাকারি প্রতিষ্ঠান এবং বিদেশি পাথর বিক্রয়কারক প্রতিষ্ঠান শেষ দর্শন আজমেরি জেমসকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। রাজধানীর পান্থপথে অবস্থিত বসুন্ধরা সিটিতে অবস্থিত এই প্রতিষ্ঠানে বুধবার বিকেলে এই অভিযান পরিচালনা করে এ জরিমানা করা হয়।

ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের সার্বিক তত্ত্বাবধানে অভিযান পরিচালনা করেন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল জব্বার মন্ডল, সহকারী পরিচালক মো মাসুম আরিফিন ও আফরোজা রহমান।

অভিযান শেষে শাহরিয়ার বলেন, ‘আমরা শেষ দর্শনের কাছে তিনটা বিষয় জানার ছিলো, প্রথমতো তারা যে পাথরগুলো বিদেশ থেকে নিয়ে আসে তার আমদানি কারকের স্টিকার আছে কি না, দ্বিতীয় তাদের কাছ থেতে যারা পাথর ক্রয় করে তাদের কোন ভাগ্য পরিবর্তন হয় কি না? প্রত্যেকটা পাথরের মূল্য প্রদর্শন করা।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা মূলত আজকে মূল্য প্রদর্শন না করার অপরাধে প্রতিষ্ঠানটিকে জরিমানা করেছি। আগামীতে আমরা তাদের পাথরগুলো পরীক্ষা করবো। আমরা তাদেরকে পাথর রপ্তানির কাগজপত্র এবং কিভাবে ভাগ্য পরিবর্তন হয় তার ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।’

এসময় ভোক্তা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা তাকে প্রশ্ন করেন, আপনারা অন্যদের ভাগ্য গণনা করেন কিন্তু আজকে যে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর থেকে আমরা আসবো এটা আপনারা জানতেন না? এমন প্রশ্নেরর জবাবে ভাগ্য গণনাকারি প্রতিষ্ঠান লিটন দেয়ানের ম্যানেজার বললেন, ‘স্যার আপনারা ঈদের আগে জরিমানা করলে কিভাবে টাকা পরিশোধ করবো। এখন আমাদের ব্যবসা ভালো যাচ্ছে না।’

বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলো তাদের শিশুদের উপর কোন ব্যাড ইফেক্ট না পড়ে সে জন্য বিভিন্ন প্রকার কম্পিউটার ও মোবাইল গেইম নিষিদ্ধ করে। যেমন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাবজি গেম নিষিদ্ধ। আর আমারা বুঝে না বুঝে সব গেইম বিনোদনের জন্য শিশুদের হাতে তুলে দেই ।

আগুন নিয়ন্ত্রণে আসছে না।

আজ সেই কাল রাত!
অপারেশন সার্চলাইট (ইংরেজি: Operation Searchlight) ১৯৭১সালে ২৫ মার্চ থেকে শুরু হওয়া পাকিস্তানী সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত পরিকল্পিত গণহত্যা, যার মধ্যমে তারা ১৯৭১ এর মার্চ ও এর পূর্ববর্তী সময়ে সংঘটিত বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে দমন করতে চেয়েছিল।[৯] এই গণহত্যা ছিল পশ্চিম পাকিস্তানী শাসকদের আদেশে পরিচালিত,যা ১৯৭০ এর নভেম্বরে সংঘটিত অপারেশন ব্লিটজ্‌ এর পরবর্তি অণুষঙ্গ। অপারেশনটির আসল উদ্দেশ্য ছিল ২৬ মার্চ এর মধ্যে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) সব বড় বড় শহর দখল করে নেয়া এবং রাজনৈতিক ও সামরিক বিরোধীদের এক মাসের ভেতর নিশ্চিহ্ন করে দেয়া[১০]। বাঙালিরা তখন পাল্টা প্রতিরোধ সৃষ্টি করে,যা পাকিস্তানী পরিকল্পনাকারীদের ধারণার বাইরে ছিল[১১]। মে এর মাঝামাঝি সময়ে সকল বড় বড় শহরের পতন ঘটার মধ্যে দিয়ে অপারেশন সার্চলাইটের প্রধান অংশ শেষ হয়। এই সামরিক আক্রমণ ১৯৭১ সালের গণহত্যাকে ত্বরান্বিত করে। এই গণহত্যা বাঙালিদের ক্রুদ্ধ করে তোলে যে কারণে পাকিস্তান সেনবাহিনীর বাঙ্গালি সেনাপতি ও সৈনিকেরা বিদ্রোহ ঘোষণা করে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষিত হয় এবং বহু মানুষকে শরণার্থীরূপে ভারতে আশ্রয় নিতে হয়। এই ভয়াবহ গণহত্যা ১৯৭১ এর বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সূত্রপাত ঘটায় এবং বাঙালিরা দখলদারী পাকিস্তানী বাহিনীকে বিতারিত করার সংগ্রামে লিপ্ত হয়৤ পরিণতিতে ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দের ১৬ই ডিসেম্বর ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ কমান্ড "মিত্র বাহিনী" এর কাছে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বিনাশর্তে আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়

ফেইজবুকের মিলিমিশি পেইজে প্রকাশিত।

শিক্ষার্থীদের শিক্ষার উদ্দেশ্য ‘বাস্তব ভিত্তিক ও কর্মমূখী’ না হয়ে, সার্টিফিকেট মুখী হলে; শিক্ষার্থীরা শুধু একটা কাজগের সার্টিফিকেট অর্জন করে, ফলে পাস কারার পরও সেই শিক্ষা কোন কাজে আসে না, বরং দেশে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। যে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো সার্টিফিকের পাশাপাশি বাস্তবভিত্তিক জ্ঞান, কর্মদক্ষতা তৈরী করতে পারে সে দেশের বেকার সংখ্যা হ্রাস পায়, উদ্দ্যোক্তা বাড়ে, সর্বপরি সে দেশের জাতীয় আয় বৃদ্ধি পায়। মাথাপিছু আয় হলো, দেশের মোট আয়কে মোট জনসংখ্যা দিয়ে ভাগ। বাংলাদেশের বর্তমান মাথাপিছু আয় কত?

iCT Sky ও ‘মিলিমিশি’ কর্তৃক আয়োজিত “ওয়েব ডিজাইন” ক্লাশ-1

প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ : প্রথম ধাপে ছোট জেলায় পরীক্ষা

শিরোনাম-1 (সূত্র: জনকন্ঠ) তারিখ:17-Feb-2019
অনলাইন রিপোর্টার ॥ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে (ডিপিই) চলছে ‘সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৮’ এর লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি। ১৫ মার্চ থেকে এ পরীক্ষা শুরু করতে চলছে যাবতীয় প্রস্তুতি। তবে প্রথম ধাপে দেশের ছোট জেলায় লিখিত পরীক্ষা নেয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, এবার পরীক্ষা পদ্ধতিতে আসছে আমূল পরিবর্তন। প্রথমবারের মতো লিখিত পরীক্ষা কয়েকটি ধাপে আয়োজন করা হবে। যেসব জেলায় লিখিত পরীক্ষা আগে শেষ হবে সেখানে আগেই মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে।

এ বিষয়ে ডিপিইর মহাপরিচালক ড. এ এফ এম মনজুর কাদির বলেন, প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা ১৫ মার্চ শুরু হবে। লিখিত পরীক্ষা পাঁচ থেকে ছয়টি বা তারও বেশি ধাপে আয়োজন করা হতে পারে।’

তিনি বলেন, যেসব জেলায় ৫০ হাজার বা তার বেশি আবেদনকারী সেখানে একাধিক ধাপে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। জেলা প্রশাসক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মতামতের উপর এটি নির্ভর করবে। তবে প্রথম ধাপে জয়পুরহাট, নড়াইলসহ এমন ছোট জেলাগুলোতে পরীক্ষা শুরুর কথা ভাবা হচ্ছে।

জানা গেছে, এবার নিয়োগ পরীক্ষা সম্পূর্ণ ডিজিটালাইজড পদ্ধতিতে হবে। নির্ধারিত জেলায় পরীক্ষা আয়োজনের আগের রাতে ইন্টারনেটের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে প্রশ্নপত্রের সব সেট পাঠানো হবে। পরীক্ষার দিন সকাল ৮টায় প্রশ্নপত্র ছাপিয়ে তা কেন্দ্রে পৌঁছানো হবে।

মিলিমিশি থেকে অনেক কিছু জানতে পারছি। পুনরায় ধন্যবাদ মিলিমিশি।

মোবাইলে ইন্টারনেট স্লো কাজ করতেছে, সকালে সবাই মিলিমিশিতে একসাথে বেশি মানুষের চাপের জন্য এমন হচ্ছে বুঝতেছি না।

কুইজের অপেক্ষায় বসে আছি।

কতৃপক্ষ রাত ১২টার পরিবর্তে ভোর ৬-৭টায় নতুন কুইজ প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল, অনেকই নতুন কুইজ দেখা ও উত্তর দেওয়ার জন্য সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠা শুরু করেছে :)

সফলতার একটা সূত্র বলে দেই??
আজকে কে কাজ করতে পার, তা অলশতা করে কালকের জন্য রেখে দিও না!

Din gelo tomato poth chahiya.

যারা নতুন জয়েন করেছে, তারা প্রফাইল পিকচার আপলোড দিতে গিয়ে, সবাই ভুল করে ওয়ালে ছবি পোস্ট করে দিতেছে।
নতুন যায়গায় গিয়ে ওয়াশরুম (টয়লেট) খুজে না পাওয়ার মত।

লাইভ ম্যাচ দেখুন।

News ও Job এই দুইটি প্রতিদিন একনজরে দেখার জন্য মিলিমিশিতে আসি। নিয়মিত আপডেট রাখার জন্য কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ। আর কুইজের উত্তর দেই, কিন্তু বিজয়ী হই না :( এটা কোন কথা@

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সন্ত্রাসী হামলায় বিধ্বস্ত হয় যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ার। পুরো ভবনে আগুন ধরে গেলে অনেকেই নিচে ঝাঁপ দেন জীবন বাঁচানোর আশায়। সেরকমই এক হতভাগ্য ব্যক্তির ছবি তুলেন এপি’র আলোকচিত্রশিল্পী রিচার্ড ড্রিউ। বলাই বাহুল্য যে মানুষটি বাঁচাতে পারেন নি নিজের জীবন।

যে যাই বলুক, বন্ধের দিনের ঘুমটাই আলাদা।

দেখে তাজ্জাব হয়ে গেলাম।

আকাশ থেকে স্যাটেলাইটের অংশ খষে পড়তে পারে। এটা বাস্তাব

ভাল্লাগছে..

এত হাসি কই রাখি!!!

সকালে ঘুম থেকে উঠেই দেখি মোবাইলে মেসস এসেছে ; আপনি মিলিমিশি এর গতকালের কুইজ বিজয়ী।িউত্তর দেওয়ার সময় ভাবতেই পারিনি, আমার ফাটা কপালও কোন কোন সময় বিজয়ী হয়।

19-Jul-2019 তারিখের কুইজ
(অংশগ্রহণ করেছেন: 3618 জন)
প্রশ্নঃ শত বছর জীবত থেকে কেউ যে কাজ করবে, তা যদি তুমি পঞ্চাশ বছর জবীত থেকে করতে পার তাহলে তুমিও শত বছর জীবন পেলে। আমরা চাইলে কর্মের পরিধি ও তাৎপরতা বৃদ্ধি করে শত বছর বাঁচতে পারি। মানে পঞ্চাশ বছর বেচেঁ থেকে শত বছর বা তারও বেশি বছরের সমান কাজ করতে পারি। ১২ কর্মঘন্টার মধ্যে ‘কামাল’ প্রতিদিন ৪ঘন্টা অপচয় করেন ও ৮ঘন্টা কাজ করেন অন্যদিকে তার সহকর্মি ‘শামিম’ কোন সময় অপচয় করেন না। দুজনেই ১৮বছর চাকুরী করলে শামিমের তুলনায় কামাল কত বছর কম চাকুরী করলো?
(A) ৯ বছর
(B) ৪ বছর
(C) ৬ বছর
06-Jul-2019 তারিখের কুইজ
(অংশগ্রহণ করেছেন: 4051 জন)
প্রশ্নঃ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া আর কোন এ্যান্টিবায়টিক নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে ঐষধ (এ্যান্টিবায়িটিক) এর অপব্যবহার মানব সভ্যতা ধ্বংশের জন্য দায়ি হবে। কারণ অনাকাঙ্ক্ষিত/অসম্পূর্ণ এ্যান্টিবায়িটিক ডোজ প্রয়োগের ফলে মানব শরীরে একসময় আর কোন এ্যান্টিবায়িটিক কাজ করবে না। বর্তমানেই বিভিন্ন হসপিটালে এই সমস্যা দেখা দিয়েছে, এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে সামান্য রোগেই চোখের সামনে রোগী মারা যাবে। বাংলাদেশের সব চেয়ে বড় সরকারি হাসপাতাল কোনটি?
(A) স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ
(B) শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ
(C) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
02-Jul-2019 তারিখের কুইজ
(অংশগ্রহণ করেছেন: 4207 জন)
প্রশ্নঃ রাশিয়ার ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডা. গুপ্তপ্রসাদ রেড্ডি (বি ভি) বলেছেন, ক্যান্সার কোনো মরণব্যাধি নয়, মাত্র দুটি উপায় অনুসরণ করলেই উধাও হবে ক্যান্সার। ১. প্রথমেই সব ধরনের সুগার বা চিনি খাওয়া ছেড়ে দিন। ২. এরপর এক গ্লাস গরম পানিতে একটি লেবু চিপে মিশিয়ে নিন। টানা তিন মাস সকালে খাবারের আগে খালি পেটে এই লেবু মিশ্রিত গরম পানি পান করুন। উধাও হয়ে যাবে ক্যান্সার। -- ক্যান্সার হতে পারে এ জন্য নিচের কোন মাছটি খাওয়া নিষেধ?
(A) পিরহানা মাছ
(B) তেলাপিয়া মাছ
(C) পটকা মাছ